বিদ্যুত্ বিভ্রাটে হিমাগারে ৫ লাখ টন আলু নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা

বন্ধ থাকা পটেটো ফ্লেক্স শিল্প চালু, রফতানি সহায়তার দাবি
৩১৩টি হিমাগারে সংরক্ষিত ২৫ লাখ টন আলুর প্রায় ৫ লাখ টনই পুরোপুরি পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। বিদ্যুত্ বিভ্রাটের কারণে এরই মধ্যে রক্ষিত আলুর অর্ধেকেই পচন দেখা দিয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, গত বছর আলু সংরক্ষণের কয়েক মাসের মধ্যে ৩০/৩৫ ভাগ বাজারজাত হলেও, এ বছর এখন পর্যন্ত মাত্র ৫ থেকে ৬ শতাংশ আলু বাজারজাত হয়েছে। আলুর বাড়তি চাপ এবং বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে রীতিমত বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মেজর মো. জসীম উদ্দীন (অব.) গতকাল আমার দেশকে জানিয়েছেন, এ বছর দেশের ৩১৩টি হিমাগারে প্রায় ২৫ লাখ টন আলু সংরক্ষণ করা হয়। কিন্তু অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে ঘন ঘন বিদ্যুত্ বিভ্রাটের কারণে এরই মধ্যে অর্ধেক আলুতেই পচন দেখা দিয়েছে। এছাড়া গত বছর সংরক্ষণ মৌসুম শেষ হওয়ার কয়েক মাসের মধ্যেই যেখানে এক তৃতীয়াংশ আলু বাজারজাত হয়েছিল, এ বছর ৫ ভাগ আলুও বাজারজাত হয়নি। বাজারে খুচরা দামে প্রতি কেজি আলু ১৫/১৬ টাকা দরে বিক্রি হলেও, নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় কৃষকরা ৬/৭ টাকা দরে আলু বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। তিনি বলেন, গত বছর হিমাগার মালিকদের প্রবল বাধা সত্ত্বেও সরকার ভারত থেকে আলু আমদানি করে। এতে গত বছরও কৃষকরা লোকসান গুনেছেন। এ বছরও যদি তারা তাদের পুঁজি না উঠে তবে ভবিষ্যতে অনেকেই আলু চাষ বাদ দেবেন। তিনি জানান, বিদ্যুতের ঘন ঘন যাওয়া-আসায় আলু বীজও নষ্ট হচ্ছে। এটা রীতিমত আলু চাষীদের জন্য হুমকিস্বরূপ।
কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে, আলু রফতানি বাড়াতে এ খাতে নগদ সহায়তার পরিমাণ ২০ ভাগ থেকে বাড়িয়ে ৪০ ভাগ নির্ধারণের। এছাড়া দেশের বন্ধ থাকা পটেটো ফ্লেক্স শিল্পগুলো জরুরি ভিত্তিতে চালুর উদ্যোগ নেয়ার।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হিমাগারগুলো বর্তমানে দিনে মাত্র ৪/৫ ঘণ্টা বিদ্যুত্ সরবরাহ পাচ্ছে। বাকি সময় বিদ্যুত্ না থাকায় পচে যাচ্ছে কৃষকদের আলু ও আলুর বীজ। কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জানান, বিদ্যুত্ ছাড়া হিমাগার অচল থাকে। আলু সংরক্ষণের জন্য হিমাগারগুলোয় ৩৮০-৪৪০ ভোল্ট নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ সরবরাহ থাকা প্রয়োজন। কিন্তু মুন্সীগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় বর্তমানে চালু থাকা ৩১৩টি হিমাগার গত ৩/৪ মাস ধরে পর্যাপ্ত বিদ্যুত্ পাচ্ছে না। গড়ে এসব হিমাগারে দিনের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৪/৫ ঘণ্টা বিদ্যুত্ থাকে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, জেনারেটর দিয়ে হিমাগারে আলু সংরক্ষণ সম্ভব হচ্ছে না।

এ বিষয়ে সরকারের বিদ্যুত্, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ বিদ্যুত্ উন্নয়ন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এ বছর বিদ্যুতের অভাবে হিমাগারগুলোয় বেশিরভাগ আলু নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এতে বছর শেষে বাজারে আলুর সঙ্কট দেখা দেবে। বেড়ে যাবে দাম।

কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, সুষ্ঠুভাবে আলু সংরক্ষণের স্বার্থে উপযুক্ত ভোল্টেজে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ সরবরাহের। তা না হলে কৃষক, কোল্ডস্টোরেজ মালিক ও ব্যাংক কর্তৃপক্ষ চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

সৈয়দ মিজানুর রহমান

[ad#co-1]

Leave a Reply