মুক্তিযুদ্ধোত্তর বিশ্বপরিস্থিতি:ইতিহাসের অনুদ্ঘাটিত সত্য

নূহ-উল-আলম লেনিন
দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়েছে। কার্যকর হয়েছে চার আত্মস্বীকৃত খুনির ফাঁসির দণ্ডাদেশ। যতোই ইনডেমনিটি দেয়া হোক, দম্ভ প্রকাশ করা হোক, বিলম্বে হলেও প্রমাণিত হয়েছে, এই বাংলাদেশে কেউই বিচারের ঊর্ধ্বে নয়। যতো ক্ষমতাধরই হোক না কেন, অপরাধ করলে ইতিহাসের অমোঘ বিধান থেকে রেহাই পাবার উপায় নেই।

একথা সত্য, সকল অপরাধীকে ধরা সম্ভব হয় নি। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত অবশিষ্ট আসামিরা বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করছে। সরকার চেষ্টা করছে তাদের খুঁজে বের করে দেশে ফিরিয়ে আনতে। আর তা সম্ভব হলে তাদের দণ্ডও কার্যকর হবে।

প্রশ্ন হলো, বঙ্গবন্ধু হত্যার সঙ্গে জড়িত সকল অপরাধীর দণ্ড কার্যকর করলেই কি বাঙালি জাতি কলঙ্কমুক্ত হবে? আমাদের বিবেচনায় এ জাতি কখনোই সম্পূর্ণ কলঙ্কমুক্ত হতে পারবে না। যে জাতি তার স্বাধীনতার মহানায়ক ও রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতার নিরাপত্তা বিধান এবং তার জীবন রক্ষা করতে পারে না, হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ সাময়িক হলেও রুদ্ধ করে রাখে এবং বিচার বিলম্বিত করে সে জাতির লজ্জা ও দীনতা কোনোদিনই ঘুচবার নয়। কেবল কি এটুকুই? আমার বিবেচনায় বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারও অসম্পূর্ণ। বিচারের এই অসম্পূর্ণতা যতোদিন দূর না হবে ততোদিন আমাদের ইতিহাসের দায়মুক্তি ঘটবে না।

প্রসঙ্গটি স্বভাবতই ব্যাখ্যার অপেক্ষা রাখে। এ কথা আমরা সবাই জানি, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়েছে দেশের প্রচলিত ফৌজদারি আইনে। আর দশটি হত্যাকাণ্ডের বা অপরাধের যেভাবে বিচার হয়ে থাকে, এটিও সেভাবেই হয়েছে। ব্যতিক্রম কেবল এখানে যে, সাধারণ হত্যাকাণ্ডের বিচারে বিচারকগণ ‘বিব্রতবোধ’ করেন না, কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের সময় হাইকোর্টের একাধিক বিচারক ‘বিব্রতবোধ’ করেছেন। ফলে বিচার প্রক্রিয়া প্রলম্বিত হয়েছে।

সে যাই হোক, বিচারের সময় বিচারিক আদালত থেকে শুরু করে হাইকোর্ট-সুপ্রিমকোর্টের বিচারকগণ প্রচলিত আইনের চৌহদ্দির মধ্যেই নিজেদের সীমাবদ্ধ রেখেছেন। তারা রাজনৈতিক বিবেচনার ঊর্ধ্বে থেকেছেন এবং হত্যাকাণ্ড ও হত্যাপরিকল্পনার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িতদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ আমলে নিয়ে তার বিচার করেছেন। হত্যার রাজনৈতিক কার্যকারণ ও রহস্য উদ্ঘাটন করতে যান নি।

ফলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য, এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অন্য কোনো অপশক্তি জড়িত কিনা এবং জড়িত থাকলে কে কতটা জড়িত, সে রহস্য আজও অনুদ্ঘাটিত রয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে কারোই দ্বিমত থাকার কথা নয় যে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডটি ছিল বিশ্বইতিহাসের জঘন্যতম নৃশংস রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড। আর আত্মস্বীকৃত কর্নেল ফারুক-রশিদরা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকলেও তাদের পেছনে যে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক শক্তিশালী মহলের মদত ছিল, সেটিও সুনিশ্চিত।

