পদ্মা সেতুর ঋণচুক্তিতে দাতাদের কঠিন শর্ত

আশরাফ খান
পদ্মা সেতুর জন্য ঋণচুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে উন্নয়ন সহযোগীরা কঠিন শর্ত দিয়েছে। সরকারকে চাপের মধ্যে রেখে তারা বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুতে টোলের হার শতভাগ বাড়াতে বলেছে। তাদের শর্ত অনুযায়ী আগামী মাস থেকে যমুনা সেতুতে ৪০ শতাংশ হারে টোল বাড়ানো হচ্ছে। বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক ১১ আগস্ট যোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে এবং তার আগে সেতু বিভাগকে স্পষ্ট করেই জানিয়েছে, টোল বাড়ানো নাহলে যমুনা সেতু প্রকল্পে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হবে।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর ঋণচুক্তির শর্ত অনুযায়ীই টোলের হার বাড়াতে হচ্ছে। তবে উন্নয়ন সহযোগীদের চাপের মুখে একসঙ্গে শতভাগ না বাড়িয়ে সরকার তিন ধাপে টোল বাড়াবে। উন্নয়ন সহযোগীরা এতে সম্মত হয়েছে। সেতু বিভাগ চলতি বছর ৪০ শতাংশ, ২০১৬ সালে ৮০ শতাংশ ও ২০২১ সালে ১০০ ভাগ হারে টোল বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। বর্তমানে জিপ ও গাড়িসহ হালকা যানপ্রতি টোল নেওয়া হয় ৪০০ টাকা করে। ৫০ শতাংশ হারে বাড়িয়ে তা ৬০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। তাদের প্রস্তাব অনুযায়ী ২৯ আসন বা তার কম আসনের মিনিবাসের টোল ৩৬ শতাংশ হারে বেড়ে ৭৫০ টাকা হবে। বর্তমান এতে টোল ধরা হয় ৫৫০ টাকা। ৩০ আসন বা তার বেশি আসনের বড় বাসে এখন টোল নেওয়া হয় ৮০০ টাকা করে। ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশ হারে বাড়িয়ে তা করা হবে ১ হাজার ১০০ টাকা। ৫ টনের কম মিনি ট্রাকের টোল ৭৫০ টাকা, তা ৪০ শতাংশ বাড়িয়ে ১ হাজার ৫০ টাকা, ৫ থেকে ৮ টনের ট্রাকের টোল ১ হাজার টাকা থেকে ৩৫ শতাংশ বাড়িয়ে ১ হাজার ৩৫০ টাকা হবে। ৮ টনের বেশি ট্রাকের টোল ১ হাজার ২৫০ টাকা থেকে বেড়ে হবে ১ হাজার ৭০০ টাকা, বৃদ্ধির হার ৩৬ শতাংশ। মোটরসাইকেলের টোল বাড়বে সবচেয়ে বেশি ৬৭ শতাংশ। বর্তমানে একটি মোটরসাইকেলে টোল দিতে হয় ৩০ টাকা। তা বেড়ে হবে ৫০ টাকা।

বিশ্বব্যাংক, এডিবি বলেছে, বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর টোলের হার শতভাগ বাড়ানো না হলে সেতু কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও অন্যান্য চাহিদা মেটাতে ২০১৫ সালে ২৯৫ কোটি টাকা ঘাটতি হবে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের ব্যাপারে গত বছরের নভেম্বর ও গত মে মাসে বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকা ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের যৌথ প্রকল্প প্রস্তুতিকরণ পর্যালোচনা মিশন বাংলাদেশে এসেছিল। তখনই তারা বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোলের হার বাড়ানোর বিষয়টি পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের জন্য ঋণচুক্তির শর্তযুক্ত করেছিল। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণের ব্যয় হবে প্রায় ২ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার। উন্নয়ন সহযোগীরা দেবে ২২৭৬ দশমিক ৪০ মিলিয়ন ডলার। সরকার ঋণচুক্তির পাশাপাশি অক্টোবরেই ঠিকাদার নিয়োগ করে নির্মাণকাজ শুরু করতে চাচ্ছে। উন্নয়ন সহযোগীরা এতে রাজি হয়েছে। তবে তাদের শর্ত হচ্ছে, ঋণচুক্তির আগেই বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর টোলের হার বাড়াতে হবে। তাদের চাপের মুখে সেতু বিভাগ টোল বাড়ানোর প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠিয়েছে।

যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন সমকালকে বলেন, অক্টোবরের মধ্যেই ঋণচুক্তি স্বাক্ষর ও মূল সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হবে। এ জন্য প্রয়োজনীয় সব কাজ সম্পন্ন করা হচ্ছে। সেতুর নির্মাণকাজ ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করার কথা। তার প্রায় তিন মাস আগেই নির্মাণকাজ শেষ করে সেতু উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply