আবদুর রহমান বয়াতীর চিকিৎসা বন্ধ

বর্তমানে প্রায় সব ধরনের চিকিৎসা বন্ধ রয়েছে লোকসংগীত শিল্পী আবদুর রহমান বয়াতীর। জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল এতদিন বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান করলেও বর্তমানে তা প্রায় বন্ধ। গত মাসের ১৭ তারিখ হাসপাতাল থেকে তাকে মাতুয়াইলের বাসায় নিয়ে আসা হয়। এদিকে হাসপাতাল কর্তৃক ১৭ তারিখ পর্যন্ত প্রতিদিন প্রায় ৩০০ টাকা মূল্যের ওষুধ খরচ বহন করলেও এখন তা বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন বয়াতীর মেজো ছেলে মোহাম্মদ আলম। দু’সপ্তাহেরও বেশি সময় ওষুধ খাওয়া বন্ধ থাকার কারণে আগের চেয়ে অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আবদুর রহমান বয়াতী। এর বাইরে ৭ মাসের ভাড়া বাকি রেখেই মাতুয়াইলের আরেকটি বাড়িতে উঠেছেন বয়াতী পরিবার। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সেই ভাড়া পরিশোধ করতে হবে। এদিকে পরিবারের নিজস্ব উদ্যোগে বয়াতীর চিকিৎসার জন্য যে ফান্ড গঠন করা হয়েছিল, সেই ফান্ডে একজন মাত্র ব্যক্তি প্রদান করেছেন দশ হাজার টাকা। এছাড়া আর কোন সূত্র থেকেই অর্থ আসছে না। একদিকে বিনা চিকিৎসা এবং অন্যদিকে ঋণের বোঝা- এসব মিলিয়ে বর্তমানে দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন আবদুর রহমান বয়াতী এবং তার পরিবারের সদস্যরা । এ বিষয়ে বয়াতী পুত্র আলম জানান, সবচাইতে বড় বিষয় হয়ে দেখা দিয়েছে এখন বাবার চিকিৎসা। এখন তার চিকিৎসা প্রায় বন্ধ। জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বাবার চোখের অপারেশন কিংবা কোন ধরনের চিকিৎসাই আর করতে রাজি নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে।

শুধুমাত্র ১৫ দিন পর পর একবার চেকআপ করিয়ে আসতে বলেছে তারা। কিন্তু ১৫ দিন পর পর যাওয়া আসার খরচটাও বহন করতে পারছি না আমরা। আর হাসপাতাল থেকে ওষুধও দেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তাই বিনা ওষুধে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাবা। আমার মনে হয় আর যদি এক মাস বাবাকে হাসপাতালে রাখা হতো তিনি বোধহয় সুস্থ হয়ে উঠতেন। এছাড়াও আমাদের পেশা ছিল গান-বাজনা। কিন্তু বাবা অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাও প্রায় বন্ধ। এখন আগের বাসার ভাড়া বাকি রয়েছে ৭ মাসের। এর বাইরেও ঋণও রয়েছে কিছু টাকা। এখন বাবার চিকিৎসা করাবো, নাকি সংসার চালাবো, না ঋণ পরিশোধ করবো ভেবে পাচ্ছি না। হয়তো বিনা চিকিৎসাতেই বাবার মৃত্যু হবে। কারণ কেউতো এগিয়ে আসছে না বাবার সহযোগিতায়। বাবা আবদুর রহমান বয়াতীর চিকিৎসার জন্য গঠিত ফান্ডে অর্থ প্রদানের জন্য সবার কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন মোহাম্মাদ আলম। একাউন্ট নম্বর- ৩৩০১৬৬৬৬, অগ্রণী ব্যাংক, হাটখোলা শাখা, ঢাকা।

[ad#co-1]

Leave a Reply