সিরাজদিখান ধলেশ্বরী নদীতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহা উৎসব চলছে

সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত
মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান ধলেশ্বরী নদীথেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহা উৎসব চলছে। বালু দস্যুরা ২৫-৩০টি ড্রেজার বসিয়ে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এলাকাবাসী জানায়, সিরাজদিখান থানাধীন সৈয়দপুর বরাবর ধলেশ্বরী নদীতে বালুদস্যু আসকর, আমবর আলী, মোতালেব, মজিদ, আরজ, আলী হোসেন ২০-২৫টি ড্রেজার বসিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। ২০-২৫টি ড্রেজারে একযোগে বালু উত্তোলনের ফলে ধলেশ্বরী নদীর দু’তীরের জনবসতী ও ফসলী জমি ভেংগে যাচ্ছে। যার ফলে হাজার হাজার জনবসতী নদী গর্ভে বিলিন হওয়ার উপক্রম হচ্ছে। খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের রয়ালিটি ছাড়াই বালু দস্যুরা প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার বালু অবৈধ ভাবে উত্তোলন করছে। এতে সরকার বিপুল অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বালু দস্যুদের ক্ষমতার শিকড় অনেক গভীরে। তাই গ্রামবাসী প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না। প্রতিবাদ করলে বালু দস্যুরা গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে থাকে। ধলেশ্বরী নদীর তীরের বাসিন্দা রহমত, সুজন, আনোয়ার গাজী বলেন, প্রশাসনের সহযোগীতা পাচ্ছিনা। তবে এলাকাবাসী মিলে প্রতিহত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সিরাজদিখান থানা পুলিশ বালু দস্যুদের পক্ষে থাকায় আমরা হিমশিম খাচ্ছি। সৈয়দপুরের আলু চাষী আমজাদ জানান, ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলনের ফলে কৃষি জমি ভেঙ্গে ধলেশ্বরী নদীগর্ভে চলে যাচ্ছে ও আমাদের আলু চাষ করা কঠিন হবে। এদিকে সৈয়দপুর সেতু হুমকির মুখে পড়েছে। এব্যপারে সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন জানান, অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে এলাকার জনবসতি ও ফসলের জমিসহ সেতুটি হুমকির মুখে রয়েছে। মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম জানান, ধলেশ্বরী নদী থেকে বালি উত্তোলনের অনুমতি দেওয়া হয়নি। তবে নদীর দুু, তীর যাতে না ভাঙ্গে তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
০১.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply