মুন্সিগঞ্জে কোটি টাকার টেন্ডারবাজি

বৃহস্পতিবার জেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরে টেন্ডারবাজি হয়েছে। প্রায় কোটি টাকার এই টেন্ডার নিয়ে একটি চক্র সক্রিয় পাহাড়া বসায়। যার দরুন এখানে টেন্ডার জমা দিতে এসে ফিরে যান অনেক প্রতিষ্ঠান। সকাল থেকে টেন্ডার জমা দেয়ার জন্য দফায় দফায় চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হন। পুলিশ অফিস প্রাঙ্গনে মোতায়েন থাকলেও তারা কৌশলে এরিয়ে যান। অফিসের সবগুলো সড়কে তীক্ষ্ম পাহাড়ার মাধ্যমে সিডিউল জমা দিতে আসা লোকজনকে শাসিয়ে দেয়া হয়। এক জন ভেতরে ঢুকে গেলে টেন্ডারচক্রটি মোবাইল বন্ধ রেখে আটকিয়ে টেন্ডারের সময় পাড় করে দেয়া হয়। দেশের খ্যতনামা প্রতিষ্ঠান আরএফএল এই টেন্ডারবাজির ঘটনায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, “পল্লী অঞ্চলে বিশুদ্ধ খাবার পানি মালামাল সরবরাহ” প্রকল্পের ৯৪ লাখ টাকার টেন্ডার জমার সময় ধার্য বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা। তিনি জানান, এই কাজে ৮টি সিডিউল বিক্রি হলেও জমা পড়ে ৪টি। জমাকৃত সিডিউলের ৪টিই উর্ধ্বদর। প্রাক্কলন ব্যয় ৯৪ লাখ টাকা হলেও এই টেন্ডারে জমাকৃত সর্বনিন্ম দরদাতা হচ্ছে ৯৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে কোটি টাকার বেশীও পড়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, ওপেন টেন্ডার জমা হলে সমদর বা নিন্ম দরে টেন্ডার দেয়া সম্ভব হতো। এই টেন্ডার বাজির বিষয়ে বেলা সোয়া ১২টায় সদর থানার ওসি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তিনি জানান, এখানে পর্যাপ্ত পুলিশ ছিল কোন সমস্যা হয়নি। কিন্তু বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান টেন্ডার জমা দিতে না পেরে ফিরে আসা ব্যাপারে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পরেননি। পুলিশের আরেকটি সূত্র জানিয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের পরিচয়ধারী কতিপয় টেন্ডার সেন্ডিগেট এই টেন্ডারবাজি করে। টেন্ডারবাজিই এই চক্রটির এখন পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply