৮ নটিকেল মাইল গতির ফেরি চলছে ৩ নটিকেল মাইল গতিকে

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট
মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ৮ নটিকেল মাইল গতি সম্পন্ন ফেরিগুলো চলছে ৩ নটিকেল মাইল গতিতে। উত্তাল পদ্মার স্রোতের সাথে প্রতিযোগিতায় ফেরিগুলোর গতি ৮ নটিকেল মাইল থেকে হ্রাস পেয়ে ৩ নটিকেল মাইলে নেমে এসেছে। একই সাথে ক্রস চ্যানেল বন্ধে ও নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরিগুলোকে ৭ কি.মি. অতিরিক্ত পথ ঘুরে চলায় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথের দূরত্ব এখন ১৩ কি.মি. থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২০ কিলোমিটারে দাড়িয়েছে। দূরত্ব বেড়ে যাওয়ায় ফেরি পারাপারে সময়ও লাগছে বেশি। সময় বেশি লাগার কারণে ফেরির ট্রিপ সংখ্যাও কমে গেছে । ফলে ফেরি সল্পতার কারণে ঘাটে দেখা দিচ্ছে বিশাল যানজট। গতকালও এখানে ছিল তীব্র যানজট । ঘাটে ছিল যাত্রীর ভিড়। ছিল লোকাল বাসের অভাব। আর এই সুযোগে বাস ভাড়াও বেড়েছে দ্বিগুন। মাওয়া পুলিশ ফাড়ির সামনে থেকেই দ্বিগুন ভাড়ায় ডেকে ডেকে বাসে যাত্রী তুললেও দেখার জেনো কেই নেই এখানে।

বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের সহকারী মহাব্যবস্থাপক আশিকুজ্জামান জানান , উত্তাল পদ্মায় এখন প্রচুর স্রোত। স্রোতের সাথে প্রতিযোগিতায় ফেরিগুলো জেনো কুলিয়ে উঠতে পারছে না। আট নটিকেল মাইল গতি সম্পন্ন প্রতিটি ফেরি উজানের দিকে এখন চলছে ৩ নটিকেল মাইল গতিতে। পদ্মায় স্রোতের গতি এখন ঘন্টায় ৫ নটিকেল মাইল। ৮ নটিকেল মাইল গতিতে ফেরি চললেও ৫ নটিকেল মাইল গতি স্রোতের কারণে ফেরির গতি বাধাগ্রস্ত হয়ে চলছে মাত্র ঘন্টায় ৩ নটিকেল মাইল গতিতে। ফলে ফেরিগুলো যথা সময়ে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে না পারায় ঘাটে দেখা দিচ্ছে ফেরি স্বল্পতা। অপর দিকে ঈদের পূর্বে এ নৌরুটের স্বল্প দূরত্বের ক্রস চ্যানেলগুলো নব্যতা সংকটের কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ফেরিগুলোকে এখন ১৩ কি. মি. পথের পরিবর্তে অতিররিক্ত ৭ কি. মি. পথ ঘুরে চলায় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ পথের দূরত্ব এখন ২০ কি. মিটারে দাড়িয়েছে। অতিরিক্ত পথঘুরে চলায় যথা সময়ে ফেরিগুলো ঘাটে পৌছতে না পারার এটিও একটি কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে। এসকল কারণে প্রকার ভেদে ফেরিগুলো এখন মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দি পৌছতে সময় লাগছে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা। ফলে ঈদের পর হতে কর্মস্থল ঢাকামুখী যাত্রীর ও পরিবহনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় কাওড়াকান্দি ও মাওয়া ঘাটে যানজট লেগেই আছে। গতকাল মঙ্গলবারও উভয় ঘাটে দেখা যায় তীব্র যানজট। আর যানজটে আটকা পড়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী চড়ম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন উভয় ঘাটে। মাওয়া ঘাটে যানজটের আরো একটি কারণ হচ্ছে লোকাল বাসের অধিক্য। দক্ষিণ বঙ্গের ঢাকামুখী যাত্রীরা যখন বিভিন্ন জলযানে পদ্মা পারি দিয়ে মাওয়া ঘাটে আসছে তখন এখানে যাত্রী তুলনায় বাসের সংখ্যা অত্যন্ত কম থাকায় বাসগুলো তাড়াহুড়ো করে যত্রতত্র বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানোর ফলে ঈদেও পর হতে এঘাটে যানজট লেগেই আছে। যত্রতত্র দাড়িয়ে বাসে যাত্রী উঠানোর ফলে ফেরি ঘাটে এসে দূর পাল্লার বাসগুলো আটকে থাকছে ঘন্টার পর ঘন্টা। তাই ফেরি থেকে পরিবহনগুরো আনলোড করতে না পারায় পদ্মায় দেখা দিচ্ছে ফেরি জট। এসকল কারণে মাওয়া ও কাওড়াকান্দি ঘাট যেনো এখন যাত্রী ভোগান্তির অন্যতম ঘাটে পরিনত হয়েছে।

ছাদে ৬০ ভিতরে ১শ’
মঙ্গলবারও মাওয়া ঘাটে ঢাকামূখী যাত্রীদের প্রচন্ড চাপ ছিল। যাত্রীর তুলনায় লোকাল বাসের সংখ্যা কম থাকায় বাস কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের নিকট থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করেছে। মাওয়া ঘাটে অবস্থিত নৌ পুলিশ ফাড়ির সামনে লোকাল বাসের কন্টাকটাররা ছাদে ৬০ ভেতরে ১ শ’ এভাবেই ডেকে ডেকে যাত্রী তুলছিলেন বাসে। আর অসহায় যাতীরাও উপায়ান্ত না দেখে তাড়াহুড়ো করে বাসে উঠে পড়ে। আর এর ফলে ঘটছে নানা অঘটন ও দুর্ঘটনা। ঢাকা-মাওয়া লোকাল বাসের ভাড়া ৩৫ থেকে ৪০ টাকা হলেও ঈদের পর হতে একানে দ্বিগুন তিন গুন ভাড়া আদায় করা হলেও প্রশাসন নিরব ভুমিকা পালন করায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
২১.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply