১২ ঘন্টা পর ডুবোচর থেকে ফেরি উদ্ধার

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট : মার্কার বয়াবাতি না থাকায় রাতে ফেরি চলাচল ঝুকিপূর্ণ
পদ্মায় নাব্যতা সংকটের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ডুবোচরে আটকে যাবার ১২ ঘন্টা পরে উদ্ধার করা হয়েছে একটি ফেরি। নদীর পানি হ্রাস পাওয়ায় নৌরুটে দীর্ঘ এলাকা জুড়ে দেখা দিয়েছে বড় বড় ডুবোচর। প্রতিদিন কোন না কোন ফেরি আটকা পড়ছে এসকল ডুবোচরে। নদীর তলদেশ ঘেষে নৌরুটে চলাচল করছে ফেরি। এতে ফেরির প্রপেলারসহ নানান ক্ষতি সাধন হচ্ছে। নৌরুটে বয়াবাতি ও যথাযথ মার্কার না থাকায় রাতে ফেরি চলাচল যেনো অধিক ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ঘাটে যানজট লেগেই থাকছে।

বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের এজিএম আশিকুজ্জামান জানান , কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়া আসার পথে নৌরুটের হাজরা চ্যানেলে ‘টাপল’ু নামের ফেরিটি বুধবার রাত ১১টার দিকে ডুবোচরে আটকে যায়। এসময় ফেরিটিতে ১০টি ট্রাক , ৩ টি বাস ও ৪ টি হালকা যানবাহনসহ দুই শতাধিক যাত্রী ছিল। গতকাল বৃহস্পতিবার দীর্ঘ ১২ ঘন্টা পরে বেলা ১১ টার দিকে টাপলুকে টাকবোর্ট দিয়ে টেনে ডুবোচর হতে উদ্ধার করে মাওয়ায় নিয়ে আসা হয়। তিনি আরো জানান, নৌরুটে বয়াবাতি ও যথাযথ মার্কার না থাকায় রাতে ফেরি চলাচল ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দিনের বেলায় ফেরি চালকরা মার্কার ছাড়া আন্দাজ করে ফেরি চালালেও রাতের বেলায় তা সম্ভব না হওয়ায় কোন না কোন ফেরি ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে। বিআইডব্লিউটিএ বয়াবাতি ও মার্কারের ব্যবস্থা করলেও জেলেদের জালে এসব মার্কার ও বাতি আটকে নৌ পথের চিহ্ন হাড়িয়ে যাচ্ছে বলে জানা যায়। এসব মার্কার ও বয়াবাতির যথাযথ ব্যবস্থা করা না হলে রাতের বেলায় ফেরি চালানো সম্ভব নাও হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে।
এদিকে ফেরিগুলোকে ধীরগতি ও দীর্ঘপথ ঘুের চলায় ঘাটে দেখা দিচ্ছে যানজট । প্রতিদিন কমবেশী যানজট লেগেই আছে। আর এসব যানজটে আটকা পড়ে যাত্রী সাধারণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিদিন।

[ad#co-1]

Comments are closed.