মুন্সিগঞ্জে মেঘনায় মাঝ নদীতে আড়াইশত যাত্রী নিয়ে লঞ্চ বিকল

৪ ঘন্টা পরে উদ্ধার

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার মেঘনা নদীতে গতকাল বিকেলে আল ফলাহ নামে একটি যাত্রীবাহি লঞ্চ আড়াইশত যাত্রী নিয়ে বিকল হয়ে যায়। পরে ৪ ঘন্টা পরে আরেকটি লঞ্চ দিয়ে টেনে বিকল লঞ্চটিকে উদ্ধার করা হয়। সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানাযায়, চাঁদপুর থেকে আড়াইশত যাত্রী নিয়ে আল ফালাহ লঞ্চ নারায়নগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। পথে বিকেল ৫ টার দিকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার চর কিশোরগঞ্জে মেঘনা নদীতে লঞ্চটির ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় লঞ্চটি মেঘনায় মাঝ নদীতে নোঙ্গর করে রাখা হয়। শেষ পর্যন্ত নিরুপায় যাত্রীরা বিপদ থেকে রক্ষা পেতে মুন্সিগঞ্জের এক সাংবাদিককে ফোন করেন। পরে বিষয়টি গজারিয়া থানা পুলিশ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ পুলিশের উর্ধŸতন কর্মকতাদের জানানো হয়। লঞ্চটি উদ্ধারে প্রশাসন তৎপর হয়ে উঠে। বিষয়টি লঞ্চের মালিক রুহুল আমিনকে জানানো হলে তিনি ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। এবং এমভি হাসান নামে আরেকটি লঞ্চ দিয়ে টেনে লঞ্চটি নারায়নগঞ্জ ঘাটের উদ্দেশ্যে নিয়ে যান। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায় লঞ্চটি রাত সোয়া ৯ টার দিকে নারায়নগঞ্জ ঘাটে ভিরানো হয়।

বিষয়টি গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদকে জানালে তিনি বলেন, আমি এখনই বিষয়টি দেখছি। সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সাহেদ ফেরদৌস জানান, এই বিষয়ে আপনার কাছে খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম আমি ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। লঞ্চটি উদ্ধারে আরেকটি লঞ্চ দিয়ে টেনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

লঞ্চের মালিক রুহুল আমিন জানান, আমি গজারিয়াতে ছিলাম। খবর পেয়ে সাথে সাথে ছুটে আসি। বিষয়টি মালিক সমিতিকে জানালে আরেকটি লঞ্চ এনে টেনে নারায়নগঞ্জঘাটে নেয়া হয়। লঞ্চের মবিলে স্থানটি ফেটে মবিলসব পরে যায়। এতে লঞ্চ থামিয়ে মাঝনদীতে নোঙ্গর করতে বাধ্য হয়। তবে রাত সোয়া ৯ টায় মালিক রহুল আমিন জানান, লঞ্চঘাটে ভিরেছে। যাত্রীরা এখন নিরাপদে আছে।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
১৪.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply