ঈদের আগে চালু হচ্ছে না ক্রস চ্যানেল

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট (শেষ পর্ব)
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ রাজধানী ঢাকার সঙ্গে শরিয়তপুর জেলার সড়ক যোগাযোগ চালু করা হয়েছিল মাওয়া-মঙ্গলমাঝি ফেরি সার্ভিস দিয়ে। যার ফলে যাত্রীরা অতি অল্পসময়ে ঢাকা থেকে শরিয়তপুর জেলার প্রতিটি উপজেলায় যাওয়া যেত। অপরদিকে শরিয়তপুর থেকে অল্প সময়ের মধ্যে রাজধানীতে পেঁৗছা সম্ভব ছিল।

বিআইডবিস্নউটিসি কতর্ৃপক্ষ ২টি ফেরি কিশোরী ও যশোর দিয়ে এ রম্নটে ফেরি সার্ভিস চালু রেখেছিল। হঠাৎ করে ২০০৯ সলের ২৪ ডিসেম্বর এ নৌ-রম্নটটিতে চ্যানেলে পানি না থাকার কারণে বিআইডবিস্নউটিএ কতর্ৃপক্ষ এ রম্নটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়। সেই থেকে নেমে আসে এ রম্নটে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণের অবর্ণনীয় দুভের্াগ। এ প্রসঙ্গে আলাপ হয় শরিয়তপুরগামী যাত্রী আসলাম উদ্দিনের সাথে। তিনি বলেন আগে অল্প টাকায় গনত্মব্যে পেঁৗছাতে পারতাম কিন্তু এখন আর তা পারি না।এখন অতিরিক্ত প্রায় ১৫ কিলোমিটার পথ ঘুরে শিবচরের কাঠালবাড়ী ঘাট হয়ে যেতে হচ্ছে। দীর্ঘ দিন যাবত এ নৌ-রম্নটটি বন্ধ থাকার পরও কবে নাগাদ এ রম্নটে ফেরি চলাচল করতে পারবে তার কোন সুনির্দিষ্ট তারিখ ও দিনক্ষণ জানতে পারেনি বিআইডবিস্নউটিএ কতর্ৃপক্ষ। এ ব্যাপারে মেরিন অফিসার আব্দুস সোবাহান জনান, “যদি ডেজিং এর মাধ্যমে এ রম্নটটি বিআইডবিস্নউটিএ কতর্ৃপক্ষ সচল করে দেয় তবে আমাদের ফেরি সার্ভিস চালু করতে কোন বাধা নেই। তারা যদি বলে এখান দিয়ে ফেরি চালাতে হবে তাহলে আমরা তাই করব।”

অন্যদিকে বিআইডবিস্নউটিএ’র মাওয়াস্থ উপ পরিচালক আব্দুস সালাম জানান, ৯ জুলাই ক্রস চ্যানেল (হাজরা চ্যানেল) বন্ধ হয়ে যায়। ১৩ জুলাই থেকে ড্রেজিং শুরম্ন হয়ে মাসেকখানেক চলার পর তেম কোন অগ্রগতি হয়নি। তাই প্রায় অর্ধকোটিরও বেশি টাকা ব্যয়ের পর এই ড্রেজিং বন্ধ করে দেয়া হয়। তাই এই সহজতর নৌ চ্যানেলটির ভবিষ্যত অনিশ্চিত। সঠিক পরিকল্পনার অভাব এবং ড্রেজিংয়ের নামে তেল চুরির কারণই এমনটি হয়েছে বলে সংশিস্নষ্ট একটি সূত্রের দাবি।

নাব্যতার কারণে ফেরিগুলো আগে যদি ৫টি টিপ দিত, এখন দিতে পারছে মাত্র ২টি টিপ। তাই যানজট শুধু বাড়বেই না, মাওয়ায় এবার গেলবারের চেয়ে দ্বিগুণ যানজট হবে। এবার ঈদে ঘরমুখো যাত্রীর দুভের্াগ বৃদ্ধি সম্পর্কে পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রম্নটে ক্রস চ্যানেলে মাত্র সোয়া ঘণ্টায় ফেরি চলাচলে নৌ-রম্নট পাড়ি দেয়া সম্ভব হতো। কিন্তু ডুবোচরের কারণে ক্রস চ্যানেল বন্ধ হয়ে পড়ায় এখন ফেরি অনেক দূর পথ ঘুরে যেতে হচ্ছে। এতে সময় লাগছে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘন্টা। একটি রো-রো ফেরিতে ২৫ থেকে ৩০টি যানবাহন ধারণ করতে পারে। ছোট ফেরিতে ধারণ করতে পারে মাত্র ১০ থেকে ১৫টি যানবাহন। এতে ঈদে যনাবাহনের বাড়তি চাপ সামলাতে বাড়তি কোন ফেরির ব্যবস্থা নেই। সোয়া ঘণ্টার স্থলে সময় লাগছে সাড়ে ৩ ঘণ্টা_ যার জন্য এবার ঈদে ঘরে ফেরায় যাত্রী ভোগানত্মির কারণ হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply