কোন গণতান্ত্রিক সরকারই ঢাকাকে গুরুত্ব দেয়নি

সাদেক হোসেন খোকা
ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকা বললেন, আমি আশাবাদী মানুষ। নিরাশ নই। বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন এ ঢাকা থেকেই হয়। রাজধানী হওয়ায় দেশের সব কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দু এটি। অথচ এ শহর যেমনটা আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মতভাবে পরিচালনা দরকার ছিল, তেমনটা হচ্ছে না। আমি আশাবাদী একদিন তা হবে। মানবজমিন-এর সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে মেয়র খোকা এ কথা বলেন। আগামী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়ে তিনি বললেন- দলীয় সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করছে নির্বাচন করা।

আর দলের সিদ্ধান্ত আমাকে মেনে চলতে হবে। দল কাকে কিভাবে কোথায় ব্যবহার করবে সেটা দলের বিষয়। সাদেক হোসেন খোকা বলেন, ডিসিসিকে সব সময় দলীয় স্বার্থের ঊর্ধ্বে রেখে কাজ করেছি। স্থানীয় উন্নয়নের ক্ষেত্রে সমবণ্টন নীতিমালা রক্ষায় সচেষ্ট ছিলাম সব সময়ই। করপোরেশন পরিচালনার ক্ষেত্রে সব কাউন্সিলরকে সমান মর্যাদা দিতে বিন্দুমাত্র কার্পণ্য করিনি। প্রথমে বিএনপি, পরে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও বর্তমানে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের আমলে মেয়র হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে মেয়র খোকা বলেন, কাজ করতে গিয়ে স্থানীয় সরকারের ধারণা সব সময় মেনে চলার চেষ্টা করেছি। আমার মনে হয় এটা মানার কারণেই কোন সরকারের আমলে কাজ করতে খুব অসুবিধা হয়নি। কাজের গতি হয়তো ওঠানামা করেছে। তবে সেই অর্থে ব্রেক পয়েন্টে চলে যেতে হয়নি। আমার রাজনৈতিক পরিচয় থাকলেও করপোরেশনের ভেতরে যখন প্রবেশ করি, তখন স্থানীয় সরকারের ধারা অব্যাহত রাখতে সচেষ্ট হই। সিটি করপোরেশনকে সব সময় দলীয় বিষয়ের ঊর্ধ্বে রেখে কাজ করেছি। বিএনপি সরকারের আমলে যখন মেয়রের দায়িত্ব পালন করি তখন আওয়ামী লীগের প্রায় ২২ থেকে ২৩ জন ওয়ার্ড কমিশনার কাজ করেছেন। তখন দেখিনি আমার কোন সিদ্ধান্তের বিরোধিতা কিংবা বোর্ড মিটিংয়ে তারা হইচই করেছেন। একমাত্র কারণ কারও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি ব্যাহত হয় এমন কাজ করপোরেশনে করিনি। ফলে বিএনপি সরকারের আমলে বাইরে বিরোধী দলে থাকা আওয়ামী লীগের তীব্র আন্দোলন মোকাবিলা করেছি।

কিন্তু ওই আন্দোলনের বিন্দুমাত্র আঁচ বা প্রভাব সিটি করপোরেশনে লাগেনি। একই ভাবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার যখন ক্ষমতায় আসে তখন কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে যতটুকু সম্ভব সম্পর্ক বজায় রেখে কাজ করার চেষ্টা করেছি। সাদেক হোসেন খোকা বলেন, অনেক ক্ষেত্রে তাদের অনেক বাড়াবাড়ি ছিল। ওই সময় অনেক কউন্সিলরকে নিগৃহীত করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অনেকে দেশের বাইরে চলে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। এসব সত্ত্বেও কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আমাদের সমন্বয় করে চলতে সমস্যা হয়নি। কারণ ডিসিসি’র নাগরিকদের দুর্ভোগ লাঘবে অনেক কিছু মেনে নিয়ে কাজ করতে হয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলেও সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করছি। রাজধানীর তীব্র যানজট, রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িসহ নানা দুর্ভোগ প্রসঙ্গে সাদেক হোসেন খোকা বলেন, ঢাকায় বর্তমানে যে সমস্যার মধ্যে আমরা আছি তা হঠাৎ করে দু’ এক বছরের মধ্যে সৃষ্টি হয়নি। এটা দীর্ঘ পরিকল্পনার অভাবের ফল। এর মধ্যে বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়েরও অভাব রয়েছে। বিশেষ করে ঢাকার পরিবেশ, পরিধি ও নাগরিকের স্বাচ্ছন্দ্য বিধানের জন্য রাজউক পরিকল্পনামাফিক কাজ করতে পারেনি। এখন সব কিছু জমাট বেঁধে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এসব নিয়ে সরকারকে বিজ্ঞানসম্মত সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। মেয়র বলেন, ব্যক্তিগত জীবনে আমি আশাবাদী মানুষ।

