মুন্সিগঞ্জের মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে এবার ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের দুর্ভোগ বাড়বে!

ঈদের আর মাত্র ১৪ দিন বাকী। এখনই ঘরমুখো মানুষের নাড়ির টানে ঘরে ফেরার যাত্রা শুরু না হলেও আর ক’টা দিন পরই মুন্সিগঞ্জের মাওয়াঘাটে বাড়ি ফেরাদের মিছিল নামবে। আর ঈদের সামনে যাত্রীদের ওই ঘরে ফেরার মিছিলে এবার মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে দুর্ভোগ বাড়বে বলে আশংকা করা হচ্ছে। সেই বিড়ম্বনার আশংকার নাম ফেরী, লঞ্চ আর সীবোট। মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে এবার পুরাতন ও লক্কর-ঝক্কর মার্কা ফেরী দিয়ে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। এছাড়া নৌরুটের পদ্মায় চ্যানেলে অসংখ্য ডুবোচর ভেসে উঠায়- যাত্রী দুর্ভোগের আশংকার অন্যতম প্রধান কারন। ফেরীর অভাব, সচল ফেরীর সংখ্যা নেহাত কম থাকা ও পদ্মায় নৌ-চ্যানেলে ডুবোচর-এই তিন কারনে এবার দক্ষিনবঙ্গের ২৩ জেলার মানুষের ঘরে ফেরার মিছিলে ছন্দ পতন ঘটবে বলে এমন আশংকা প্রকাশ করেছেন মুন্সিগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার মো: শফিকুল ইসলাম।

অপরদিকে, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে পদ্মায় চলাচলরত শতাধিক লঞ্চের ফিটনেস নেই।
লঞ্চযাত্রীদের লঞ্চে উঠর জন্য উন্নত পল্টুনের নেই। আর যা-ই আছে যাত্রী উঠানামার জন্য-তাও অপ্রতুল। ফলে এক লঞ্চের যাত্রী অপর আরেক লঞ্চের সাহায্য নিয়ে উঠছেন যাত্রীর গন্তব্যের লঞ্চে। আবার সঠিক মতো পল্টুনে লঞ্চ নোঙর করা যাচ্ছে না । অন্যদিকে, গুরুত্বপূর্ণ এই নৌরুটের সীবোট চালকদের ঈদের সামনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ে যাত্রীদের নানা ভৎসনার ঘটনাও রয়েছে অতীতে। ফেরী, লঞ্চ ও সীবোটের এমনই যোগাযোগ ব্যবস্থার নানা বিড়ম্বনা এবার ঈদে দক্ষিনবঙ্গের হাজারো মানুষকে ভোগাবে বলে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

মুন্সিগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মো: শফিকুল ইসলাম বলেন, সব সময়ই জোরদার নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে। যাত্রী হয়রানী রোধ, ঈদের সামনে পরিবহনে ও নৌরুটে চাঁদাবাজি ঠেকাতে নৌরুটে ও ডাঙ্গায় পুলিশ বাহিনী নামানো হবে। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরপত্তা দিতে টহলে নৌরুটে থাকবে নৌ-পুলিশ। প্রয়োজেন স্পীডবোটে নৌরুট চষে বেড়াবে। স্পীডবোট বরাদ্ধেরও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, নৌরুটে পদ্মায় ড্রেজিংয়ের ব্যবস্থা নেই। বাড়তি ফেরীর আনার উদ্যোগ নেই। সর্বোপরি এসব কারনে এবার ঈদে ঘরমুখো যাত্রীর দুর্ভোগ হতে পারে। কেননা, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ক্রস চ্যানেলে মাত্র সোয়া ঘন্টায় ফেরী চলাচলে নৌরুট পাড়ি দেয়া সম্ভব হতো। কিন্তু ডুবোচরের কারনে ক্রস চ্যানেল বন্ধ হয়ে পড়ায় এখন ফেরী অনেক দুর পথ ঘুরে যেতে হচ্ছে। এতে সময় লাগছে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘন্টা। একটি রো-রো ফেরীতে ২৫ থেকে ৩০ টি যানবাহন ধারন করতে পারে। ছোট ফেরীতে ধারন করতে পারে মাত্র ১০ থেকে ১৫ টি যানবাহন। এতে ঈদে যনাবাহনের বাড়তি চাঁপ সামলাতে বাড়তি কোন ফেরীর ব্যবস্থা নেই। আবার সোয়া ঘন্টার জায়গায় ডুবোচরের কারনে সময় লাগছে সাড়ে ৩ ঘন্টা- যার জন্য এবার ঈদে ঘরে ফেরায় যাত্রী ভোগান্তির আশংকা প্রকাশ করেছেন মুন্সিগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার।

