দুই তারকার আলোতে

স্কুলভিত্তিক প্রতিভা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা মার্কস অলরাউন্ডার ২০১০-এর প্রচার শুরু হয়েছে গত ২০ মে থেকে, এনটিভিতে। এর মূল দুই বিচারক অভিনেত্রী অপি করিম ও সংগীত শিল্পী হাবিব ওয়াহিদ মার্কস অলরাউন্ডার প্রতিযোগিতার নানা গল্প নিয়ে সম্প্রতি এক আড্ডায় মজেছিলেন। আর সেই গল্পকথার উল্লেখযোগ্য অংশ নিয়ে লিখেছেন সাজ্জাদ হুসাইন

কৈশোরে বিচারকের আসনে বসা কোনো মানুষকে দেখলেই খানিকটা ভয় পেতেন দুজন, কিন্তু পরবর্তীতে আত্মবিশ্বাসের জোরে সেই ভয় মুহূর্তেই গায়েব করে দিতেন তারা। বলছিলাম অপি করিম ও হাবিব ওয়াহিদের কথা। ছোটবেলায় দুজন নাচ, গান ও অভিনয়ের নানা পরীক্ষায় বিচারকের সামনে হাজির হয়েছেন। এবার তারা নিজেরাই বিচারক হয়েছেন মার্কস অল রাউন্ডার-২০১০ প্রতিযোগিতার।

আর এ কাজ করতে গিয়ে কখনো কখনো তাদের খানিকটা কঠোর হতে হয়। বিচারকের আসনে অপি করিমকে তো প্রায়ই বলতে শোনা যায়”‘তোমার নাচের ঢংটা এরকম না হয়ে এরকম হলে আরো ভালো হতো। কিংবা তোমার এই ব্যাপারে একটু সচেতন থাকা উচিত ছিল যে, ‘ড়’ আর র’-এর উচ্চারণ এক নয়। অথবা তোমার অভিনয়ের এই অংশটাতে আমি একদমই কোনো প্রাণ খুঁজে পাইনি।’ বাচ্চাদের ব্যাপারে কেন এত আপত্তি অপি করিমের? তিনি একটু ঢোঁক গিলে বললেন, ‘এখন ওরা অনেক কিছু না জেনে ভুল করবে”এটাই স্বাভাবিক। তাই ওরা ভুলগুলো ভুল জেনে সামনে এগোলে ওদের সামনের পথটা অনেক মসৃণ হবে। আর বাচ্চাদের জন্য আদর-শাসন দুটোরই সমান ও বিপরীতমুখীর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, হা-হা-হা!’ অপি করিমের সঙ্গে যোগ করে একটু ভিন্নভাবে নিজের অভিমত জানাতে গিয়ে হাবিব ওয়াহিদ বললেন, ‘আমরা আসলে বাচ্চাদের ভুল ধরতে চাই না, আমরা চাই ওরা যেন সঠিক পথেই হাঁটে। এজন্য একটু শুধরে দেওয়ার চেষ্টা করি। প্রতিযোগিতায় কাজ করতে করতে বাচ্চাদের সাথে আমাদের একরকম ঘনিষ্ঠতা হয়েই যাচ্ছে। কিন্তু আমরা ইচ্ছে করেই তাদের সাথে এক ধরনের আরোপিত দূরত্ব সৃষ্টি করে রাখছি, যাতে তারা আমাদের বিচারসুলভ আচরণকে সহজে মেনে নিতে পারে।’ এবার হাবিবের সঙ্গে সুর মিলিয়ে অপি করিম বলেন, ‘আসলে আমাদের মূল উদ্দেশ্য বাচ্চাদের অবস্থানের মান উন্নয়ন ঘটানো, হতাশ করা নয়।’ অপি করিমের এই কথার সঙ্গে একাত্বতা ঘোষণা করলেন হাবিব ওয়াহিদ। তবে বিচারক হাবিব ওয়াহিদকে মাঝে-মাঝে বলতে শোনা যায় কোনো কোনো প্রতিযোগী নাকি তাঁর শিক্ষক! ব্যাপারটা বিস্ময়কর নয় কি? হাবিব নিজ মুখেই বললেন, ‘বিস্ময়ের কিছু নেই। আমি যখন ওদের মুখে কোনো গুরুগম্ভীর এবং গুরুপাক কবিতা আবৃত্তি শুনি, তখনই আমি ওদের ছাত্র বনে যাই। কারণ আমি মনে প্রাণে স্বীকার করি, আমি মনে প্রাণেই একজন মিউজিকের লোক, কবি নই।’

[ad#co-1]

Leave a Reply