মুন্সিগঞ্জে মাওয়ায় র‌্যাব-লঞ্চ মালিকদের হট্টগোল

এক ঘন্টা লঞ্চ চলাচল বন্ধ
বুধবার মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় র‌্যাব ও লঞ্চ মালিক সমিতির নেতা-শ্রমিকদের মধ্যে হট্টগোল হয়েছে। মাওয়া-কাওড়াকান্দি লঞ্চ মালিক সমিতির মাওয়া জোনের সাধারণ সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরীকে আটক করে পুলি ফাঁড়িতে নিয়ে আসা হয়। এই নিয়ে মাওয়া লঞ্চ ঘাট থেকে সকল নৌরুটে ১ ঘন্টা লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকে। বিড়ম্বনায় পড়তে হয় ঈদে ঘরমুখো মানুষকে।

ভ্রাম্যমান আদালত বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করায় “একতা এক্সপ্রেস” নামীয় একটি লঞ্চকে ১শ’টাকা জরিমানা করে। জরিমানা আদায়ও হয়। এর মধ্যে ভাস্কর চৌধুরী এসে এই মোবাইল কোর্ট বন্ধ করার কথা বলে। এনিয়ে লঞ্চ মালিক সমিতি ও ভ্রাম্যমান আদালতের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে র‌্যাব এগিয়ে এলে লঞ্চ মালিক সমিতিরি নেতাদের সঙ্গে হট্টগোল শুরু হয়। ওই ঘটনায় র‌্যাব মাওয়া লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরীকে আটক করে। সমিতির নেতাকে আটক করার প্রতিবাদে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

বিষয়টি সমিতির নেতৃবৃন্দ নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানকে সেলফোনে অবগত করেন। পরে দুপুর ২ টার দিকে মাওয়া ফাঁড়িতে র‌্যাবের হাতে আটক সমিতির নেতাকে নৌ পরিবহন মন্ত্রীর হস্তক্ষেপে ছেড়ে দেয়া হয়। এতে দুপুর ২ টার পর থেকে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে।

দক্ষিাঞ্চলের প্রবেশদ্বার মাওয়ায মঙ্গলবার বিকাল থেকে মোবাইল কোর্ট নিয়মিত কাজ করছে। এতে চাঁদাবাজি বন্ধসহ যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে না। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ নিবিগ্নে মাওয়া দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছিল। ম্যাজিস্ট্রেট মমিনুর রশিদ জানান, যাত্রীদের জীবনের নিরাপত্তা বিধানের জন্য মোবাইল কোর্ট আইন অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছে। মাওয়া লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরী বলেন, নৌরুটে অবৈধ লঞ্চ চলছে সত্যি। কিন্তু ঈদের সামনে কাগজ পত্র দেখার নামে ভ্রাম্যমান আদালত যা করছে তাতে মালিক-শ্রমিকদের ক্ষতির সম্মুখিন হতে হচ্ছে। অথচ র‌্যাব সমিতির নেতা-শ্রমিকদের উপর নির্যাতন শুরু করে।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
০৮.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply