স্ত্রী রেশমা ও কিলিং মিশনের সদস্য ফারুক গ্রেপ্তার

মুন্সীগঞ্জে প্রবাসী মোশারফ খুন
গ্রিস প্রবাসী গার্মেন্ট ব্যবসায়ী মোশারফ হোসেন হত্যার ১২ দিন পর মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ সোমবার কিলিং মিশনের সদস্য ফারুক ওরফে বগা ফারুককে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফারুক এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে পুলিশকে জানিয়েছে, সৎভাই বেলায়েতের সঙ্গে মোশারফের স্ত্রী রেশমার পরকীয়ার কারণেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। ফারুককে গ্রেপ্তারের পর হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ মোশারফের স্ত্রী রেশমা আক্তারকে ঢাকার যাত্রাবাড়ীর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে সদর থানায় নিয়ে আসে।

সদর থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলাম জানান, বিভিন্ন স্থানে অভিযানের পর এসআই ওবায়েদুল হক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সোমবার ভোরে ফারুককে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, কিলিং মিশনে ফারুক, বেলায়েত, টিটুসহ চারজন ছিল। মোশারফ গ্রিস থেকে দেশে ফেরার আগের দিন ৮ আগস্ট বেলায়েত ও রেশমা হত্যার পরিকল্পনা করে। ৯ আগস্ট মোশারফ দেশে এলে ঢাকা বিমানবন্দর এলাকায় তাঁকে হত্যার চেষ্টা চালিয়ে তারা ব্যর্থ হয়। ১০ আগস্ট সকালে মোশারফ মুন্সীগঞ্জে শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে গেলে দুপুরের দিকে একটি লাল ও একটি কালো রঙের মোটরসাইকেলে করে তারা চারজন যাত্রাবাড়ী থেকে রওনা হয়ে মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সামনে অবস্থান নেয়। বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে মোশারফ রিকশায় করে কলেজের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় তারা পিছু নেয় এবং বাসস্ট্যান্ডে রিকশা থেকে নামার পরপরই বেলায়েতের মোটরসাইকেলে থাকা পেশাদার খুনি টিটু খুব কাছ থেকে মোশারফের বুকের বাম পাশে একটি ও বাম পেটে পিস্তল দিয়ে দুটি গুলি করে। মোশারফ মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তারা কেওয়ারের রাস্তা দিয়ে সিপাহিপাড়ায় যায়। সদর থানার ওসি আরো জানান, বেলায়েত ছয় মাস আগে সৌদি আরব থেকে আসার পর তিন মাস ধরে মোশারফের স্ত্রী রেশমার সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। ঘটনার দিন মোশারফ মুন্সীগঞ্জে রওনা হলে রেশমাই মোবাইল ফোনে তা বেলায়েতকে জানিয়ে দেয় এবং ওই দিন সকাল থেকে মোবাইলে রেশমার সঙ্গে বেলায়েতের ১৬ বার কথা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত ফারুক জানায়, সে গুলি করেনি, তবে পিস্তল উঁচিয়ে আশপাশের লোকজনকে ভয় দেখিয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থেকে ১০ হাজার টাকা পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও কত টাকার চুক্তিতে তারা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তা জানায়নি ফারুক।

কালের কন্ঠ
——————————————————-
পরকীয়ার কারণেই খুন হন প্রবাসী মোশারফ

স্ত্রী রেশমা ও কিলার বগা ফারুক গ্রেফতার
সেতু ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ
স্ত্রী রেশমা ও সৎভাই বেলায়েতের পরকীয়ার জের ধরেই মুন্সীগঞ্জ শহরের লিচুতলাস্থ বাসস্ট্যান্ডে গ্রিস প্রবাসী গার্মেন্ট ব্যবসায়ী মো. মোশারফ হোসেন (৪০) খুন হন বলে পুলিশ ঘটনার ১৩ দিনের মাথায় ক্লু উদ্ধার করতে পেরেছে। গতকাল সোমবার গ্রিস প্রবাসী ব্যবসায়ী হত্যাকা-ে তার স্ত্রী ও কিলার ফারুক ওরফে বগা ফারুককে (৩২) গ্রেফতার করা হলে পুলিশ জেলা শহরের চাঞ্চল্যকর এ খুনের ক্লু উদ্ধারে সক্ষম হয়।

কিলিং মিশনে ভাড়াটে ২ খুনি অংশ নেয় বলেও পুলিশ নিশ্চিত হতে পেরেছে। কিলারদের সঙ্গে মোটরবাইকে কিলিং মিশনে আরো অংশ নেয় প্রবাসী ব্যবসায়ীর পরকীয়া প্রেমিক সৎভাই বেলায়েত ও অজ্ঞাত আরো এক যুবক। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার এসআই ওবায়দুল গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকার ২৪/বি উত্তর যাত্রাবাড়ীর বাসিন্দা গ্রিস প্রবাসী নিহত মোশারফের বাসভবন থেকে স্ত্রী রওশন আরা ওরফে রেশমাকে (২৫) গ্রেফতার করা হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কিলিং মিশনে অংশ নেয়া বগা ফারুককে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার মিজমিজি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রিস প্রবাসী ব্যবসায়ীর স্ত্রী রেশমার মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে দুদিন যাবৎ লাগাতার অভিযান চালিয়ে চাঞ্চল্যকর হত্যাকা-ের এই ২ নায়ককে পুলিশ হাতকড়া পরাতে সক্ষম হয়। গ্রেফতারকৃতদের সদর থানা হেফাজতে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গ্রেফতারকৃত বগা ফারুক নারায়ণগঞ্জের আদমজীর মনু মিয়ার ছেলে। সে শানারপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিল। কিলার ফারুক ওরফে বগা ফারুক একজন ঠা-া মাথার খুনি। গতকাল বেলা ১২টার দিকে তাকে সদর থানা হাজতখানায় বেঘোরে ঘুমাতে দেখা গেছে।

নিহত শিল্পপতির স্ত্রী রেশমা যা বললেন
নিহত গ্রিস প্রবাসীর স্ত্রী রেশমা বলেছেন, কারো কৃতকর্মের জন্য কেউ খুন হলে আমার কি করার আছে। বেলায়েতের সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা অকপটে স্বীকার করলেন রেশমা। তবে খুনের বিষয়ে সে কিছু জানে না বলে জানায়। গতকাল বেলা ১২টার দিকে থানা হাজতে আলাপকালে এসব কথা বলেন গ্রেফতারকৃত রেশমা। তিনি বলেন, আমার স্বামীকে কারা মেরেছে তাও আমি জানি না।

কিলার ফারুক যা বলছে
১০ আগস্ট বিকাল ৪টার দিকে মোটরবাইকযোগে ভাড়াটে দুই কিলার মুন্সীগঞ্জ শহরে আসে। বেলায়েতের কথামতো শহরের পাঁচঘরিয়াকান্দি এলাকার গ্রিস প্রবাসীর শ্বশুরালয়ের বাড়ির কাছে সরকারি হরগঙ্গা কলেজের পেছনের সড়কে অবস্থান গ্রহণ করে তারা। কিলিং মিশনের একটি মোটরবাইক চালিয়েছে সৎভাই বেলায়েত নিজেই। তারই মোটরবাইকে থাকা ভাড়াটে কিলার যে কিনা গুলি ছোড়ে গ্রিস প্রবাসী মোশারফকে। গ্রেফতারকৃত বগা ফারুক অপর মোটরবাইকে চড়ে অংশ নেয় কিলিং মিশনে। সে গার্মেন্ট ব্যবসায়ী গুলি খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে আশপাশের লোকজন জড়ো হতে থাকলে রিভলভার উঁচিয়ে গুলি ছুড়তে থাকে। ফারুকের মোটরবাইক চালায় অজ্ঞাত এক যুবক। কিলিং মিশন সেরে তারা ২ মোটরসাইকেলযোগে আদালতপাড়ার সামন দিয়ে সাতানিখিল তেঁতুলতলা মাজার হয়ে সিপাহিপাড়া গিয়ে থামে। মুক্তারপুর ব্রিজে চেক হতে পারে এ সন্দেহে কিলিং মিশনে অংশ নেয়া বগা ফারুক ও অপর কিলার মোটরসাইকেল থেকে নেমে গেলে নিহতের সৎভাই বেলায়েত ও অপর ১ জন মোটরসাইকেলযোগে ঢাকা চলে যায়। পরে তারা সিপাহিপাড়া থেকে বাসে করে নিরাপদে ঢাকা যায়। গতকাল মুন্সীগঞ্জ থানা হাজতে পুলিশের জিঞ্জাসাবাদে এসব তথ্য জানিয়েছে বগা ফারুক। বগা ফারুক জানায়, হত্যাকা- শেষে বেলায়েত চুক্তি মোতাবেক ১০ হাজার টাকা দেয়। বাকি টাকা পরে দেবে বলে জানায়। তবে ফারুক কিলিং মিশনে অংশ নেয়া বেলায়েতের নাম ছাড়া আর কারো পরিচয় দেয়নি বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম জানান, নিহত মোশারফের খুনিদের গ্রেফতার করতে আমরা খুব তৎপর ছিলাম। তদন্তের স্বার্থেই অনেক কিছু গোপন রাখতে হচ্ছে। বাকিদের খুব শীঘ্রই গ্রেফতার করা হবে। মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরেই এদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া রেশমার সঙ্গে দেবর বেলায়েতের সম্পর্ক রয়েছে। কললিস্টে দেখা যায় প্রতিদিন রাতে রেশমার সঙ্গে বেলায়েতের ঘণ্টার পর ঘণ্টা কথা হতো। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এতে আরো অনেক তথ্য পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।

১০ আগস্ট বিকালে মুন্সীগঞ্জ শহরের লিচুতলাস্থ বাসস্ট্যান্ডে মোটরবাইক আরোহী গুলিতে খুন হন ওই ব্যবসায়ী। তিনি ২৪/বি উত্তর যাত্রাবাড়ীর আমির হোসেনের ছেলে। ৮ বছর আগে তিনি মুন্সীগঞ্জ শহরের পাঁচঘরিয়াকান্দি এলাকার মো. হোসেন সরকারের মেয়ে রওশন আরাকে বিয়ে করেন। রেশমা-মোশারফ দম্পতির রেজাউল ও আমিনা নামে দুসন্তান রয়েছে। নিহতের মা হাজেরা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় ৪ মোটর আরোহীকে আসামি করে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় হত্যা মামলা করেন।

ডেসটিনি

—————————————————-

স্ত্রীর পরকীয়ার কারণেই মুন্সীগঞ্জে গ্রিস প্রবাসী মোশারফ খুন

গ্রিস প্রবাসী গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মোশারফ হোসেন হত্যার ১২ দিন পর সদর থানা পুলিশ সোমবার হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন করেছে। সৎ ভাই বেলায়েতের সঙ্গে স্ত্রী রেশমার পরকীয়ার কারণেই মোশারফ খুন হয়েছেন বলে পুলিশ জানায়। বেলায়েত পেশাদার খুনি ভাড়া করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটায়। কিলিং মিশনের সদস্য ফারুক ওরফে বগা ফারুককে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি এলাকা থেকে সোমবার গ্রেফতারের পর তার কাছ থেকে এ তথ্য বের হয়ে আসে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকা সন্দেহে পুলিশ মোশারফের স্ত্রী রেশমা আক্তারকে (২৪) সোমবার ঢাকার যাত্রাবাড়ীর বাসা থেকে গ্রেফতার করে সদর থানায় নিয়ে আসে। বেলায়েত (২৩) পলাতক রয়েছে। মোশারফের মা মামলার বাদী হাজেরা বেগম পরকীয়ার সঙ্গে সম্পত্তি আÍসাতের বিষয়টি জড়িত বলে মনে করেন। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শহীদুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশের একাধিক টিম হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন এবং আসামিদের গ্রেফতারে তৎপরতা চালায়। বিভিন্ন স্থানে অভিযানের পর এসআই ওবায়েদুল হক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সোমবার ভোরে ফারুককে আটক করেন। ওসি ফারুক জানান, কিলিং মিশনে ফারুক-বেলায়েতসহ চারজন ছিল। ৮ আগস্ট মোশারফ গ্রিস থেকে আসার আগের দিন বেলায়েত ও রেশমা হত্যার পরিকল্পনা করে। ৯ আগস্ট মোশারফ দেশে এলে ঢাকায় একবার হত্যার চেষ্টা চালিয়ে তারা ব্যর্থ হয়। ১০ আগস্ট সকালে মোশারফ মুন্সীগঞ্জে শ্বশুরবাড়িতে এলে দুপুরের দিকে একটি লাল ও একটি কালো রঙের মোটরসাইকেলে করে চারজন যাত্রাবাড়ী থেকে রওনা হয়ে মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সমনে অবস্থান নেয়। বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে মোশারফ রিকশায় করে কলেজের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় হত্যাকারীরা পিছু নেয় এবং বাসস্ট্যান্ডে রিকশা থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে বেলায়েতের মোটরসাইকেলে থাকা পেশাদার খুনি টিটু খুব কাছ থেকে বাম পাশের বুকে একটি এবং বাম পেটে পিস্তল দিয়ে দুটি গুলি করে। মোশারফ মাটিতে লুটিয়ে পড়লে হত্যকারীরা কেওয়ারের রাস্তা দিয়ে সিপাহিপাড়া যায়। সেখান থেকে অস্ত্রধারী দু’জন মুক্তারপুর এসে বাসে করে ঢাকা যায়। বাকি দু’জন মোটরসাইকেল করে চলে যায়। পুলিশ জানায়, বেলায়েত ৬ মাস আগে সৌদি আরব থেকে আসার পর তিন মাস ধরে মোশারফের স্ত্রী রেশমার সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। সদর থানার ওসি আরও জানান, ঘটনার দিন মোশারফ মুন্সীগঞ্জে রওনা হলে রেশমাই মোবাইলে তা বেলায়েতকে জানিয়ে দেয় এবং হত্যাকাণ্ডের দিন সকাল থেকে রেশমার সঙ্গে বেলায়েতের ১৬ বার মোবাইলে কথা হয়েছে। রেশমার বড় মেয়ে আমেনাকে তার দাদীর কাছে এবং দুই বছরের ছেলে রেদোয়ানকে তার মার সঙ্গে রাখা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ফারুক জানায়, সে গুলি করেনি তবে পিস্তল উঁচিয়ে আশপাশের লোকজনকে ভয় দেখিয়েছে। সে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকায় ১০ হাজার টাকা পেয়েছে এবং আরও পাবে বলে জানায়। তবে কত টাকা চুক্তি হয়েছে তা সে বলতে পারেনি। এদিকে মামলার বাদী মোশারফের মা হাজেরা বেগম বিলাপ করতে করতে বলেন, আমার ছেলের সম্পদ আÍসাৎ করতে বেলায়েত তার মা জহুরা বেগম, বোন শাহনাজ বেগম বেবী, ভাই দেলোয়ার হোসেন এবং রেশমা বেগম আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। ছেলের সংসার তছনছ করে ফুটফুটে দুই সন্তান আমেনা (৬) ও রেদোয়ানকে (২) এতিম করে দিয়েছে। আমি হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

যুগান্তর

[ad#co-1]

Leave a Reply