বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

টো কি ও
গত ১ আগস্ট টোকিওর ইকেবুকুরোতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) জাপান শাখা এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। তোশিমা কু তোশিমা কুমিন সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন ছিল মূলত কেন্দ্র থেকে অনুমোদন পাওয়া জাপান শাখা নির্বাহী কমিটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এবং সংক্ষিপ্ত পরিচিতি। জাপান শাখা বিএনপি গঠিত হবার পর এবারের অনুমোদন তৃতীয়বারের মতো, তিনবারই দলের সভাপতি হয়েছেন নতুন মুখ। কেউ একাধিকবার সভাপতির পদে থাকেননি। সম্মেলনে জাপানের সব কয়টি প্রবাসী মিডিয়া, বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত পত্রিকা এবং বিভিন্ন চ্যানেলের প্রতিনিধিদের অনুরোধ জানানো হলেও পরবাস, দশদিক, কমিউনিটি পোর্টাল স্কাইলেট, জেটিভি সাপ্তাহিক এবং চ্যানেল আইয়ের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনে আগত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে শুভেচ্ছা ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন ড. জাকির হোসেন মাছুম। মিডিয়া কর্মী, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সংস্কৃতি কর্মী এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে নতুন কমিটির নাম ঘোষণা করেন প্রবাসীদের প্রিয় মুখ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী এনকে ইন্টারন্যাশনালের সিইও এমডি এস ইসলাম নান্নু। নূর-এ-আলমকে সভাপতি, মীর রেজাউল করীম রেজাকে সাধারণ সম্পাদক এবং ড. জাকির হোসেন মাছুমকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি এবং সাত জনকে উপদেষ্টা করা হয়। বিএনপি মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন স্বাক্ষরিত এই কমিটি জেলা কমিটির সমান মর্যাদাবান বলে নতুন কমিটির দাবি।
সদ্য অনুমোদনপ্রাপ্ত কমিটির সভাপতি নূর-এ-আলম লিখিত বক্তব্য পেশ করেন। সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বিএনপি সব সময় সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী এবং সাংবাদিক ভাইয়েরা সব সময় আমাদের সহযোগিতা করে আসছেন তাই আমরা আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ। মীর রেজাউল করীম রেজা ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির নাম ঘোষণা করেন এবং সাতজন উপদেষ্টার নাম প্রকাশ করেন। প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে এমডি এস ইসলাম নান্নুকে মনোনীত করা হয়।

এরপর সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। প্রবাসে রাজনৈতিক দলের শাখা থাকায় যুক্তিকতা, দলীয় কোন্দল, অঙ্গসংগঠন রাখার যুক্তিকতা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া সম্পৃক্ততায়, হরতাল ডেকে অরাজকতা সৃষ্টি, দাবি আন্দোলনের নামে ভাঙচুর, গার্মেন্টস সেক্টরে অস্থিরতা, ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে বিভিন্ন দুর্নীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্নবানে জর্জরিত করেন।

মাত্র এক মাসের ব্যবধানে মহাসচিব দুটি কমিটির অনুমোদন দেয় কি করে সাপ্তাহিক প্রতিনিধির এমন প্রশ্নের উত্তরে তা অস্বীকার করা হয়। এ সময় একই স্বাক্ষর দুটি কমিটি উপস্থাপন করলে কিছুটা বিব্রত বোধ করে অন্যটি জালিয়াতি বলে উল্লেখ করে বলেন এমনটি হতেই পারে না। আপনারা খোঁজ নিয়ে জেনে নিন। প্রমাণ পেয়ে যাবেন।
টোকিও থেকে বিএনপি’র ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ফোন করলে জানানো হয়, চেয়ারপার্সনের অফিস থেকে কেবলমাত্র নূর-এ-আলম রেজা কমিটিকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তাহলে দুটি কমিটিতে মহাসচিব স্বাক্ষর করলেন কোন যুক্তিতে এমন প্রশ্নের জবাবে বিষয়টি জানা নেই বলে জানান।

একটি অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দলের একজন মহাসচিব কর্তৃক মাত্র এক মাসের ব্যবধানে দুটি কমিটি অনুমোদন করে স্বাক্ষর করাটা সত্যি বিস্ময়কর। ভিন্ন ভিন্ন লোকের স্বাক্ষর হলে কিছুটা বিশ্বাসযোগ্য হলেও একই ব্যক্তির স্বাক্ষর বিশ্বাসযোগ্য নয়। খন্দকার দেলোয়ারের মতো এমন একজন মহাসচিব দলের পক্ষে কতটা ক্ষতিকর তা সহজেই অনুমেয়। তার পরও খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন বহাল তবিয়তে আছেন যেটা আরো বড় বেশি বিস্ময়কর।
প্রসঙ্গত, মাত্র এক মাস আগে ইলিয়াস মুনশী দুলাল খানকে (সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক) পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। উভয় কমিটিতে খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের স্বাক্ষর রয়েছে যার একটিতে লেখা আছে অনুমোদিত এবং অপরটিতে অনুমোদন দেয়া হলো।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর শেষে বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে এর গঠিত কমিটিকে অভিনন্দন জানানো হয়। যুবদল, ছাত্রদল, জিয়া পরিষদ, জাসাস এবং ব্যক্তিগতভাবেও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয় বিগত কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন এবং সার্বিক সহযোগিতার জন্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এমডি এস ইসলাম নান্নুকেও। সব শেষে সকলকে মিষ্টি মুখ করানো হয়।

রাহমান মনি
abmahmed@hotmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply