সময় গেলে সাধন হবে না …


‘এমন মানব সমাজ কবে গো ভবে সৃজন হবে?
যেদিন হিন্দু-মুসলমান, বৌদ্ধ-খ্রিস্টান জাতি-গোত্র ভেদ নাহি রবে’

মরমি সাধক লালন সাঁই আমাদের মানব সমাজের আত্মোপলব্ধির কাছে প্রশ্ন রেখেছেন আমরা কি জাতি-গোত্র ভেদ ভুলে এক জাতি, এক গোত্রের ছায়ায় দাঁড়াতে পারব কোনো দিন? মানবধর্মের দিশারি লালন সাঁই তার সব গানের মাধ্যমে আমাদের জীবনবোধের ভিন্নপথের সন্ধান দিয়েছেন। সেই পথে আছে আলোর সন্ধান, আছে আত্মতৃপ্তির অসীম বোধ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমরা বারবারই ভুলে যাই আমাদের আত্মার তৃষা। সেই হুশিয়ারিও তার ‘সময় গেলে সাধন হবে না, দিন থাকতে দিনের সাধন কেন করলে না?’ আর এই সাধনার জন্য প্রয়োজন মানব গুরুর। লালন সাঁইয়ের এই মানবতার পথকে আদর্শ ধরে তার বাণীকে অনুসরণ করতে অনেকেই আজও ছুটে চলে তার সাধক এবং শিষ্যদের দ্বারপ্রান্তে। প্রতি বছর নানাভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় লালন সাঁইয়ের বাণী প্রচারের লক্ষ্যে আয়োজন করা হয় সাধুসঙ্গের।

এমনই এক আয়োজন মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদীখান অঞ্চলের পদ্মহেম ধামের উদ্যোগে ‘লালন শাহ বটতলা মধুপূর্ণিমা সাধুসঙ্গ’। যেখানে দুই বাংলার লালন সাধকরা গুরুর বাণী প্রচারে জমায়েত হন। গানে গানে লালন সাঁইয়ের মহৎ বাণী পরিবেশন করেন ভক্তদের সামনে। লালন সাঁইয়ের জীবনদর্শন ফুটিয়ে তোলা হয় এসব গানের মাধ্যমে। বাউল ও সাধকরা লালন সাঁইয়ের গানের পাশাপাশি লালনদর্শন নিয়ে রচিত নিজেদের গানগুলোকেও তুলে ধরেন। ‘এমন মানবজনম আর কী হবে, মন যা করো ত্বরায় করো এই ভবে’ ফকির লালন সাঁইয়ের এই বাণীকে লক্ষ্য ধরে মুন্সীগঞ্জের পদ্মহেম ধাম প্রতি বছরের মতো এ বছরও ২২ ও ২৩ অক্টোবর আয়োজন করে সাধুসঙ্গের। এবারের আয়োজনের প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন সঙ্গীতশিল্পী আনুশেহ আনাদীল, কানিজ আলমাস খান, মুন্নী সাহা। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন সঙ্গীতশিল্পী রিংকু। এ সাধুসঙ্গে দুই বাংলার সাধু গুরুরা লালন গীত ও লালনের বাণী পরিবেশন করেন। এর সঙ্গে সঙ্গে লালনের জীবনের নানা ঘটনার আলোচনা-পর্যালোচনা করেন সাধুরা।

বাংলাদেশের লালনশিল্পীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দরবেশ নহীর শাহ, টুনটুন বাউল, রব বাউল, রাজ্জাক বাউল, আনুশেহ আনাদীল, রিংকু, কোনাল বাউল, বাউল তকরি হোসেন, বজলু শাহ, বুড়ি ফকিরানি, সমীর বাউল, আরিফ বাউল, রমজান ফকির, গোলাপী ফকিরানী। এছাড়াও কলকাতা থেকে এসেছিলেন খিজমত ফকির, সম্রাট বাউল, দিলীপ দাস, সুমন্ত বাউল, ভজন দাশ বৈরাগী প্রমুখ। সাধুসঙ্গের আহ্বায়ক কবির হোসেন বলেন, ‘লালন সাঁইয়ের গান ও বাণী মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে আমাদের এই আয়োজন।’ ‘যেখানে সাঁইজির বারামখানা সেখান থেকেই শান্তির পথ শুরু’ সাধকরা এই বিশ্বাস নিয়েই ইছামতির তীরে লালন শাহ বটতলায় একত্র হন প্রতি মধুপূর্ণিমার রাতে। সারারাত লালন সাঁইয়ের গান এবং বাণী ভক্তদের সামনে উপস্থাপন করেন সাধকরা। একতারার সুরে ভক্তরাও খুঁজে বেড়াতে থাকেন মানবতার পথ। রাতভর সাঁইজির গান পরিবেশন শেষে ভোরে শুরু হয় ভোজন সঙ্গীত। ভোরের শুদ্ধতাকে আরও পরিশুদ্ধ করে তোলে একতারা এবং মন্দিরার সুর। যে সুরে বারবার উচ্চারিত হয় মানবতার কথা। যেখানে সব ধর্মের, বর্ণের, গোত্রের মানুষকে একই পথে অর্থাৎ সত্যের পথে, সুন্দরের পথে, শান্তির পথে আহ্বান জানানো হয়।

লেখা : জাহিদুল হক পাভেল; ছবি :বাপ্পী
সমকাল
———————————————————————-

সাধুসঙ্গে তারার মেলা

ফকির লালন শাহ বাউল দর্শনের জনক। প্রায় দুই শতাধিক বছর আগে সাধারণ এক অজপাড়াগাঁয়ের কুঠিরে বসে যিনি সৃষ্টি করেছিলেন অভিনব এক মানবতাবাদী দর্শন। অচিন পাখির সন্ধানে তিনি রচনা করেছিলেন অসংখ্য পদ যা মানুষকে নতুন এক আধ্যাত্মিকতার সন্ধান দিয়েছে। পরম তত্ত্বের সন্ধানী লালন শাহ আজ বিশ্বব্যাপী পরিচিত। তার আদর্শ ধারণ করে নবীন সংগঠন সাধুসঙ্গ মুনশীগঞ্জের সিরাজদিখান বটতলায় গত চার বছর ধরে লালন উৎসব পালন করছে। তারই ধারাবাহিকতায় গত ২২ ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হল পঞ্চম লালন উৎসব। এবারের উৎসবের প্রতিপাদ্য ছিল ‘এমন মানবজনম আর কী হবে, মন যা করো ত্বরায় করো এই ভবে’। প্রতি বছরের মতো এবারও এই উৎসবে অংশ নিয়েছিলেন অনেক লালনভক্ত- তারকা। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন সংগীতশিল্পী রিংকু। অতপর মঞ্চে সাধুসঙ্গ, লালনের জীবন ও দর্শন নিয়ে আলোচনা করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমাররঞ্জন ঘোষ। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম, পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, সংগীতশিল্পী আনুশেহ আনাদিল, রূপ বিশষজ্ঞ কানিজ আলমাস খান ও সাংবাদিক মুন্নী সাহা। প্রতিদিন রাত ৯টায় শুরু হয় লালন সংগীতের মূল আসর। সাধুসঙ্গে দুই বাংলার সাধু-গুরুরা লালন গীত পরিবেশন করেন। বাংলাদেশের লালনশিল্পীদের মধ্যে ছিলেন_ দরবেশ নহীর শাহ, টুনটুন বাউল, রব বাউল, রাজ্জাক বাউল, আনুশেহ আনাদিল, সুমী, রিংকু, কোনাল, বাউল তকবির হোসেন, বজলু শাহ, বুড়ি ফকিরানী, সমীর বাউল, আরিফ বাউল, রমজান ফকির, গোলাপী ফকিরানী। কলকাতা থেকে এসেছিলেন_ খিজমত ফকির, সম্রাট বাউল, দিলীপ দাস, সুমন্ত বাউল, ভজন দাস বৈরাগী প্রমুখ। সাধুসঙ্গের আহ্বায়ক কবির হোসেন বলেন, ‘প্রতিবছরের মতো এবারও আমরা বেশ শান্তিপূর্ণভাবেই সাধুসঙ্গ পালন করতে পারব বলে আশা করছি। লালনের গান ও বাণী সাধারণ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে আমাদের এ আয়োজন।’

আলী আফতাব
বাংলাদেশপ্রতিদিন
——————————-
[ad#co-1]

Leave a Reply