লঞ্চ মালিকের লোকজনের সাথে হোটেলে ভুরিভোজ সেড়ে চলে গেলেন

লঞ্চ দুর্ঘটনার ২০ দিন পর মাওয়ায় তদন্ত দল
মাওয়ায় লঞ্চ দুর্ঘটনার ২০ দিন পর বুধবার বিআইডব্লিউটি-এর তদন্ত দল সরজমিনে তদন্তে এসে লঞ্চ মালিক ও তাদের লোক জনের সাথে সৌহার্দপূর্ন আলোচনার পর হোটেলে বসে ভূরিভোজ সেড়ে চলে গেলেন । ঘটনাস্থল পরিদর্শন ছাড়াই তদন্ত দলের এরকম তদন্তে তাদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সুশীল সমাজ । লঞ্চ মালিক পক্ষের সাথে আলাপ করেই কি তদন্ত কাজ সম্পন্ন করা যাবে? এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে তদন্ত কমিটির সদস্যরা সাংবাদিকদের এড়িয়ে যান ।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর এল এম পারভীন নামে রুট পারমিট বিহীন একটি লঞ্চ সন্ধ্যার পর মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দি যাবার পথে লঞ্চ ঘাটের অদুরে টার্মিনালে ভেড়ানো একটি ফেরির সাথে ধাক্কা লেগে অনেক যাত্রী পদ্মা নদীতে নিখোঁজ হন। ঘটনার পর দিন নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান মাওয়ায় এসে নিখোজ যাত্রীদের পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দেন এবং নিখোঁজ যাত্রীদের জীবিত অথবা মৃতদেহ উদ্ধারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। ঘটনার ২ দিন পর পদ্মা নদী হতে মাওয়া নৌপুলিশ ফাড়ির সদস্যরা শরিয়তপুর জেলার জাজিরা থানার ছাব্বিশ পাড়া গ্রামের মৃত সামসুল মাদবরের পুত্র মানিক মাদবরের (৩০) লাশ উদ্ধার করে কোন প্রকার ময়না তদন্ত ছাড়া নিহতের আত্মীয় স্বজনের নিকট লাশ হস্তান্তর করে।একই জেলার পালং থানার দক্ষিন কেবল নগর গ্রামের মৃত হাছেন ঢালীর পুত্র যুবলীগ নেতা সেকান্দার ঢালীর (৩৫) লাশ নিজ উদ্যোগে তার আত্মীয় স্বজনরা পদ্মা নদী হতে উদ্ধার করে পুলিশে রিপোর্ট না করেই বাড়ি নিয়ে দাফন করে।নাম না জানা আপর এক যাত্রীর লাশও তার আত্মীয় স্বজনরা উধাও করে নিয়ে যায় বলে ঘাট সুত্রে জানা যায়।

মাওয়ায় লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৩ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হলেও বিআইডব্লিউটি-এর পক্ষ থেকে সেই সময়ে লাশ উদ্ধাারে কোন প্রকার পদক্ষেপ গ্রহন করতে দেখা যায়নি। নিখোজদের লাশ উদ্ধারে আত্মীয় স্বজনরাই নিজ নিজ উদ্যোগ গ্রহন করেছিলেন। একটি সূত্র থেকে জানা যায়, এতো বড় একটি দুর্ঘটনা ঘটলেও বিআইডব্লিউটি-এর বন্দর ও পরিবহন বিভাগ এবং সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর লোক দেখানো আলাদা আলাদা প্রতিবেদন সংশিষ্ট কার্যালয়ে জমা দেন। ২৫ সেপ্টেম্বর সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের নৌ পরিদর্শক আঃ হাই ঘটনাস্থলে এসে লঞ্চ মালিক কর্তৃক খুশি হয়ে চলে যান। ৩০ সেপ্টেম্বর মাওয়া নদী বন্দর কর্মকর্তা বাবু লাল বৈদ্দ ঢিলেঢালা একটি রিপোর্ট বিআইডব্লিউটি-এর পোর্ট শাখায় জমা দেন।

দীর্ঘ দিন অতিবাহিত হবার পরও সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর দুর্ঘটনা কবলিত রুট পারমিট বিহীন লঞ্চটির বিরুদ্ধে কোন প্রকার শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহন না করায় হতবাক হয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল। নৌরুটের যাত্রীদের মাঝে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। উলেখ্য নৌরুটে ৮১টি লঞ্চ চলাচল করলেও হাতে গোনা ২/৪ টি লঞ্চ মাস্টারদের প্রাতিষ্ঠানিক সনদ থাকলেও আর কোন লঞ্চ মাস্টারের বৈধ সনদ নেই এবং দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চ মাস্টারেরও কোন বৈধ কাগজপত্র ছিল না।তাছাড় এ নৌরুটের ৮১ টি লঞ্চের অধিকাংশেরই কোন প্রকার রুট পারমিট , ফিটনেস , প্রয়োজীয় লাইফ বয়া ছাড়াই চলাচল করছে।

ঘটনার ২০ দিন অতিবাহিত হবার পর গতকাল বুধবার সমুদ্র পরিবহন থেকে দুই সদস্যের তদন্ত কর্মকর্তা মাওয়া বন্দর কর্মকর্তাকে নিয়ে ৩ সদসের তদন্ত দল তদন্ত কাজ শুরু করে। মেরিন কোর্টের ম্যাজিষ্ট্রেট মশিউর রহমান , সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের নৌ পরিদর্শক আঃ হাই মাওয়ায় তদন্তে এসে অপর কর্মকর্তা মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা বালু লাল বৈদ্দকে নিয়ে দুর্ঘটনা স্থল পরিদর্শন ছাড়াই তদন্ত কাজ শুরু করেছেন। দুর্ঘটনা কবলিত লঞ্চের মালিক ও তার লোক জনের সাথে আলাপ করে মাওয়ায় হোটেল নিরালায় দুপুরের ভুরিভোজ সেড়ে তদন্ত কাজ সম্পন্ন করে চলে যান।এ ব্যাপারে সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের নৌ পরিদর্শক আঃ হাইয়ের সাথে আলাপ করতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের এড়িয়ে যান। বন্দর কর্মকর্তা বালু লাল বৈদ্দ জানান , তদন্ত শেষ না করে কিছু বলা যাবে না।
এখন সচেতন মহলের দেখার বিষয় তদন্ত দল দুর্ঘটনা কবলিত লঞ্চটির বিরুদ্ধে কোন ধরনের শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহন করেন। মাওয়ায় সন্ধ্যার পর পদ্মায় লঞ্চে খেয়াপারাপার নিষিদ্ধ থাকলেও রাত ৮ টার দিকে ছেড়ে যাওয়া ওই লঞ্চটির বিষয়ে কি পদক্ষেপ গ্রহন করবেন তদন্ত কমিটি। তাছাড়া রুট পারমিট ছাড়া লঞ্চটি এতো দিন ধরে কিভাবে চলে আসছিল এই নৌরুটে। এসকল বিষয়ে তদন্ত দল কি রিপোর্ট দেন তা দেখার জন্য অপেক্ষায় আছে সুশীল সমাজ।

[ad#co-1]

Leave a Reply