বর্তমান অবস্থায় একেবারে নিরাশ না হয়ে কিভাবে সমাধান করা যায় সে ব্যাপারে সচেষ্ট আছি। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত সব কিছু বিজ্ঞানসম্মতভাবে সমাধান করা। সরকারের উচিত সিটি করপোরেশন যেসব ক্ষেত্রে সাফল্য দেখাতে পারছে না তা খতিয়ে দেখা। পাশাপাশি করপোরেশনকে কিভাবে আরও শক্তিশালী করা যায় সেদিকেও গুরুত্ব দেয়া। তিনি বলেন, ঢাকা রাজধানী হওয়ায় দেশের সব কর্মকাণ্ড এখান থেকে পরিচালিত হয়। প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা এখানে অবস্থান করেন। এককেন্দ্রিক পার্লামেন্ট হওয়ায় সব এমপির বিচরণ রাজধানীতে। দাতা সংস্থা, বিদেশী দূতাবাসসহ আরও গুরুত্বপূর্ণ সব অফিস এখানে অবস্থিত। প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়ন এখান থেকেই রচিত হয়। সবকিছু মিলিয়ে ঢাকাকে অন্যান্য সিটি করপোরেশনের আদলে চিন্তা না করে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেয়া উচিত। তা না হলে এখানে যে বিশাল কর্মযজ্ঞ হয় তাতে সব নাগরিকের সুবিধা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। মেয়র বলেন, গত ২০ বছরে কোন গণতান্ত্রিক সরকারই ঢাকার উন্নয়নকে প্রয়োজনীয় গুরুত্ব দেয়নি। বিশেষ করে অর্থমন্ত্রীরা বাজেট প্রণয়নের সময় এ বিষয়টি মোটেই লক্ষ্য রাখেননি। ফুটপাত দখল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাস্তাঘাট, ফুটপাত জনগণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখা আমাদের দায়িত্ব। অথচ ফুটপাত দখল হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু করপোরেশন কিছুই করতে পারছে না। কারণ আমাদের কাছে কোন বাহিনী নেই। বিষয়গুলো একাধিকবার সরকারকে বলা হয়েছে। সরকার একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী দিতে পারে অথবা করপোরেশনকেই নগর পুলিশ গঠনের ক্ষমতা দিতে পারে।

আমার মনে হয়, পরিস্থিতি বিবেচনায় এখনই এসব পদক্ষেপ নেয়ার সময় হয়েছে। ডিসিসি’র প্রতিবন্ধকতা প্রসঙ্গে খোকা বলেন, ডিসিসিকে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সংস্থা ও মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করতে হয়। আমাদের অথরিটিও খুব স্বাধীন নয়। ইচ্ছা করলেই যা কিছু করা সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে আমাদের অনেক সাফল্য ম্লান হয়ে যাচ্ছে। এজন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সিটি করপোরেশনের আদলে আমাদের করপোরেশনকেও গড়ে তুলতে হবে। তাহলে ডিসিসি নাগরিকদের আশা-আকাঙ্ক্ষার বাস্তব রূপ দিতে পারবে। ডিসিসি’র মধ্যে ওয়াসা, রাজউক, বিদ্যুৎ আলাদাভাবে কাজ করে। এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ডিসিসির সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। এ কারণে নাগরিকদের দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গে বিরোধ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ডিসিসি’র কাজের মূল্যায়ন করবে মন্ত্রণালয়। সেখান থেকে নেতিবাচক কোন কিছু পাচ্ছি না। সংসদীয় কমিটি অসহযোগিতার যে অভিযোগ এনেছে তা সঠিক নয়। তারা একবার এখানে এসে বললো ডিসিসি’র অনিয়ম ও দুর্নীতি তদন্তে করপোরেশনে অফিস চায়।

কোন সরকারের আমলে সংসদীয় কমিটি কোন অফিস বা কার্যালয়ে অফিস স্থাপন করে তদন্ত করেছে তার নজির নেই। আমাদের দুর্নীতি বা অব্যবস্থাপনা দেখতে দুর্নীতি দমন কমিশন রয়েছে। তারা স্বাধীনভাবে কাজ করছে। এর আগেও তারা সব কিছু খতিয়ে দেখেছে। সংসদীয় কমিটির এ ধরনের কাজ করার কোন এখতিয়ারই নেই। বিষয়টি আমরা স্পিকার ও সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যানকে মনে করিয়ে দিয়েছি। ওয়ার্ড কমিশনার চৌধুরী আলম নিখোঁজ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থেকে শুরু করে প্রশাসনের সব বাহিনীর কাছে তাকে উদ্ধারে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ করেছি। মেয়র হিসেবে বলবো এভাবে একজন কাউন্সিলর নিখোঁজ হয়ে যাওয়া দুর্ভাগ্যজনক। এটা আমাকে দারুণভাবে পীড়া দিচ্ছে। কেউ অন্যায় করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। একটা গণতান্ত্রিক সরকারের আমলে একজন কাউন্সিলর সশরীরে নিখোঁজ হয়ে যাবেন তা মেনে নেয়া খুব কঠিন। তাছাড়া, সরকারের ভাবমূর্তির জন্যও এটা মর্যাদার বিষয় নয়।

[ad#co-1]

Leave a Reply