টঙ্গীবাড়ি রাস্তার বেহাল দশা ॥ দুর্ভোগ

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বেতকা সুবচনী গাছতলা থেকে আউটশাহী তিন রাসত্মা মোড় পর্যনত্ম ৭ কিলোমিটার রাসত্মার বেহাল দশা। রাসত্মাটি দিয়ে প্রতিদিন উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের হাজারও মানুষের যাতায়াত হলেও তা পাকা না করায় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে প্রায় ২০ হাজার পথিক। সরেজমিন দেখা যায়, শুকনো মৌসুমে রাসত্মাটি দিয়ে যাতায়াত করা গেলেও বষর্া মৌসুমে যাতায়াত করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাসত্মাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এছাড়া অত্র এলাকার অধিকাংশ মানুষ কৃষিজীবী। বর্ষা মৌসুমে তাদের উৎপাদিত শাকসবজি পরিবহনের সমস্যার কারণে বাজারজাত করা সম্ভব না হওয়ায় কৃষকরা মারাত্মক ক্ষতির শিকার হচ্ছে। এছাড়াও এলাকার স্কুল-কলেজগামী ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াত অসম্ভব হয়ে পড়ে। শিক্ষার্থীদের দুর্গতি ছাড়াও ক্ষতির শেষ নেই। দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে অনেক পথচারী। এর আগে এ রাসত্মাটি পাকাকরণের নানা প্রতিশ্রম্নতি একাধিক বার বিভিন্ন মহল থেকে দেয়া হলেও তা বাসত্মবায়ন হয়নি। স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি বলেছেন, শুধু এই রাসত্মা কেন, এ অঞ্চলের প্রতিটি রাসত্মাঘাটই মানুষের ব্যবহারের উপযোগী করে তোলা হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে পরিকল্পিতভাবে রাস্তাঘাটগুলো পর্যায়ক্রমে বাসত্মবায়িত হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply