সাংবাদিক সফিউদ্দিন আহমদ

মিনতী মণ্ডল
চারণ সাংবাদিক এবং সাবেক ছাত্রনেতা ও ভাষাসৈনিক সফিউদ্দিন আহমদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ২২ সেপ্টেম্বর। ২০০৯ সালের এই দিনে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানের পারিবারিক কবরে সমাহিত করা হয়েছিল। বাবা জলকদর দেওয়ানের ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে সফিউদ্দিন আহমদের বড় ভাইয়ের সঙ্গে মাত্র ১৭ বছর বয়সে ১৯৪০ সালের লাহোর সম্মেলনে যোগদান করেন। তার ভাবধারা এবং পছন্দের পার্টি সর্বভারতীয় কংগ্রেসের সদস্য হন ১৯৪২ সালে। পরবর্তীতে তেভাগা আন্দোলনসহ নেত্রকোনার কৃষক সমাবেশে যোগ দেন। ১৯৪৮ সালে ‘উর্দু হবে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা’র প্রতিবাদে গ্রেফতার হন এবং ১৯৫২ সালে ঢাকার জগনাথ কলেজ ছাত্রসংসদের জিএস হিসেবে ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৬২ সালে হামুদুর রহমান শিৰা কমিশনের বিরুদ্ধে ছাত্র আন্দোলনের প্রথম দিনের রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, আবুল মনসুর আহমদ ও কফিল উদ্দিন চৌধুরী, মোট ১৭ জনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এভাবে ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যনত্ম ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও রাজশাহীসহ বিভিন্ন কারগারে বিভিন্ন মেয়াদে মোট ১০ বছর জেলজীবন এবং ১৩০ দিন অনশনে কাটান। আর রাজশাহীর খাপড়া ওয়ার্ডের জেল হাজতিদের ওপর যে গুলিবর্ষণ হয় তাতে সফিউদ্দিন প্রাণে রক্ষা পেলেও বিভিন্ন সময় বহুবার জেলহাজতে নির্যাতিত হয়েছিলেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ মহকুমায় পাকিসত্মানী মিলিটারি ও আলবদর বাহিনীর তালিকায় তিনি ছিলেন ১ নম্বরে। সেই সব কারণে আত্মগোপন করে সাংবাদিকতার মাধ্যমে যুদ্ধ করেছেন।

সফিউদ্দিন আহমদ সংবাদপত্র ও মফস্বল সাংবাদিকতাকে ব্রত করে দেশ ও জনগণের সমস্যা এবং জনগণের অধিকার সম্বন্ধে সচেতন করার দায়িত্বটুকু নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করে গেছেন। তিনি অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র থাকাকালীন অবস্থায় সিপিআই বা কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়ার সাপ্তাহিক মুখপত্র জনযুদ্ধ কলকাতা থেকে এবং ইংরেজী ভার্সন পিপলস ওয়ার বোম্বে থেকে প্রকাশিত পত্রিকার প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দিয়ে সাংবাদিকতার জগতে প্রবেশ করেন। ছাত্র রাজনীতির পাশাপাশি ১৯৪৭ সালের দেশ বিভাগের পূর্বে কলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক আজাদ, দৈনিক মিলস্নাত, আমার দেশ এবং সাপ্তাহিক ইত্তেফাক পত্রিকার সংবাদদাতা হিসেবে যোগ দেন। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সংবাদ, দৈনিক পাকিসত্মান (পরবর্তীকালে দৈনিক বাংলা) দি অবজারভার (পাকিসত্মান), দৈনিক ইত্তেফাক, দি মর্নিং নিউজ প্রভৃতি পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত হয়ে কাজ করার সুযোগ পান। এছাড়াও একজন সংবাদকমর্ী হিসেবে অনেক সংবাদ সংস্থার সঙ্গে তিনি ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। তার মধ্যে ইউপিপি, এনা, এপিপি, বিএসএস প্রভৃতি উলেস্নখযোগ্য।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও সাংবাদিকতা চালিয়ে যান। দৈনিক বাংলায় থাকা অবস্থায় তিনি দৈনিক জনতার ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। এছাড়া দেশ-বিদেশের আরও অনেক সংবাদপত্র এবং সংস্থাসমূহে কাজ করেছেন। শুধু সাংবাদিক হিসেবেই নয়, সংগঠক হিসেবেও তিনি ছিলেন দৰ ও কঠোর পরিশ্রমী। তিনি তদানীনত্মন পূর্ব পাকিসত্মান জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও ১৯৬১ সালে তিনি উক্ত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতির বহুবার সভাপতি হন। মফস্বল সাংবাদিকদের ন্যায্য বেতন ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন। সরকার নির্ধারিত বেতন (রোয়েদাদ) অর্থাৎ ওয়েজ বোর্ড বাসত্মবায়নের লৰ্যে প্রেস কমিশন আর কাউন্সিলের সদস্য হয়ে সংবাদকমর্ীদের বেতন কাঠামো গঠনে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে গেছেন। এছাড়া তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্য এবং মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও বিক্রমপুর প্রেসক্লাবে প্রাক্তন সভাপতিসহ বিভিন্ন সংগঠন, সংস্থা এবং প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট কতর্ৃক আয়োজিত ২৬ জাতি দৰিণ-পূর্ব এশীয় সাংবাদিকদের কনফারেন্সে তিনি বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিতব্য কনফারেন্সের প্রতিযোগিতার অংশে, সিরিজ বক্তৃতায় বাংলাদেশের গ্রামীণ সাংবাদিকতার ওপর বক্তব্য রেখে তিনি প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। ১৯৮৭ সালে ভারতে অসমের গোয়াহাটিতে অনুষ্ঠিত অল অসম জার্নালিস্ট কনফারেন্সে তাঁকে প্রধান অতিথি করে, পরে অসম জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন সম্মাননা প্রদান করেন।