এ হত্যাকাণ্ডের পেছনে যে গভীর ভাবাদর্শগত প্রশ্ন এবং রাজনীতি যুক্ত ছিল, অন্য একটি বিচারের রায়ে সেই সত্যও আজ উšে§াচিত হয়েছে। কেবল রাষ্ট্রক্ষমতা দখল এবং ব্যক্তিমুজিবকে হত্যা করাই খুনিচক্রের একমাত্র বা প্রধান উদ্দেশ্য ছিল না। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর অবৈধ ক্ষমতাদখলকারী মোস্তাক-সায়েম-জিয়া চক্র বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অস্তিত্বের মূলে কুঠারাঘাত হানে। তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নির্বাসিত করে এবং মুক্তিযুদ্ধের সকল অর্জনকে বিসর্জন দেয়। সামরিক ফরমান বলে সংবিধান সংশোধন করে। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল চরিত্র-বৈশিষ্ট্য পাল্টে দেয়। জিয়াউর রহমান তথাকথিত সংসদে সংবিধানের ‘পঞ্চম সংশোধনী’ পাস করিয়ে তাদের সকল অপকর্মকে জায়েজ করার প্রয়াস পায়।

ঢাকার মুন সিনেমা হলকে কেন্দ করে দায়ের করা একটি রিট মামলার পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট পঞ্চম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে। সম্প্রতি আপিল বিভাগও হাইকোর্টের রায় বহাল রেখে বিষয়টির চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করেছে। দুটি মামলার মধ্যে কোনো যোগাযোগ না থাকলেও পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করে দেয়া রায়টি প্রকারান্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের অসম্পূর্ণতাকেই অংশত সম্পূর্ণ করেছে। বলা যেতে পারে, পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করে দেয়ার মামলাটি হচ্ছে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার পরিপূরক।

কিন্তু তারপরও ইতিহাসের অনাবৃত অনেক সত্য এখনো উšে§াচিত না হওয়ায় এই অপরাধের সঙ্গে জড়িত বাইরের শক্তিকে আমরা চিনতে পারছি না। নতুন প্রজš§ জানতে পারছে না ফারুক-রশিদ-জিয়া চক্রের পেছনে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের শক্তিধরদের কেউ ছিল কি-না? আমার মনে হয়, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সময়ের বিশ্ব পরিস্থিতি এবং বঙ্গবন্ধু সরকারের প্রতি বিভিন্ন দেশের দৃষ্টিভঙ্গি বিশ্লেষণ করলেই বোঝা যাবে কারা হত্যাকারীদের মদত যোগাতে পারে।

ব্যাখ্যার অপেক্ষা রাখে না, পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী বাংলাদেশে তাদের পরাজয়কে মেনে নিতে পারেনি। জš§লগ্ন থেকেই জুলফিকার ভুট্টোর নেতৃত্বাধীন পাকিস্তানের সিভিল-মিলিটারি রুলিং সার্কেল বাংলাদেশের ওপর প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য সর্বতোভাবে চেষ্টা চালায়। প্রথমত, তারা আন্তর্জাতিকভাবে বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোর রক্ষণশীল শাসকদের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধুত্বমূলক সম্পর্ক স্থাপনে বাধা দান করে। পাকিস্তান ওইসব দেশের শাসকগোষ্ঠীকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে, “ইসলামি রিপাবলিক পাকিস্তান’ ভেঙে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ রাষ্ট্র সৃষ্টি হচ্ছে ‘হিন্দু ভারতের’ ষড়যন্ত্রের ফল। বাংলাদেশ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও দেশটি মুসলিম উম্মাহর বাইরে চলে গেছে।” দ্বিতীয়ত, পাকিস্তানি শাসকরা যুদ্ধ-বিধ্বস্ত বাংলাদেশের পুনর্গঠনে বাধাদানের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে পরাজিত সাম্প্রদায়িক শক্তি ও নানা প্রবণতার চরমপন্থি শক্তিগুলোকে মদতদান করে এবং অন্তর্ঘাতে উৎসাহ যোগায়। তৃতীয়ত, পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই আমাদের সেনাবাহিনীর মধ্যেও তাদের নেটওয়ার্ক গড়ে তোলে। মোস্তাক-জিয়া এবং ফারুক-রশিদরা যে পাকিস্তানি সামরিক গোয়েন্দাদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখত এবং তাদের মদতেই যাবতীয় ষড়যন্ত্র চালিয়েছে, এটা বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন পড়ে না।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডপরবর্তী ঘটনাবলী প্রমাণ করেছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অন্তর্ঘাত চালানো, বাংলাদেশকে মুসলিম বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করা এবং বঙ্গবন্ধু সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার ব্যাপারে পাকিস্তানের পেছনে সৌদি আরব ও লিবিয়া প্রভৃতি তেলের পয়সায় ধনী দেশগুলোর মদত ছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের অব্যবহিত পরে উল্লসিত পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর সঙ্গে সৌদি আরব ও লিবিয়া প্রভৃতি দেশও অবৈধ মোস্তাক সরকারকে সোৎসাহে স্বীকৃতিদান করে।

সে সময়ের চীনের ভূমিকাও সন্দেহের ঊর্ধ্বে নয়। চীন বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে প্রকাশ্যেই। এমনকী জাতিসংঘের সদস্যপদ পাওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চীন ভেটো প্রয়োগ করেছে। সেই চীনও বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রায় সাথে সাথেই খুনি মোস্তাক সরকারকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দেয়।

চীনা সরকারের সোভিয়েট ও ভারত বিরোধী নীতিই ছিল বাংলাদেশ বিরোধিতার মূল কারণ। পাকিস্তান ভারতের এক নম্বর দুশমন ছিল বলেই তারা চীনের প্রাণের বন্ধু হয়ে গিয়েছিল। স্নায়ুযুদ্ধ যুগের এই বিশ্বপরিস্থিতিতে শক্তিধর দেশগুলো তাদের স্ট্র্যাটেজিক স্বার্থকে বিবেচনায় রেখেই বাংলাদেশের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক করেছিল।

এখন আসা যাক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা প্রসঙ্গে। একথা সবার জানা যে, গত শতাব্দীর ষাট বা সত্তরের দশকে বিশ্ব ছিল দুই পরাশক্তি- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েট ইউনিয়নের প্রভাব বলয়ে বিভক্ত। দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ছিল সোভিয়েট ইউনিয়নের বিশ্বস্ত মিত্র। পক্ষান্তরে পাকিস্তান ছিল (এবং এখনো আছে) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বশংবদ। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারত আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা দেয় এবং স্বাধীন-সর্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে চরম ঝুঁকি গ্রহণ করে। সোভিয়েট ইউনিয়নও বাংলাদেশের পাশে এসে দাঁড়ায়। ভারত ও সোভিয়েট ইউনিয়নের সর্বাত্মক সহযোগিতা ছাড়া এত অল্প সময়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় অসম্ভব ছিল। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়ায় এবং পাকিস্তানি সামরিক জান্তাকে অস্ত্র, অর্থ ও নৈতিক সমর্থন দেয়। এমনকি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সপ্তম নৌবহর পাঠাবার পাঁয়তারা করে।

স্বাধীনতার পর যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের বাস্তবতা মেনে নেয়। কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশের সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী জোট নিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতি, ভারত ও সোভিয়েট ইউনিয়নের সঙ্গে বন্ধুত্ব সর্বোপরি অবাধ ধনবাদী বিকাশের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের প্রগতিশীল আর্থ-সামাজিক নীতি, রাষ্ট্রীয় মূলনীতি হিসেবে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার ঘোষণা, পাট ও বস্ত্র শিল্প এবং ব্যাংক-বীমা জাতীয়করণ আমেরিকাকে ভীষণভাবে ক্ষুব্ধ করে। “পৃথিবী দুইভাগে বিভক্ত, শোষক ও শোষিত। আমি শোষিতের পক্ষে”-তারা বঙ্গবন্ধুর এই ঘোষণায় শঙ্কাবোধ করে। মার্কিন প্রশাসন বাংলাদেশ প্রশ্নে তাদের পরাজয়কেও মেনে নিতে পারেনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশে তার নীতি তথা মার্কিন প্রশাসনের নৈতিক পরাজয়কে তার ব্যক্তিগত পরাজয় বলেই মনে করেছেন। ইতোমধ্যে প্রকাশিত কিসিঞ্জারের স্মৃতিকথা এবং ‘হোয়াইট হাউস পেপারে’ এসব তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। হেনরি কিসিঞ্জার উদ্দেশ্যমূলকভাবেই বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ আখ্যা দিয়ে অপমান করতে চেয়েছে। বলা বাহুল্য নিক্সন প্রশাসন বঙ্গবন্ধুর সরকারের পতন কামনা করেছে এবং যুদ্ধবিদ্ধস্ত বাংলাদেশকে আরও দুর্দশার দিকে ঠেলে দিয়ে দেশের স্থিতিশীলতা নষ্ট করতে চেয়েছে। ১৯৭৪ সালে দেশে দুর্ভিক্ষাবস্থা সৃষ্টি হলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাঙলাদেশের নগদ অর্থে কেনা খাদ্য বোঝাই দুটি মার্কিন জাহাজকে বাংলাদেশে আসতে দেয়নি। বাংলাদেশের দুর্ভিক্ষের জন্য প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ এমা রথসচাইল্ড তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেছেন।

১৯৭৫-এ মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-র ভূমিকাও রহস্যাবৃত। বাংলাদেশে তৎকালীন মার্কিন রাষ্ট্রদূত বোস্টার এবং প্রকাশিত হোয়াইট হাউসের গোপন নথিপত্রের বরাতে জানা যায় যে, রাষ্ট্রদূতের অজ্ঞাতেই ঢাকাস্থ সিআই-এর স্টেশন প্রধান চেরি নানা রকম রহস্যজনক তৎপরতায় লিপ্ত ছিল। চেরি যে সরাসরি স্টেট ডিপার্টমেন্ট তথা হেনরি কিসিঞ্জারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন সে তথ্যও ইতোমধ্যে মার্কিন সাংবাদিক ম্যাসকারেনহাসের বরাতে আমরা জানতে পেরেছি। আমি নিজেই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোর ৬ টায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের নম্বরপ্লেটযুক্ত একটি গাড়ি একজন আরোহীকে নিয়ে ঢাকা বিশ্বাবিদ্যালয়ের সামনে দিয়ে দ্রুত চলে যেতে দেখেছি। পরবর্তীতে একাধিক সূত্রে প্রকাশিত হয়েছে ওই গাড়িতে সিআইএ-র স্টেশন প্রধান চেরি ছিলেন। কেন এত সকালে একটি বিদেশি দূতাবাসের গাড়ি ঢাকা শহরের স্পর্শকাতর এলাকাগুলোয় এসেছিল?

নানা ইঙ্গিত পাওয়া গেলেও বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে সিআইএ-র প্রত্যক্ষ ভূমিকার কোনো তথ্য আজও প্রকাশিত হয়নি। তবে আমার ধারণা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট ঢাকায় অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা সম্পর্কে অবহিত তো ছিলই এমনকি সিআইএ কোনো না কোনোভাবে সংশ্লিষ্ট ছিল। হয়তো এই সত্য একদিন প্রকাশিত হবে।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সময়কালের আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বাংলাদেশের অনুকূলে ছিল না। ভারতে ইন্দিরা গান্ধীর সরকারও অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক টানাপড়েনে হিমসিম খাচ্ছিল। ভারত বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কী ঘটছে সে সম্পর্কে একেবারে অজ্ঞাত ছিল, এটাও ভাবা যায় না। তবে ভারতের নিস্পৃহ ও নিষ্ক্রিয় ভূমিকায় প্রমাণিত হয়, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে ভারত সরকার উদাসীন ছিল। ইচ্ছাকৃত হোক বা অনিচ্ছাকৃত হোক তারা সম্ভাব্য অভ্যুত্থান মোকাবিলায় কোনো কার্যকর ভূমিকা নেয়নি।

কিন্তু কেন? মিত্র বা শত্রু যে যেই ভূমিকাই নিয়ে থাক না কেন তার নির্মোহ এবং বস্তুনিষ্ঠ মূল্যায়ন হওয়া বাঞ্ছনীয়। বাংলাদেশ সরকারকে সাহস করে এ ব্যাপারেও খোঁজ-খবর নিতে হবে, প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটন করতে হবে। বিশেষভাবে উদ্যোগী হতে হবে দেশের সিভিল সমাজ ও মানবাধিকার কর্মীদের । সরকারের নানা বাধ্যবাধকতা থাকলেও, সিভিল সমাজ তো মুক্ত-স্বাধীন। আজ সময় এসেছে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে জড়িত তৃতীয় পক্ষ এবং তাদের ভূমিকা শনাক্ত করা এবং জাতির সামনে ইতিহাসের অবগুণ্ঠন মুক্ত করা।

[ad#co-1]

Leave a Reply