প্রেসক্লাব সভাপতির বিরুদ্ধে চাঁদা দাবীর অভিযোগ

মুন্সিগঞ্জে মামলা রুজুর পর তদন্তের কাজ শুরু, পুলিশের মধ্যে দু’ধরনের বক্তব্য
গজারিয়া উপজেলার প্রেসক্লাবের একাংশের সভাপতি মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হওয়ার একদিন পর বুধবার দুপুরে পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমেছে। গজারিয়া থানার এসআই হাফেজউদ্দিন দুপুর ২ টার দিকে জেলার গজারিয়া উপজেলার পুরান বাউশিয়া গ্রামে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন চাঁদা দাবীর সত্যতা যাচাইয়ে। তিনি প্রকৃত ঘটনা খতিয়ে দেখছেন। অন্যদিকে, গজারিয়া প্রেসক্লাবের একাংশের সভাপতিসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা রুজুর ঘটনায় গজারিয়া থানার দু’ই পুলিশ কর্মকর্তার দু’ধরনের বক্তব্য পাওয়া গেছে। থানার ওসি শহিদুল ইসলাম ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হাফেজউদ্দিনের দু’ধরনের বক্তব্য স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

এসআই হাফেজউদ্দিন জানান, পুরান বাউশিয়া গ্রামের অবসর প্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা এনামুল হকের দায়ের করা মামলার তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ। বাদীর কাছে কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবী করার বিষয়টি এখনো পরিস্কার নয়। তদন্ত ছাড়াই থানায় মামলা রুজু হয়েছে। আদৌ ঘটনাটি কতটা সত্যি তা নিয়েও পুলিশ সথেষ্ট সন্দিহান। তথাপি মামলা রুজুর প্রসঙ্গে থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বুধবার দুপুরে বলেন,অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা মিলেছে।

তারপরই মামলা রুজু করা হয়েছে। উল্লেখ্য, সোমবার দিবাগত রাতে গজারিয়া উপজেলার পুরান বাউশিয়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা এনামুল হক বাদী হয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবীর অভিযোগে গজারিয়া প্রেসক্লাবের একাংশের সভাপতি জসিমসহ ৫ জনকে আসামী করে গজারিয়া থানায় ওই মামলা দায়ের করেন।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০

[ad#co-1]

Leave a Reply