হুমায়ুন আজাদ হত্যা চেষ্টা মামলা : ৪ পুলিশকে গ্রেফতারে পরোয়ানা

অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের ওপর হামলার তদন্ত ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা চালানোর অভিযোগে চার পুলিশ কর্মকর্তাকে গ্রেফতারে পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। সরকার সমর্থক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির গণশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক মো. আবু আব্বাস ভূঁইয়ার জবানবন্দি নেয়া নিয়ে গতকাল বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের হাকিম মেহেদী হাসান তালুকদার গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির এ আদেশ দেন। চার পুলিশ কর্মকর্তা হলেন ২০০৪ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে রমনা থানায় কর্মরত ওসি মাহবুবুর রহমান, উপপরিদর্শক রেজাউল করিম, নাসের আলী ও আনোয়ার হোসেন। নির্যাতন চালিয়ে আব্বাসের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি আদায়ের অভিযোগে আব্বাস ২০০৮ সালে মামলা করেন। তাতে এ চার পুলিশ কর্মকর্তা ছাড়াও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকেও আসামি করা হয়।

২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ও লেখক হুমায়ুন আজাদকে বাংলা একাডেমির উল্টো দিকের রাস্তায় কয়েকজন সন্ত্রাসী হামলা করে গুরুতর আহত করে। এর প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মিছিল থেকে আব্বাসকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আব্বাসের অভিযোগ, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে অধ্যাপক আজাদের ওপর আক্রমণকারী হিসেবে স্বীকারোক্তি আদায়ের জন্য তার ওপর নির্যাতন চালানো হয়। ১৪ দিন পর আব্বাস জামিনে মুক্তি পান। ঘটনার চার বছর পর ২০০৮ সালের ৫ মার্চ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে আব্বাস মামলা করলে তা প্রথমে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করে। ওই বছরের ১ জুন আব্বাসের অভিযোগ মিথ্যা বলে প্রতিবেদন দাখিল করে গোয়েন্দা পুলিশ বিভাগ (ডিবি)। পরে গত বছরের ২৩ জুলাই আব্বাসের না-রাজি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্তভার দেয়া হয়। গত ১৯ অগাস্ট সিআইডির রমনা ইউনিটের পরিদর্শক মো. এহসান উদ্দিন চৌধুরী আব্বাসের অভিযোগ সত্য বলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। অভিযুক্তরা আব্বাসকে শারীরিক নির্যাতনের মাধ্যমে হুমায়ুন আজাদের আক্রমণকারী হিসেবে জোর করে স্বীকারোক্তি আদায় করেন বলে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এ প্রতিবেদনের ওপর শুনানি শেষে গতকাল গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন হাকিম।

মামলার বাদী আব্বাস বলেন, অভিযুক্তদের মধ্যে কেউ কেউ এখন ঢাকার বিভিন্ন থানায় কর্মরত আছেন। ওই সময় আসল অপরাধীদের আড়াল করতে আমাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। হুমায়ুন আজাদ হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় এখন অধিকতর তদন্ত চলছে। এ মামলায় জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এর আগে গত ৩ অগাস্ট হুমায়ুন আজাদ হত্যা চেষ্টা মামলায় জেএমবির সাংগঠনিক প্রধান আনোয়ার আলম ওরফে আনোয়ার হোসেন খোকা ওরফে ভাগ্নে শহীদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার দিনের পুলিশ হেফাজত মঞ্জুর করে আাদালত।

২০০৩ সালের ২০ নভেম্বর দৈনিক ইত্তেফাকের ঈদ সংখ্যায় হুমায়ুন আজাদের লেখা উপন্যাস ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’ প্রকাশিত হয়। এরপর থেকেই সাঈদী তার বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে, জাতীয় সংসদে এবং অন্যান্য স্থানে হুমায়ুন আজাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন উস্কানিমূলক বক্তব্য রাখেন। তাকে কটাক্ষ করে ব্লাসফেমি আইন করার মতামত দেন। এসব বক্তব্য দেয়ার কিছুদিন পরই হামলার শিকার হন হুমায়ুন আজাদ।

[ad#co-1]

Leave a Reply