পদ্মায় মাটি কাটার মহোৎসব

মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং থানা ও টঙ্গীবাড়ি থানার বালিগাঁওয়ের পদ্মার বিভিন্ন পয়েন্টে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে জেগে ওঠা চরে আবার ভাঙন শুরু হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এর ফলে এলাকাবাসী আতঙ্কের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। তাদের আশঙ্কা, এর ফলে অশান্ত পদ্মার দ্রুত স্রোতের গতিপথ পরিবর্তন হবে এবং শুরু হবে ভাঙন প্রক্রিয়া। ভাঙন প্রক্রিয়া শুরু হলে খুব ছোট হয়ে আসা লৌহজং থানা হয়তো মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে এবং এই জনপদের মানুষগুলো অন্য থানার আশ্রিত মানুষ হিসাবে গণ্য হবে। দুই যুগ ধরে ভাঙনের শিকার ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারগুলো পদ্মায় জেগে ওঠা চরে আগামী মওসুমে বসবাস করার চিন্তা করছে। এসব পরিবারগুলো উঁচু সড়ক এবং মাঠের কাজে কোন রকমে একচলা করে অতি কষ্টে সময় পার করে আসছে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৮ সাল থেকে অদ্যাবধি এই থানার ৫৬টি মৌজা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ১২ হাজার পরিবার। এই পরিবারগুলোর সবাই ছিল স্বচ্ছল। পদ্মা গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়া জমির পরিমাণ প্রায় ১৫ হাজার একর। বর্তমানে এই থানার পদ্মার বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০ হাজার একর সম্পত্তি জেগে উঠেছে। কিন্তু ড্রেজার শাসনের কারণে এসব মানুষরা বড় বেশি ভেঙে পড়েছে। অভিযোগ উঠেছে, যুবলীগ নেতা আয়নাল গং গাওদিয়ায় তাদের মিশন শেষ করে বেজগাওয়ে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে।

যারা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করেছে তারা সবাই প্রভাবশালী বিধায় প্রতিবাদ করতে পারছে না তারা। তাই নীরবে নিভৃতে এসব মানুষগুলো ফেলছে চোখের জল। এই চক্রটিকে থামানো না গেলে সাধারণ মানুষ হয়ে পড়বে জিম্মি।

[ad#co-1]

Leave a Reply