নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জে বিনিয়োগকৃত পাঁচ হাজার কোটি টাকা অনিশ্চয়তায়

নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ শিল্প এলাকায় গ্যাসের অভাবে বিনিয়োগকৃত পাঁচ হাজার কোটি টাকা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। গত চার থেকে পাঁচ মাস প্রয়োজনমতো গ্যাস সরবরাহ না থাকায় জেনারেটর ও বয়লারগুলো সামর্থ্যের ৩০ ভাগ কাজও করতে পারছে না। ফলে ৭০ ভাগ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

গতকাল বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ শিল্প মালিক সম্মিলিত পরিষদ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসায়ী নেতারা এসব কথা জানান।

এতে জানানো হয়, প্রয়োজনমতো গ্যাস না পেয়ে জেনারেটর ও বয়লার চালাতে বিকল্প হিসেবে ডিজেল ব্যবহার করতে হচ্ছে শিল্প মালিকদের। এতে উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে বহুগুণে। এ সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী এবং বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন শিল্প মালিকরা।
সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন পরিষদের সচিব শাহ রেজাউল মাহবুব। এ সময় পরিষদের সভাপতি হারুন-উর-রশিদ, সদস্য প্রকৌশলী ইকবাল হোসেন, আলী মাহবুব রব্বানী, হাজী আব্দুল আউয়াল, আখতার হোসেন খান, শফিউল আলম ও সাজ্জাদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

শাহ রেজাউল মাহবুব বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের বিসিক শিল্প নগরী, পঞ্চবটি, ডালডা রোড, বক্তাবলি, কাশীপুর, ভোলাইল, শাসনগাঁও, এনায়েতনগর, মাসদাইর ও মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর শিল্প এলাকার ৫০০ শিল্প-কারখানায় দিনে ১৫ থেকে ১৬ ঘণ্টাই গ্যাস থাকে না। অথচ দেশের মোট বস্ত্র ও বস্ত্রজাত পণ্য রপ্তানি করে যে আয় হয় তার ৩০ ভাগই আসে এসব শিল্প-কারখানা থেকে।’

বক্তারা গ্যাস সংকটের জন্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান তিতাসকে দায়ী করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল-পাঠানতলী থেকে পোস্ট অফিস রোড পর্যন্ত ৩০ থেকে ৩২ শিল্প-কারখানায় নিয়মবহির্ভূতভাবে সঞ্চালন লাইন থেকে গ্যাস সংযোগ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সিদ্ধিরগঞ্জে ১২০ মেগাওয়াটের সান্ধ্যকালীন (পিকিং) বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস দেওয়া হচ্ছে। ফলে উলি্লখিত এলাকার শিল্প-কারখানায় গ্যাসের চাপ পাওয়া যায় না।

বক্তারা নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জের এসব শিল্প এলাকায় নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করার দাবি জানান। প্রয়োজনে আপৎকালীন জরুরি ভিত্তিতে ফতুল্লার পোস্ট অফিস রোডের ডিআরএসর ১০০ গজ আগে থেকে বাইপাস লাইন স্থাপন করে সরাসরি সংযোগ দেওয়ার প্রস্তাব করেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত সঞ্চালন লাইন থেকে দেওয়া গ্যাস সংযোগের বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি গ্যাসের বদলে ফার্নেস তেল দিয়ে চালানোর প্রস্তাব দেন তাঁরা। এ ছাড়া স্পিনিং, উইভিং, নিটিং, ডায়িং-প্রিন্টিং, গার্মেন্ট ও নিট গার্মেন্টসহ রপ্তানিমুখী সব শিল্পে ভ্যাট-ট্যাক্স ছাড়া ডিজেল ও ফার্নেস তেল সরবরাহেরও দাবি জানান শিল্প মালিকরা।

[ad#co-1]

Leave a Reply