ধলেশ্বরীতে বর্জ্যের স্রোত

মুন্সীগঞ্জের ওপর দিয়ে প্রবাহিত ধলেশ্বরীর পানি বিষাক্ত হচ্ছে কারখানার বর্জ্যে। আইডিয়াল টেক্সটাইল মিলস, মদিনা ডাইং, বর্ণালী ফেব্রিকসসহ ধলেশ্বরীর পার ঘেঁষে গড়ে ওঠা মিল-কারখানার রাসায়নিক বর্জ্য প্রতিনিয়ত নিঃসরণ হচ্ছে ধলেশ্বরীর বুকে। এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের নজরদারিও চোখে পড়ে না বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছে।

দীর্ঘ সাত বছর বন্ধ থাকার পর চালু হওয়া পশ্চিম মুক্তারপুরের আইডিয়াল টেক্সটাইল মিলের রং মিশ্রিত রাসায়নিক বর্জ্য এখন সরাসরি ধলেশ্বরীতে এসে পড়ছে। এই কারখানাটিতে চুরির অভিযোগে দীর্ঘদিন গ্যাস সংযোগ বন্ধ ছিল। বকেয়া বিল পরিশোধ করে আবার গ্যাস সংযোগ নিয়ে মিলটি চালু করা হয়েছে। এর আগে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেওয়ার জন্য ইফ্লুয়েন্স ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (ইটিপি) স্থাপন করা হলেও মিল চালু করার পর অধিক মুনাফা লাভের জন্য ইটিপি বন্ধ রাখা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অন্যদিকে মদিনা ডাইং অ্যান্ড প্রসেসিং দীর্ঘদিন গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার পর বকেয়া বিল পরিশোধ করে ইটিপি ছাড়াই আবার চালু করা হয়েছে। ফলে মিলের সব রাসায়নিক বর্জ্য নদীতে ফেলে পানি দূষিত করা হচ্ছে। বর্ণালী ফেব্রিকস ইটিপি স্থাপন করলেও সব সময় তা বন্ধ থাকে। আগাম জানান দিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে যখন কোনো কর্মকর্তা পরিদর্শনে আসেন শুধু তখনই ইটিপি চালু রাখা হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মিলের একাধিক কর্মী জানান।
আইডিয়াল টেক্সটাইল মিলের পরিচালক এমরান হোসেন খান বলেন, ‘দীর্ঘদিন আমাদের মিল বন্ধ ছিল, এরপর চালু হয়েছে, কিন্তু টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে এখনো ইটিপি চালু করা সম্ভব হয়নি। আগামী সাত দিনের মধ্যে এটি চালু করব।’

মঙ্গলবার মদিনা টেক্সটাইলে সরেজমিনে গেলে কর্তৃপক্ষ কিংবা উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা কেউই এ বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নয়াগাঁও পশ্চিমপাড়া গ্রামের জহির উদ্দিন দেওয়ান বলেন, ‘এক সময়ে ধলেশ্বরীর পানি পরিষ্কার ছিল, মাছ ছিল প্রচুর। কারখানার ময়লায় এ নদীর সাদা পানির রং দিন দিন কালচে-বেগুনি ও নীল হয়ে যাচ্ছে। পানির দুর্গন্ধে রোগ-ব্যাধি ছড়িয়ে পড়ছে।

নয়াগাঁও মধ্যপাড়া গ্রামের ৭৫ বছর বয়সী ইদ্রিস আলী জানান, নদীর এই দূষিত পানি ব্যবহার করে চর্মরোগসহ বিভিন্ন পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে নদীর আশপাশের গ্রামবাসী।

পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আবদুল খালেক মোবাইলে বলেন, ‘পাঁচ মাস হয় এ অঞ্চলে যোগদান করেছি, এখনো মুক্তারপুর এলাকা পরিদর্শন করতে পারিনি। শিগগিরই পরিদর্শন করে এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

[ad#co-1]

Leave a Reply