হাবিবের সামনের এক বছর

সুদর্শন তো বটেই, স্বদেশী সংগীতের এআর রাহমান হিসেবেও হাবিবকে বিবেচনা করেন অনেকে। শেষ সাত বছরে প্লেব্যাক- জিঙ্গেল-অডিও গান আর স্টেজ শো নিয়ে নিজেই যেন নিজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগুচ্ছেন তর তর গতিতে। বরাবরই কোলাহল মুক্ত স্টুডিওমুখী হাবিব। ঠিক প্রচার বিমুখ না হলেও ভিডিও ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে খুব একটা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না তিনি।

টিভি পর্দায় কালে- ভাদ্রে ক্ষণিকের জন্য তাকে পাওয়া গেলেও ভিজ্যুয়াল মিডিয়ার দাপটের এই যুগে হাবিব বরাবরই নিজেকে রেখেছেন সংগীতের ভিতরে সংযত। সংগীতের বাইরে অন্য কোন হাতছানি খুব একটা কাবু করতে পারেনি তাকে, এমনকি বিয়ে বন্ধনের দোরগোড়ায় এসে মডেল মোনালিসার সঙ্গে প্রেমের হাতছানিটাও ব্যর্থ হয়েছে অতি সমপ্রতি। তবে, শুধু সংগীতকে সঙ্গী করে জাগতিক হাতছানিকে উপক্ষো করে হাবিবের অগ্রযাত্রা ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী। তারই ধারাবাহিকতায় তিনি এবার এক বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হলেন বাংলালিংকের সঙ্গে।

এ পর্যন্ত অনেক হাতছানি উপেক্ষা করলেও বাংলালিংকের এবারের হাতছানিটা উপেক্ষা করতে পারেননি তিনি। গত ৫ই নভেম্বর বাংলালিংকের সঙ্গে টানা এক বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হলেন তিনি। এখন থেকে হাবিব প্রতিষ্ঠানটির ব্র্যান্ড এম্বাসেডর। ঠিক কত টাকার বিনিময়ে এই চুক্তি সম্পাদন হয়েছে সে বিষয়ে অস্পষ্টতা থাকলেও চুক্তির শর্তগুলো প্রায় স্পষ্ট। এখন থেকে আগামী ৫ই নভেম্বর ২০১১ সাল পর্যন্ত হাবিবকে নানা আঙ্গীকে নানা মাত্রায় তার ভক্ত-দর্শক-শ্রোতারা খুঁজে পাবেন বাংলালিংকের মোড়কে। এ প্রসঙ্গে হাবিব একটু মজা করেই বলেন, আসলে শর্তগুলো সহ্যক্ষমতার মধ্যে ছিল বলেই চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। তাছাড়া মনে আছে নিশ্চয়ই, আমার প্রথম মিক্সড প্রজেক্ট ‘ময়না গো’ এই বাংলালিংকের মোড়কেই বাজারে আসে।

সে সময় বাংলালিংকের এমন আইডিয়া এবং অ্যালবামটির সফলতা আমাকে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত করে। এর পর বাংলালিংকের বেশির ভাগ জিঙ্গেলের কাজ আমাকেই করতে হয়েছে। সবমিলিয়ে বাংলালিংকের প্রতি আমার যেমন ভালবাসা তৈরি হয়েছে তেমনি আমার উপরেও প্রতিষ্ঠানটি বেশ ভরসা করতে পারছে। আগেও আমরা একসঙ্গে ছিলাম এখনও আছি, থাকবো। এদিকে হাবিব আরও জানান, বাংলালিংকের সঙ্গে এক বছরের এই চুক্তির শর্তে রয়েছে একটি একক, দেশজুড়ে সাতটি ওপেন এয়ার কনসার্ট, চারটি বিজ্ঞাপনচিত্রের মডেল-জিঙ্গেল এবং বাংলালিংকের অসংখ্য বিলবোর্ডে স্থান পাবে তার স্থিরচিত্র বিজ্ঞাপন। জানা যায়, এরই মধ্যে হাবিবকে নিয়ে বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণের পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া নতুন বছরের আগেই বাংলালিংকের ব্যানারে হাবিবের বেশ কিছু চমক উপহার আসছে জনসমুক্ষে।

এদিকে এমন চুক্তির পরপরই বাতাসে ভাসছে আরেকটি খবর। অনেকেই হলফ করে বলছেন, এই এক বছরে বাংলালিংকের বাইরে হাবিব আর কোন কাজ করতে পারবেন না। হাবিবের গান-বিজ্ঞাপন-জিঙ্গেল-মডেলিং-স্টেজশো, এখন থেকে সবকিছুই হবে বাংলালিংকের শর্ত ধরে তাদের ব্যানারে। ফলে এক বছরের জন্য হাবিবের হাত-পা বাঁধা!

এ প্রসঙ্গে হাবিব বলেন, এক অর্থে কথাগুলো হয়তো সত্যি। আমি এখন বাংলালিংকের ব্র্যান্ড এম্বাসেডর। ফলে আমাকে বাংলালিংকের দিকটাও দেখতে হবে। তাই বলে গানটাতো আমার বন্ধ হচ্ছে না। আগেও আমি বাংলালিংকের জিঙ্গেল তৈরি করতাম, এখনও করবো। আগেও আমি বছরে একটি একক দিতাম। এবারও সেটাই দিচ্ছি। আগেও বছরে সাত থেকে দশটা বড় কনসার্ট করতাম। এবারও তাই হচ্ছে। হাবিব আরও বলেন, এই এক বছরের মধ্যে একক-জিঙ্গেল আর কনসার্ট মিলিয়ে অনেক কাজ। আমাকে এগুতে হবে রুটিন ধরে। এই একটি বছর অনেক বড় চ্যালেঞ্জের। চুক্তিতে বাইরের কাজ নিয়ে কোন বাধা নেই, ইচ্ছা থাকলেও বাইরের কাজ করবো কেমন করে! এখন তো আমার কাছে সামনের বছরটাকে মনে হচ্ছে মাত্র কয়েক সপ্তাহের মতো!

[ad#co-1]

Leave a Reply