নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাতে চলছে সিবোট ট্রলার

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরম্নট-৩
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ সন্ধ্যার পরে সিবোর্টে পদ্মায় খেয়া পারাপারে স্থানীয় প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্ব্বেও এক শ্রেণীর অতি লোভী সিবোট মালিক ও চালকরা মৃতু্য ঝুঁকি জেনেও যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। ঢাকা-মাওয়া-খুলনা মহাসড়কের মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরম্নটে এ নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা করছে না সিবোট মালিক-চালকরা। ফলে মাঝে মধ্যেই সি বোর্টের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়ে যাত্রী নিখোঁজসহ জান-মালের ক্ষয়-ক্ষতি হচ্ছে। অন্যদিকে পকেটভারি হচ্ছে অনেকের। মাওয়ায় ডেন টাকা উড়ছে। আর ঈদে ঘরমুখো মানুষের ঢল নামলে এই টাকা উড়ার মাত্রাও বেড়ে যায়। পুলিশের সামনেই কয়েকগুণ অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। এত লোকের চলা চল যে যাত্রী প্রতি ৫ টাকা বেশি আদায় করলেও শুধু ঈদের আগের কয়েক দিনেই লাখ লাখ টাকা আদায় হয়। আর সেখানে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় হয় ক্ষেত্র বিশেষ ৩০ থেকে ১শ’ টাকা। তাতে এখানে শুধু ঈদেই অবৈধ অর্থ আদায় সব মিলিয়ে কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। মাওয়া চরজানাজাত ও মাওয়া-মঙ্গলমাঝি নৌরম্নটে প্রায় ৪ শতাধিক সিবোট চলাচল করছে । খেয়া পারাপারে এসব সিবোটের কোন বৈধতা নেই বলে বন্দর সূত্রে জানা যায়। তবুও স্থানীয় প্রশাসন দূর পালস্নার যাত্রীদের কথা চিনত্মা করে কিছু নিয়মনীতির মধ্যে থেকে সিবোট চলাচল করতে মৌখিক অনুমতি দিয়েছে। কোন মতেই রাতে সিবোটে পদ্মায় যাত্রী পারাপার করা যাবে না_ এমন নিষেধাজ্ঞা মেনে নিয়েই মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরম্নটে সিবোট চালাচ্ছে মালিক ও চালকরা। কিন্তু কিছু অতি লোভী সিবোট চালকরা স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে কোন প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা ছাড়াই সন্ধ্যার পরে রাতের অাঁধারে যাত্রীপ্রতি ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা করে ভাড়া নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। অপর দিকে ট্রলারগুলোও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে রাতের বেলা যাত্রী পারাপার করছে। শনিবার রাত ৮ টার দিকে একটি ট্রলার ২ শতাধিক যাত্রী নিয়ে মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দি ঘাটে যাবার প্রাক্কালে স্রোতের টানে ট্রলারটি একটি ফেরির সাথে ধাক্কা খেয়ে ডুবে যাবার সময় যাত্রী হুড়োহুড়ি করে ফেরিতে উঠে কোনমতে প্রাণ রক্ষা করে। রাতের বেলায় সিবোট ও ট্রলারে এমন দুর্ঘটনা মাঝে মধ্যেই ঘটছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে পুরো সিবোট ঘাটেই রয়েছে অব্যবস্থাপনা। প্রতিনিয়তই যাত্রীরা লাঞ্ছনা ও প্রবঞ্চনার শিকার হচ্ছে। ঘাট ইজারাদারের লোকজনের সাথে ভাড়া নিয়ে প্রায়ই যাত্রীদের সাথে ঝগড়া-বিবাদ লেগে থাকে। সন্ধ্যার পর সিবোট চলাচল করায় প্রায়ই এ রম্নটে সিবোট উল্টে যাত্রী নিখোঁজ ও হতাহতের ঘটনা ঘটছে। বছরে কতজন যাত্রী নিখোঁজ হয়েছে এর সার্বিক কোন পরিসংখ্যান প্রশাসনের কাছে নেই বলে জানা গেছে। একটি সূত্র জানায়, মাঝে মধ্যেই পদ্মায় সিবোট উল্টে যাত্রী নিখোঁজ হয় কিন্তু কতজন যাত্রী নিখোঁজ হয়েছে এবং কার সিবোটটি উল্টে এ ঘটনা ঘটলো তা পাওয়া যায় না। ঐ সূত্রটির মতে, যখন কোন সিবোর্ট উল্টে যাত্রী নিখোঁজ হবার ঘটনা ঘটে ,তখন অন্য সিবোটের চালকদের সহযোগিতায় ডুবে যাওয়া সিবোটটির ইঞ্জিন নিয়ে আসা হয়। কিন্তু কার সিবোট উল্টে এ হতাহতের ঘটনাটি ঘটলো এগুলো শনাক্ত করা যায় না।এখানে সিবোটের কোন প্রকার কাগজপত্র নেই এবং চালকদের শনাক্ত করার মতো কোন প্রকার বায়োডাটা না থাকার দরম্নন এরা বার বার অপরাধ সংঘটিত করলেও এদেরকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে না বলে বিআইডবিস্নউটিএ’র বন্দর সূত্র দাবি করে। এ ব্যাপারে লৌহজংয়ে ইউএনও আশরাফুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply