সড়ক অবরোধ-ভাংচুর ক্লিনিক মালিকদের বিরুদ্ধে মামলা

মুন্সিগঞ্জে ক্লিনিক কর্মচারী নিহত

সদর উপজেলার অদুরে সিপাহীপাড়া এলাকায় বিক্রমপুর ক্লিনিকে মালিকের ভাগ্নের মারধরের পর সোমবার ক্লিনিক কর্মচারী ও যুবলীগ কর্মী আহসানুল্লাহ খান (৪৫) নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ও ছাত্রলীগ কর্মীরা বিক্রমপুর ক্লিনিকে ভাংচুর, লুটপাট ও বেতকা-সিপাহীপাড়া সড়কে অবরোধ করে। বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মী ও পুলিশের মধ্যে ধাওয়া-ধাওয়ি হয়েছে। এ সময় মশিউর (২৮) নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী গুরুতর আহত হয়েছে। তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতের ভাই যুবলীগ নেতা আমানউল্লাহ তার ভাইকে খুন করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন। সন্ধ্যায় নিহত যুবলীগ কর্মীর স্ত্রী চাঁদনী বেগম বাদী হয়ে বিক্রমপুর ক্লিনিকের ৩ মালিকের বিরুদ্ধে সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, রবিবার বিক্রমপুর ক্লিনিকের মালিকের ছেলে সায়েম সুপারভাইজার আহসানুল্লাহ খান হাসানকে চর দেয়। এতে উভয় পক্ষে বিবাদ বেধে যায়। ক্লিনিকের মালিকের মোশাররফ হোসেন সোমবার সন্ধ্যায় বিচার করার প্রতিশ্র“তি দিলে পরিস্থিতি তখন শান্ত হয়।

পরে সোমবার সকালে হাসান সায়েমের বাড়িতে যায়। এর কিছুক্ষন পরে হাসানের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে দেখে সায়েমের ভাড়া বাসার সিড়িতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। পরে তাকে ঢাকা পাঠানো হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করে। তাৎক্ষনিকভাবে হত্যার সঠিক কারণ বলা যাচ্ছেনা বলে ওসি জানান। সায়েম পলাতক রয়েছে। ২ মেয়ে ১ ছেলের জনক হাসান সিপাহিপাড়ার মৃত নুর মোহাম্মদ খানের পুত্র ।
যুবলীগ কর্মী মারা যাওয়ার খবর সিপাহীপাড়া এলাকায় পৌছলে ছাত্রলীগ ও এলাকাবাসী উত্তেজিত হয়ে উঠে। এ সময় বিক্রমপুর ক্লিনিকে ভাংচুর চালায় ও ক্যাশ ভেঙ্গে টাকা-পয়সা লুটে নিয়েছে বিক্ষুব্ধকারীরা। অবরোধকালে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মীদের ধাওয়া-ধাওয়ি হয়। ক্লিনিক মালিক মোশারফ জানিয়েছেন, রবিবার রাতে তার ভাগ্নে সায়েম কর্মচারী আহসানকে সামান্য এক চড় মেরেছে। তিনি গতকাল সোমবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
০৬.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply