শ্রীনগরের কামারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর উদ্বোধনের অপেক্ষায়

মামুনুর রশীদ খোকা, মুন্সীগঞ্জ
অমিতাভ সপ্তম শ্রেণীতে পড়ে। কাজেই মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি অমিতাভ। তবে অমিতাভ বঙ্গবন্ধুর নাম জানে, জানে জয় বাংলার কথা। শুনেছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বন্ধু বিশ্বখ্যাত রক দল বিটলসের অন্যতম সদস্য জর্জ হ্যারিসনের কথা। মুক্তিযুদ্ধের কথা জানতে চাওয়া মাত্র অমিতাভ বলতে শুরু করে, আমাদের মুক্তি সংগ্রামে সহযোগিতার স্বার্থে রক সঙ্গীত জগতের বিখ্যাত দল বিটলসের সদস্য জর্জ হ্যারিসন ও সহ-উদোক্তা রবিশঙ্কর মুক্তিযুদ্ধকালীন আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরের ম্যাডিসন স্কোয়ারে ‘দি কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ নামে একটি কনসার্টের আয়োজন করেছিল। গত শুক্রবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার মধ্য কামারগাঁও গ্রামে সরজমিনে মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবে গেলে আগত সপ্তম শ্রেণীর স্কুলছাত্র অমিতাভ মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাসের সচিত্র ছবিগুলো দেখে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে নানা তথ্য জেনেছে বলে সমকালকে জানাল তার কথা। জেলার শ্রীনগরে প্রমত্ত পদ্মা নদীর কোল ঘেঁষে মধ্য কামারগাঁও গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবে ‘মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর’ গড়ার এক অন্যন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। উন্মোচনের অপেক্ষায় মুন্সীগঞ্জের মধ্য কামারগাঁও গ্রামের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের।

ভেতরে ঢুকতেই দেখা গেছে স্কুল-কলেজ পড়ূয়া ছাত্র ও কয়েক মুক্তিযোদ্ধা টেলিভিশনে মুক্তিযুদ্ধের ভিডিও ফুটেজ দেখছেন আগ্রহভরে। কেউ কেউ দেখছেন মুক্তিযুদ্ধের সময় তোলা দুর্লভ ছবি। মধ্য কামারগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলাম খোকনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গড়ে উঠছে মুন্সীগঞ্জের ওই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। তিনি জানান, ১৭ বছর ধরে তিনি মুক্তিযুদ্ধের ওইসব ছবি সংগ্রহ করেছেন। তবে এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠায় গ্রামের সবারই কম-বেশি সহযোগিতা আর ইচ্ছা রয়েছে। এরই মধ্যে জাদুঘরের জন্য মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের ভবন নির্মিত হয়েছে গ্রামবাসীর টাকায়। ভবন হয়েছে, অসংখ্য ছবি শোভা পাচ্ছে দেয়ালে, টেলিভিশনে দেখানো হচ্ছে পাক হানাদার বাহিনীর মুক্তিযুদ্ধের বিভীষিকাময় সচিত্র প্রতিবেদন_ এসব দেখে বর্তমান প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ আর বঙ্গবন্ধুকে চিনবে-জানবে এমন মনোবাসনা থেকেই বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম খোকনের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর গড়ে তোলার প্রয়াস। প্রতিদিন বিকেল থেকেই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে দর্শনার্থীদের ঢল নামে। যদিও এখনও এই জাদুঘরের উন্মোচনই হয়নি। তবে খুব শিগগির মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের উদ্বোধন হতে যাচ্ছে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

দর্শনার্থীর কমতি নেই
মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরটি উদ্বোধন করা হয়নি এখনও। উন্মোচনের প্রতীক্ষায় থাকা এই জাদুঘরে তবু দর্শনার্থীর কমতি নেই। রাজধানী ঢাকার অধিবাসী মিয়া আবদুল হামিদ আজম মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে এসেছিলেন ওই দিন বিকেলে। তিনি জাদুঘরের পুরোটা কক্ষ ঘুরে ঘুরে দেখলেন। তিনি সমকালকে বলেন, সত্যি এক অসাধারণ উদ্যোগ এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। দুর্লভ সব ছবি এখানে দেখতে পেয়েছি। এখানে তুলে ধরা হয়েছে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। রাজধানীর ব্যবসায়ী সুলতান আলী গ্রামের বাড়ি ঘুরতে এসে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ঢুকতেই তার চোখ ছানাবড়া হয়ে গেল। তিনি বলেন, এ রকম উদ্যোগ নেওয়া দরকার দেশের প্রতিটি জেলায়। যদিও এটা একটি গ্রাম ও মুক্তিযোদ্ধার অসীম প্রয়াসে হয়েছে। তবে সরকারি পর্যায়ে জেলায় জেলায় মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরে নতুন প্রজন্মকে জানানো যেতে পারে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর কথা।

কীভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকা থেকে খুব কাছে শ্রীনগরে পদ্মার কোল ঘেঁষে এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের অবস্থান। ঢাকা-দোহার সড়কে ঢাকা থেকে ভাগ্যকুল ইউনিয়নের মধ্য কামারগাঁও গ্রামে এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে আসতে সময় লাগবে মাত্র এক ঘণ্টা। দূরত্বও ঢাকা থেকে ৩১ কিলোমিটার। ঢাকার গুলিস্তান থেকে শ্রীনগর বাজারের দূরত্ব ২০ কিলোমিটার। বাস-সিএনজিতে করে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে শ্রীনগর ছনবাড়ি চৌরাস্তায় নেমে রিকশাযোগে যাওয়া যাবে শ্রীনগর বাজারে। সেখান থেকে সিএনজি কিংবা স্কুটারযোগে ১১ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। কাজেই বেরিয়ে আসতে পারেন নয়নাভিরাম মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

[ad#co-1]

Leave a Reply