ছাত্রদলের সক্রিয় ক্যাডার এখন ছাত্রলীগ নেতা

এই নেতাই সেদিন বিএনপি নেতা এ্যানির উপর লাঠি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন
বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এমপির উপর হামলাকারীর পরিচয় মিলেছে। হামলাকারী একসময়ে ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা ছিলেন। ক্ষমতার হাতবদলের সঙ্গে ছাত্রদলের কর্মী এখন ছাত্রলীগের বড় নেতা বনে গেছেন। হামলাকারী ছাত্রদল নেতা বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসিমউদ্দিন হলের ছাত্রলীগের সভাপতি। তার নাম আব্দুর রহমান জীবন। ইতিমধ্যে গোয়েন্দারা জীবনের ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ জুন বিএনপি’র ডাকা হরতালে শাহবাগ মোড়ে ছাত্রদলের সাবেক নেতা জীবন বিএনপির কেন্দ ীয় নেতা শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এমপির উপর লাঠি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন। এ্যানীকে জীবনের নেতৃত্বে মারধর করা হয়। নিজেকে ছাত্রলীগের যোগ্য নেতা হিসেবে পরিচিত করার জন্য এ্যানীর উপর পরিকল্পিতভাবে সে হামলা করে। হামলার জন্য ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কোন নির্দেশনা ছিল না। বরং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল জীবন। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এ্যানীকে জীবনের মারধরের এ্যাকশনের ছবি প্রকাশিত হয়েছে। এ ঘটনার পর মারমুখী ছাত্র নেতা সম্পর্কে গোয়েন্দারা খোঁজ-খবর নিতে শুরু করেন।

এই নেতাই সেদিন বিএনপি নেতা এ্যানির উপর লাঠি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগ নেতা আব্দুর রহমান জীবনের ছাত্র রাজনীতি শুরু হয় ছাত্রদলের হাত ধরে। ছাত্রদলের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকা অবস্থায় তিনি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন। জীবন ২০০৩-২০০৪ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে ভর্তি হন। তার গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলার পুরাবাজার বেসনাল গ্রামে। পিতার নাম মাইনুদ্দিন আকন্দ। তিন ভাইয়ের মধ্যে দুই ভাই বিদেশে থাকেন। জীবন ২০০৪ সালে কবি জসিমউদ্দিন হলের মুন্সিগঞ্জ এলাকার ছাত্রদলের এক শীর্ষ নেতার মাধ্যমে হলে উঠেন। এরপর থেকে হলে ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। হলে সিট পলিটিক্সসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন।

এমনকি ২০০৫ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অমর একুশে বই মেলার উদ্বোধন মঞ্চেও তার সরব পদাচরণা ছিল। সেই মঞ্চে বিএনপিপন্থি বিভিন্ন পেশাজীবীর সাথে জীবনের ফটো গোয়েন্দাদের হাতে পৌঁছেছে। ছবিতে বিএনপিসহ ছাত্রদলের বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীদেরও দেখা গেছে। এই ছবি ছাত্রলীগ নেতারা দেখে বিস্মিত হয়েছেন। জীবনের পূর্বের কর্মকাণ্ড নিয়ে ছাত্রলীগ নেতারা বিব্রত। তবে ২০০৬ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দিনে তিনি সরাসরি ছাত্রদলের রাজনীতি করেছেন। রাতে ছাত্রলীগের নেতাদের সাথে দেখা করতেন। সেই সময়ের হলের ছাত্রলীগ সভাপতিও ছিলেন মুন্সিগঞ্জ এলাকার। ক্ষমতার হাত বদলের পরপরই সুবিধাবাদী জীবন ছাত্রলীগের কর্মী সংকটের সুযোগে হলের রাজনীতিতে নিজের অবস্থান তৈরি করেন।

ছাত্রদলের ক্যাম্পাসের একাধিক নেতা জানান, আব্দুর রহমান জীবন ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা ছিল। জসিমউদ্দিন হলে ছাত্রদলের ভিতরে ভালো অবস্থান তৈরি করে সে। ছাত্রদলের কাছ থেকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নিয়েছে জীবন। ছাত্রদলের নাম ভাঙ্গিয়ে অনেক অপরাধ করেছে সে।

ছাত্রলীগ নেতা হওয়ার পর বেপরোয়া জীবন

২০০৯ সালে ছাত্রলীগের বিভিন্ন হলের কমিটি গঠনকালে সুবিধাবাদী জীবন কবি জসীমউদদীন হলের সভাপতির মতো গুরুত্বপূর্ণ পদটি বাগিয়ে নেন। হল ছাত্রলীগের সভাপতি হওয়ার পরপরই জীবন বেপরোয়া হয়ে উঠেন। হলের সাধারণ ছাত্রদের উপর নামে অমানবিক নির্যাতন। এই নির্যাতন এখনো অব্যাহত রয়েছে।

হলের ছাত্ররা জানান, হলের সাগর নামের এক সাংবাদিক তার কথা না শোনায় হিযবুত তাহরীরের কর্মী সাজিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেন। তার কক্ষে হিযবুত তাহরীরের প্রচুর লিফলেট রয়েছে। এসব লিফলেট নিরীহ ছাত্রদের খাতায়, বইয়ে, কক্ষে এমনকি পকেটে ঢুকিয়ে দিয়ে হিযবুতের কর্মী অ্যাখ্যা দেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে তার নেতৃত্বে ছাত্রলীগের কর্মীরা ভাংচুর করে। পহেলা বৈশাখ টিএসসি মোড়ে একটি বহুজাতিক মোবাইল কোম্পানির স্পন্সরশিপের মাধ্যমে জীবন কনসার্টের আয়োজন করে। এই কোম্পানীর কাছ থেকে বিপুল টাকা নেন তিনি। এই কনসার্টকে কেন্দ করে ১৫ জনের অধিক ছাত্রী লাঞ্ছিত হয়। এছাড়াও ক্যাম্পাসের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জীবনের সম্পৃক্ততা রয়েছে।

ছাত্রলীগের নেতারা জানান, জীবনের অনৈতিক কর্মকাণ্ডে তারা বিব্রত। ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারী জীবন মূলত বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করছে। ছাত্রলীগকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করার জন্য এসব অনুপ্রবেশকারী যথেষ্ট। ছাত্রলীগ নেতারা অবিলম্বে অনুপ্রবেশকারী জীবনের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। এই ব্যাপারে ছাত্রলীগ জসীমউদদীন হল শাখার সভাপতি আব্দুর রহমান জীবন বলেন, তিনি ছাত্রদল রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। এমপি এ্যানীর উপর হামলা করার তার ছবি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে বলে শুনেছেন। তবে দেখেননি বলে জানান।

ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি শেখ সোহেল রানা টিপুকে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তিন দফা ফোন করেও পাওয়া যায়নি।

[ad#co-1]

Leave a Reply