এছাড়া সাংবাদিকতায় অবদান রাখায় ১৯৯৯ সালে জনকণ্ঠ প্রতিভা সম্মাননা ‘৯৮ প্রাপ্তি পদক, ২০০২ সালে মাওলানা মনিরম্নজ্জামান (চট্টগ্রাম), স্বর্ণপদক, মওলানা ভাসানী স্বর্ণপদক, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া পদক, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চারদলীয় জোট সরকারের সময় বিরোধী দলীয় নেত্রী থাকা অবস্থায় ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে ২০০৬ সালে এক সূফী সমাবেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে বন্দী থাকা রাজবন্দী সফিউদ্দিন আহমদকে সম্মাননা ও পদক প্রদানসহ জায়নামাজ ও তজবি প্রদান করেন। বাংলাদেশ সূফী পরিষদ ২০০৬ পদক ও অতীশ দীপঙ্কর পদকসহ আরও গুণীজন সম্মাননাসহ নানা সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন। বাংলাদেশের বিখ্যাত চারণ সাংবাদিক এবং বিক্রমপুরের কৃতীসনত্মান হিসেবে ২০০০ সালে ভারতের কলকাতায় বিক্রমপুর সম্মেলনীর পৰ থেকে সংবর্ধনা প্রদান করেন। ভাষাসৈনিক হিসেবে অনেক সংগঠন তাঁকে সংবর্ধনা প্রদান করেছে। তার মধ্যে জেলা প্রশাসন আয়োজিত ভাষা আন্দোলনের সুবর্ণজয়নত্মী উদ্যাপন উপলৰে শরীয়তপুরবাসীর পৰ থেকে ১৯৯৯ সালে ভাষাসৈনিক সফিউদ্দিন আহমদকে গণসংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

সফিউদ্দিন আহমদের প্রথম মৃতু্যবার্ষিকী উপলৰে প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠন ও তাঁর পরিবারের পৰ থেকে আলাদা কর্মসূচী নেয়া হয়েছে এবং তাঁর প্রতিষ্ঠিত সাপ্তাহিক বিক্রমপুর বার্তা পত্রিকায় একটি বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে সফিউদ্দিন আহমদের অজানা তথ্য প্রকাশে লেখক গুণগ্রাহীদের ০১৭১১-১১২২১৮ নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। আজীবন সংগ্রামী, আপোসহীন, সেকালের ছাত্রনেতা, ভাষাসৈনিক ও সর্বোপরি চারণ সাংবাদিক সফিউদ্দিন আহমদ তাঁর ত্যাগ ও আদর্শের জন্য অমর হয়ে থাকবেন এই কামনায় তাঁর ছোট ছেলে এনএ শুক্তি দেশবাসীর প্রতি মরহুমের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

লেখক : মরহুম সফিইদ্দিন আহমদের পুত্রবধূ
ই-মেইল : minati 1981@gamil.com

[ad#co-1]

Leave a Reply