মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়কের দুরবস্থা চরমে : মানুষের ভোগান্তি

নারায়ণগঞ্জ হতে পাগলা হয়ে ঢাকা যাওয়ার ব্যস্ততম সড়কটিকে এখন সড়ক বললে বোধ হয় ভুল হবে। এটা এখন সড়ক নয় চরম ভোগান্তির অপর নাম। ভাঙ্গাচোরা, খানাখন্দে ভরপুর সড়কটির দুরবস্থার কারণে রিকশাও চলতে চায় না। অল্প বৃষ্টি হলেই হাঁটু সমান পানি দেখলে মনে হবে ছোট খাট কোন খাল।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার পঞ্চবটি এলাকা থেকেই মূলত সড়কের করুণ অবস্থার শুরু। পরে পাগলা, দাপা, আলীগঞ্জ, শ্যামপুর হয়ে পোস্তগোলা পর্যন্ত কোথাও সমতল রাস্তা নেই। সর্বত্র খানাখন্দ। মুন্সীগঞ্জ থেকে পঞ্চবটি পর্যন্তও সড়কের একই দশা।

সড়কটির এমন বেহাল দশার মধ্যেই চলাচল করছে নানা ধরনের যানবাহন। আর এতে করে প্রায়শই ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা। পণ্যবাহী যানবাহন কাত হয়ে রাস্তার ওপর পড়ে যাওয়া এখন নিত্য দিনের ঘটনা। আর যানজটে অভ্যস্ত স্থানীয়রা। জনদুর্ভোগ চরম আকারে রূপ নিলেও সড়কটির সংস্কারে নেই কোন উদ্যোগ।

ব্যস্ততম এ সড়কের পাশেই ফতুল্লা শিল্পাঞ্চল। রয়েছে বিসিক শিল্প নগরীর মত ব্যস্ততম শিল্প অধ্যুষিত এলাকা। এসব এলাকায় ছোট বড় নানা ধরনের অন্তত এক থেকে দেড় হাজার শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। পাগলায় রয়েছে দেশের অন্যতম রড, রি রোলিং ও স্টিল মার্কেট। এছাড়া রয়েছে ইট, বালু, পাথর, সিমেন্টের পাইকারী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কারখানা। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে প্রতিদিন শত শত ব্যবসায়ী এসব এলাকায় আসছে; কিন্তু প্রাচ্যের ডান্ডি নারায়ণগঞ্জের সঙ্গে এ সড়কের যেন কোন মিল নেই। এ সড়কের কারণে অনেক ব্যবসায়ী-ই মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে এসব শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে। ফলে শিল্প মালিকরা শিকার হচ্ছে বড় ধরনের আর্থিক লোকসানের। তাদের দাবি, তারা সরকারকে নিয়ম মাফিক কর দিয়ে ব্যবসা করছে, কিন্তু তাদের সমস্যা সমাধানে সরকারের আন্তরিকতার ঘাটতি রয়েছে।

জানা গেছে, মুক্তারপুরে ধলেশ্বরী সেতু নির্মাণের পর ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কে যান চলাচলের পরিমাণ অনেক বেড়ে গেছে। আর মুন্সিগঞ্জ যেতে হলে পাগলার এ সড়ক দিয়েই যাতায়াত করে বেশীরভাগ যানবাহন। এ সড়কটি এখন আঞ্চলিক মহাসড়কে পরিণত হয়েছে।

বিসিক শিল্প নগরীর বেশ কয়েকজন গার্মেন্টস মালিক জানান, ঢাকা থেকে আসতে ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট সময় লাগার কথা; কিন্তু সড়কটির এতই বেহাল অবস্থা যে, এখন সময় লাগে কয়েক ঘন্টা। স্থানীয় এমপির কাছে এলাকাবাসী একাধিকবার বিষয়টি জানালেও কোন কাজ হয়নি। এতে করে জনভোগান্তি দিন দিন বেড়েই চলেছে।

হাবিবুর রহমান বাদল, নারায়ণগঞ্জ

[ad#co-1]

Leave a Reply