রিমান্ডের আবেদন উধাও!

মুন্সিগঞ্জে গজারিয়া উপজেলার একটি মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া আসামিদের রিমান্ডের আবেদন গায়েব (উধাও) হয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রিমান্ডের আবেদনটি গায়েব হওয়ায় আসামিরা সহজেই জামিন পেয়েছেন বলে মামলা বাদীপক্ষের আইনজীবী জানিয়েছেন। সূত্র জানায়, গত ২৬ সেপ্টেম্বর মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়াঘাটের কাছে গজারিয়া ফিড কারখানায় ভাঙচুর ও টাকা ছিনতাইয় হয়। এ ঘটনায় ১ অক্টোবর কারখানার সহকারী মহাব্যবস্থাপক এম আলতাফুল করিম বাদী হয়ে গজারিয়া থানায় আটজনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার প্রধান তিন আসামি শরীফ মাহমুদ, আবুল খায়ের ও গিয়াসউদ্দিনকে সম্প্রতি ঢাকা থেকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। গত শুক্রবার তাঁদের ঢাকা কারগার থেকে মুন্সিগঞ্জ কারগারে আনা হয়।

ওই কারখানার সহকারী ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) এ বি এম জালাল জানান, গ্রেপ্তার করা আসামিদের সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গত রোববার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে আবেদন করেন। ওই দিন আসামিপক্ষও জামিনের আবেদন করে। গতকাল সোমবার রিমান্ড ও জামিনের শুনানির দিন ধার্য করা হয়। গতকাল জামিনের শুনানি হলেও রিমান্ডের শুনানি হয়। কারণ গতকাল মামলার নথি আদালতে বিচারিক হাকিমের কাছে উপস্থাপন করা হলেও তাতে রিমান্ডের আবেদন ছিল না। ফলে আসামিরা সহজেই জামিন পেয়ে যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. হাশিম উদ্দিন প্রথম আলোকে জানান, ‘সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আমি আদালতে আবেদন করি। রিমান্ড হয়েছে কি না বলতে পারব না। কারণ, আমি গতকাল আদালতে ছিলাম না।’

আদালতের উপপরিদর্শক (সিএসআই) মোহাম্মদ আলী জানান, তদন্ত কর্মকর্তা রিমান্ডের আবেদন করলেও তাতে সহকারী পুলিশ সুপারের সই না থাকায় আবেদন ফেরত যায়। তাই গতকাল রিমান্ডের শুনানি হয়নি। তদন্ত কর্মকর্তার ভুলের কারণে এটা হয়েছে।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী গৌতম দাস বলেন, গতকাল রিমান্ডের শুনানি হয়নি। কারণ, রিমান্ডের আবেদন মামলার নথিতে ছিল না। সেটা গায়েব করে দেওয়া হয়েছে। রিমান্ডের আবেদনে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সই থাকলেই চলে। ওই আবেদনে ভারপ্রাপ্ত কর্মকতার স্বাক্ষর ছিল।

সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সাহেদ ফেরদৌস জানান, রিমান্ডের আবেদনে সার্কেল এএসপির সইয়ের দরকার হয়।

[ad#co-1]

Leave a Reply