মুন্সীগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের চাঁদাবাজি

মুন্সীগঞ্জের পরিবহন সেক্টরে চলছে ট্রাফিক পুলিশের চাঁদাবাজি। ট্রাফিক পুলিশ নিজেরাই এ চাঁদা উত্তোলন করছে। আবার চাঁদা কালেকশনে তারা বেতন ভিত্তিক নিয়োগ দিয়েছেন কমিউনিটি পুলিশ। এসব কমিউনিটি পুলিশের প্রতিদিন গড় বেতন দেয়া হয় ১৫০-৩০০ টাকা পর্যন্ত। আবার পরিবহন সেক্টর সমিতির নামেও এরা চাঁদা তুলছে। মুন্সীগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের চাঁদা কালেকশনের মূল পয়েন্ট হচ্ছে মুক্তারপুরে ষষ্ঠ বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু ঢালে মুন্সীগঞ্জ প্রান্তে। এছাড়া চাঁদা কালেকশন হয় সিপাহীপাড়া, শহরের শিল্পকলা একাডেমীর মোড়, মুন্সীরহাট, খাসেরহাট ও চিতলীয়াবাজারসহ বিভিন্ন যানবাহন স্ট্যান্ডে।

আর এসব চাঁদা থেকে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সার্জেন্ট আনোয়ারের নামে অবৈধ আয় লাখ টাকার উপরে। সার্জেন্ট আনোয়ার নিজেই এ অবৈধ টাকা লেনদেন করেন। তিনি বসে থাকেন মুক্তারপুর ব্রিজের ঢালে। প্রতিদিন নগদেও মাসিক চুক্তিতে হাতে চলে আসে চাঁদার টাকা। আবার ট্রাফিক পুলিশের কনস্টেবল হাবিলদারের মাধ্যমে চাঁদা প্রতিদিনের গাড়িগুলো থেকে চাঁদা কালেকশন করা হচ্ছে। তারা চাঁদা কালেকশন করে সার্জেন্ট আনোয়ারের কাছে তা পৌঁছে দেয়। সরজমিন গিয়ে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ শহরে প্রায় ১০০ রেন্ট-এ কারের গাড়ি রয়েছে। কোন নতুন গাড়ি নামলেই সার্জেন্ট আনোয়ার ভর্তি ফি বাবদ গাড়ি প্রতি ৫০০ টাকা নেয়। গাড়ি প্রতি মাসে ফি নেয় ৫০০-৭০০ টাকা। ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জ লাইনে সিএনজি অন্তত ১ হাজার। প্রতিটি সিএনজি থেকে প্রথমে ভর্তি ফি আদায় করে নেয় ৭০০ টাকা।

এরপর প্রতি মাসে প্রতি সিএনজি থেকে ২০০ টাকা করে দিতে হয়। মাসিক চুক্তি ছাড়াও বিভিন্ন লাইনের সিএনজি মুক্তারপুরে এলেই ২০ টাকা করে আদায় করে। মালবাহী ট্রাক থেকে আদায় করে নেয় ১০০০-২০০০ টাকা পর্যন্ত। বিদেশ থেকে আগত লোকজন প্রাইভেটকার মাইক্রোবাস মুক্তারপুরে পৌঁছলে আদায় করে ৫০০-১০০০ টাকা পর্যন্ত। মাসিক চুক্তি হিসেবে মুক্তারপুর মাফহাটি ও পুরাতন বাসস্ট্যান্ড চিতলীয়া রুটে চলাচলকারী যাত্রীবাহী ডিজেল গাড়ি থেকে সার্জেন্ট আনোয়ার পরিবহন শ্রমিক সমিতির মাধ্যমে যথাক্রমে ২ হাজার ৫শ’ ও ২৫০ টাকা হারে পেয়ে থাকেন, লেগুনা গাড়ি চলাচল বাবদ মাসে পায় ৮ হাজার টাকা। শহরে ট্রলি গাড়ি চলে আনুমানিক ২৫-৩০টি।

এ থেকে প্রতি গাড়ি প্রতি মাসে পায় ৮০০ টাকা করে। এছাড়া মুক্তারপুর স্ট্যান্ডে বেতকা-দীঘিরপাড় রুটে টেম্পো প্রতি ২৫ টাকা, আড়িয়ল রুটে ডিজেল গাড়ি প্রতি ৩০ টাকা, টঙ্গীবাড়ি রুটে স্কুটার প্রতি ১০ টাকা, বালিগাঁও রুটে লেগুনা প্রতি ৩০ টাকা করে কমিউনিটি পুলিশের মাধ্যমে আদায় করে। এছাড়াও মাসিক চুক্তি ছাড়া যেসব সিএনজি, লেগুনা, স্কুটার নারায়ণগঞ্জ, পঞ্চবটি, পোস্তগোলা ও ঢাকা আসা-যাওয়া করে মুক্তারপুর স্ট্যান্ডে বসে কমিউনিটি পুলিশের মাধ্যমে গাড়ি প্রতি ২০-৩০ টাকা আদায় করে। ট্রাফিক পুলিশ ও পরিবহন মালিক শ্রমিকদের উত্তোলিত চাঁদার টাকা মুন্সীগঞ্জ নারায়ণগঞ্জ ও ফতুল্লা থানার ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের মধ্যে বাটোয়ারা হয় বলে একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়। এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলামের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বিষয়টি দেখছেন বলে জানান।

[ad#co-1]

Leave a Reply