পদ্মা সেতু: বিশ্বব্যাংকের সহায়তার সুরাহা চায় সরকার

পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের প্রতিশ্র”ত আর্থিক সহায়তার বিষয়টি চলতি বছরের মধ্যে সুরাহার আহ্বান জানিয়েছেন যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। সচিবালয়ে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার তিনি সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, “বিশ্বব্যাংকের বিষয়টি চূড়ান্ত হলে ডিসেম্বরের মধ্যে চুক্তি সই করে জানুয়ারিতেই নির্মাণ কাজ শুরু হবে।”

দেশের সর্ববৃহৎ এ সেতু নির্মাণে ব্যয় হবে ১৬ হাজার আটশ কোটি টাকা। এর প্রায় পুরো অর্থই বিভিন্ন দাতা গোষ্ঠীর কাছ থেকে ঋণ হিসেবে নেওয়া হবে।

বিশ্বব্যাংকের সহায়তা নিয়ে এখনো জটিলতা রয়েছে বলে জানান যোগাযোগমন্ত্রী।

তিনি জানান, বিশ্বব্যাংকের সহায়তার বিষয়টি ত্বরান্বিত করতে আগামী মাসে অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলতে ওয়াশিংটন যাবেন।

চলতি বছরের ফেব্র”য়ারি মাসে বাংলাদেশ সফর করেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাবেল এম গুরেরো।

সফরে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন। পদ্মা বহুমুখী সেতুর জন্য বিশ্বব্যাংকের একশ ২০ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তার প্রতিশ্র”তি দেন।

ইসাবেল বলেন, “যমুনা সেতু নির্মাণে এর আগে সাহায্য করেছে বিশ্বব্যাংক। সেই অভিজ্ঞতা থেকে আমরা দেখেছি এ ধরনের অবকাঠামো উন্নয়ন সংলগ্ন অঞ্চলের দারিদ্র্য দ্রুত করতে ভূমিকা রাখে।”

মন্ত্রী আবুল হোসেন বৃহস্পতিবার বলেন, “এ প্রকল্পে তিনটি দাতা সংস্থা আর্থিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত বিশ্বব্যাংকের প্রতিশ্র”ত সহায়তা এখনো শতভাগ নিশ্চিত হয়নি।”

পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরুর সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “জাইকা, এডিবি (এশিয়ার ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক) এবং আইডিবি (ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক) এ প্রকল্পে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে। তাদের বোর্ডে এ বছরই অর্থ ছাড়ের বিষয়টি চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে।”

[ad#co-1]

Leave a Reply