অন্যদিকে, গত ১৫ দিনের ব্যবধানে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই একাধিক ফেরী ডুবোচরে আটকা পড়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া ফেরীতে ফাটল সৃষ্টি হয়ে মাঝ পদ্মায় যাত্রী ও বাস-মিনিবাস নিয়ে ডুবতে বসারও ঘটনা ঘটেছে এই নৌরুটে। এই নৌরুটে ২ টি রো-রো ফেরীসহ মোট ১০ টি ফেরী দিয়েই যাত্রী ও যানবাহন পারাপার চলছে। যা প্রয়োজেনর তুলনায় অপর্যাপ্ত বলে জানিয়েছেন খোদ বিআইডব্লিউটিসি।

নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ ডাঙ্গায় ব্যস্ত …….
দেশের দক্ষিনবঙ্গের ২৩ জেলার সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম মাওয়া-কাওড়কান্দি নৌ-রুটে যাত্রীদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ পানিতেই নামেন না। নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ সর্বদা থাকেন ডাঙ্গায়। তাদের কর্মকান্ড মাওয়া ফেরীঘাটের ডাঙ্গায় সংগঠিত অপরাধ নিয়েই। নাম যা-ই হোক, কাজ করেন ডাঙ্গায়। কাগজে পত্রে নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ হলেও তাদের দেখা যায় না নৌরুটে। কেবল মন্ত্রী-এমপি তথা ভি-ভিআইপিদের যাতায়াতকালীন সময়ে তাদের নৌরুটে দেখা মিলে- এই অভিযোগ স্থানীয় একাধিক সূত্রের। এদিকে, ঈদের আর মাত্র ১৪ দিন বাকী থাকলেও ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদে স্বজনদের কাছে ফেরার জন্য নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ নৌরুটে নেই। পানিতে না নেমে এখনো ডাঙ্গায় বসেই চলছে মাওয়া নৌ-ফাঁড়ি পুলিশের কর্মকান্ড। তবে রাতের নৌরুটে মাওয়াঘাটের কাছে ধারেই পুলিশের টহল টিমকে বিচরন করতে দেখা যায়। ফলে ডাঙ্গার কর্মকান্ড পরিচালনা নিয়েই ব্যস্ত মাওয়া নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ। এতে যাত্রীদের মন্তব্য- নামেই শুধু নৌ-ফাঁড়ি পুলিশ, কাজ করেন ডাঙ্গায়। অপরপক্ষে, নৌ-ফাঁড়ি পুলিশের জন্য নেই কোন স্পীডবোট। নৌরুটে যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে নৌ-ফাঁড়ি পুলিশের বাহন শুধুমাত্র ইঞ্জিন চালিত একটি ট্রলার। প্রবাস ফেরত মোহাম্মদ মারুফ ঈদের সামনে দক্ষিনবঙ্গের নিজ বাড়িতে ফেরার পথে মাওয়ায় জানান, দীর্ঘদিন পর দেশে ফিরেছি। গ্রামের বাড়ি যাচ্ছি। এবার ঈদ করবো গ্রামের বাড়িতে সকলের সঙ্গে। কিন্তু লাগেজ ও মালামাল নিয়ে মাওয়াঘাটে বিড়ম্বনার শেষ নেই। কত না জক্কি জামেলা। কই একজন পুলিশ সদস্যকেও দেখলাম না। এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি নৌরুটে নৌ-পুলিশের কি কোন কর্মকান্ড নেই বলে এই যাত্রী বিস্ময় প্রকাশ করেন।

মাওয়া নৌ-ফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ তারিফুজ্জামান মিয়া জানান, ঈদে নাড়ির টানে ঘরে ফেরা যাত্রীদের জন্য নৌরুটে নিরাপত্তা ব্যবস্থার সকল প্রকার নির্দেশনা দিয়ে থাকে জেলা পুলিশ সুপার। যাত্রীদের নিরাপত্তা বিধানে জেলা পুলিশ সুপারের দপ্তরের এখনো পর্যন্ত কোন নির্দেশ দেয়া হয়নি নৌ-ফাঁড়িকে। কাজেই ঈদে ঘুরমুখো যাত্রীদের নিরাপত্তা বিধানে আলাদা কোন ব্যবস্থা আপাতত নেই মাওয়া ফাঁড়ি পুলিশের। তবে শিগগির নৌ-ফাঁড়ি পুলিশকে নিয়ে পুলিশ সুপারের একটি গুরুত্বপূর্ণ সভা হবে। সেই সভায় দক্ষিনবঙ্গের যাত্রীদের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে। নৌ-পুলিশ থাকেন ডাঙ্গায়, কর্মকান্ড তাদের ডাঙ্গায়-এমন অভিযোগের জবাবে ফাঁড়ি ইনচার্জ বলেন, সরকার যা চাইবে, আমরা তাই করবো। নৌ-পুলিশের শতভাগ কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য যা কিছু দরকার, তার কোন কিছুই নেই মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের মাওয়া নৌ-ফাঁড়ির।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
৩১ আগস্ট ২০১০

[ad#co-1]

Leave a Reply