স্ত্রীর ২দিন এবং ভাড়াটে খুনি ৪ দিনের রিমান্ডে

মুন্সিগঞ্জে প্রবাসী শিল্পপতি খুন
৩ লাখ টাকার চুক্তিতে খুনটি সংঘটিত হয়
প্রবাসী শিল্পপতি মোশারফ হোসেন হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত তার স্ত্রী রেশমা আক্তারকে(২৪) আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। একই সাথে ভাড়াতে খুনি বগা ফারুককে ৪দিনের পুলিশ রিমান্ডে পাঠিয়েছে। পুলিশের ১০দিন করে রিমান্ড আবেদনের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রবিউল আলম এই রিমান্ড আদেশ দেন।

পিপি এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন জানিয়েছেন, রিমান্ড আবেদন নিয়ে আদালতে তুমুল যুক্তিতর্কের পর এই আদেশ দেয়। এদিকে এই মামলাটির বাদী নিহত মোশারফ হোসেনের মা। থানায় মামলার পাশাপাশি আদালতে আরেকটি এজাহার দাখিল করেছেন। এই এজাহারে ছেলে বউ রেশমা আক্তার এবং পরকিয়ার প্রেমিক সৎভাই ছেলে বেলায়েত হোসেন ছাড়াও দেলোয়ার হোসেন, শাহানাজ ও রুবেল নামের আরও ৩ জনকে আসামী করা হয়েছে। তবে এই মামলার ব্যাপারে আদালত এখনও কোন সিদ্ধান্ত দেয়নি বলে পিপি এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন জানান।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম রাতে জানান, গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এতে কিলিং মিশনের অন্যতম কিলার বগা ফারুক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। এই মিশনে সৎভাই বেলায়েতও অংশ নেয়। দুই মোটরবাইকআরোহী বাকী ২ ঘাতকের নাম পুলিশকে জানিয়েছে ফারুক। তিন লাখ টাকার চুক্তিতে এই হত্যাকান্ডটি সম্পন্ন করে ভাড়াটে খুনিরা।

গত ১০ আগাস্ট মুন্সিগঞ্জ শহরে লিচুতলা সংলগ্ন নতুন বাসস্ট্যান্ডে প্রকাশ্যে দিবালোকে  গুলিতে  নিহত হয় মোশারফ হোসেন (৪০)।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
২৪আগস্ট২০১০

বিক্রমপুর বার্তা

————————————————–

মুন্সীগঞ্জে যেভাবে হত্যা করা হয় প্রবাসী মোশারফকে

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে: প্রবাসী মোশারফকে হত্যা করা হয়েছে পরিকল্পিতভাবে। সৎ ভাই বেলায়েত ও মোশরফের স্ত্রী রেশমার পরকীয়া প্রেমই এ ঘটনার নেপথ্যে কাজ করেছে। বেলায়েত ও রেশমা গত ৮ আগস্ট মোশরফকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এরপরই বেলায়েত ভাড়াটে খুনিদের সঙ্গে চুক্তি করে। গত সোমবার মুন্সীগঞ্জ পুলিশের হাতে গ্রেফতার ঘাতক ফারুক ও নিহত মোশারফের স্ত্রী রেশমা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এসব কথা বলেছেন। তারা আরো জানান, ৯ আগস্ট ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকায় মোশারফকে হত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত হলেও ওইদিন মোশরফ বাসা থেকে বের না হওয়ায় তা ভণ্ডুল হয়ে যায়। পরদিন ১০ আগস্ট মোশারফ মুন্সীগঞ্জে গেলে বেলায়েতের নেতৃত্বে ৪ খুনি মোটরসাইকেলে সেখানে যায় এবং সরকারি হরগঙ্গা কলেজ এলাকায় অবস্থান নেয়। বিকলে ঢাকায় ফেরার পথে মুন্সীগঞ্জ শহরের দক্ষিণ কোটগাঁওস্থ বাসস্ট্যান্ডে কাউন্টারের সামনে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হয় মোশারফকে।

আমাদের সময়

[ad#co-1]

Leave a Reply