মুন্সিগঞ্জ থেকে গজারিয়া আলাদা করা হচ্ছে

ঐতিহ্যবাহী ও প্রাচীন জনপদ মুন্সিগঞ্জ জেলার আয়তন ছোট হতে যাচ্ছে। জেলার গজারিয়া উপজেলা কেটে প্রস্তাবিত দাউদকান্দি জেলার অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। এতে ৯৫৫ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের মুন্সিগঞ্জ ছোট হয়ে ৮২৪ বর্গ কিলোমিটারে দাঁড়াবে। গজারিয়া উপজেলার আয়তন ১৩১ বর্গ কিলোমিটার। গজারিয়া উপজেলা অর্থনৈতিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গজারিয়া মুন্সিগঞ্জ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া নিয়ে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের খুব একটা মাথা ব্যথা না থাকলেও সাধারণ মানুষসহ সচেতন মহেল ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সূত্রমতে, গত চারদলীয় জোট সরকারের সময় থেকে দাউদকান্দি জেলার প্রস্তাবনা নিয়ে তোড়জোর শুরু হয়। তখন বিএনপির প্রভাবশালী মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন তার নির্বাচিত এলাকা দাউদকান্দি উপজেলাকে জেলায় উন্নীত করার লক্ষ্যে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার দফতর পর্যন্ত ফাইল চলাচালি করেন।

কিন্তু তখন পালে হাওয়া লাগাতে পারেননি তিনি। ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লার দাউদকান্দি আসন থেকে মহাজোট প্রার্থী মেজর (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া নির্বাচিত হওয়ায় দাউদকান্দিকে জেলায় উন্নীত করার খবর পুনরায় চাউর হয় ওঠে। তিনি এ ক্ষেত্রে ড. খন্দকার মোশারফ হোসেনের উত্তরসূরী হিসেবে দাউদকান্দিকে জেলায় উন্নীতকরণার্থে সর্ব্বোচ্চ আইনানুগ ব্যবস্থাসহ বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে ফাইল উপস্থাপন করেন। জানা গেছে, হত কয়েক বছরের ফাইল চালাচালির ফলে দাউদকান্দি এলাকাবাসীর স্বার্থে খুব শিগগিরই দাউদকান্দিকে জেলায় উন্নীতকরণের কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে এ ব্যাপারে একটি বিশেষ দল জরিপ কার্যও সম্পন্ন করেছে। মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া, চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর এবং কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি, হোমনা, তিতাস, মেঘনা, চান্দিনা, দেবীদ্বার ও মুরাদনগরকে নিয়ে দাউদকান্দি প্রশাসনিক জেলা গঠিত হবে। ১৯৪৭ সালের পর থেকে গজারিয়া মুন্সিগঞ্জ মহকুমায় অর্ন্তভুক্ত হয়। এর আগে গজারিয়া কুমিল্লা জেলার অন্তভুক্ত ছিল। ১৮৪৫ সালে বিক্রমপুরকে মুন্সিগঞ্জ মহকুমায় উন্নীত করা হয়। তখন মুন্সিগঞ্জ, শ্রীনগর, রাজাবাড়ি, মুলফতগঞ্জ থানা নিয়ে মুন্সিগঞ্জ থানা নিয়ে মুন্সিগঞ্জ মহকুমা গঠিত হয়। পরে লৌহজং, নড়িয়া, জাজিরা থানা হয়। ১৮৬৯ সালে পদ্মা নদীর গতি পরিবর্তনের ফলে মুন্সিগঞ্জ মহকুমা হতে পালং, মুলফতগঞ্জ, জাজিরা থানা বিচ্ছিন্ন করে বাকেরগঞ্জ জেলায়, পরে ফরিদপুর জেলায় অর্ন্তভুক্ত হয়।

১৮৮২ সালে নারায়ণগঞ্জকে মুন্সিগঞ্জ সদর থেকে কেটে মহকুমায় উন্নীত করা হয়। তৃতীয় দফায় গজারিয়া মুন্সিগঞ্জ থেকে কেটে নিলে মুন্সিগঞ্জের আয়তন একেবারেই ছোট হয়ে যাবে। গজারিয়া উপজেলার মধ্য দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক গিয়েছে। গজারিয়ার মেঘনা নদীর বালু সর্বোৎকৃষ্ট সম্পদ। গজারিয়া উপজেলা মুন্সিগঞ্জ থেকে কেটে নেয়া হলে জেলাটি অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে জেলাবাসী মনে করেন।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
২১.০৯.১০

[ad#co-1]

Leave a Reply