বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নিয়ে পদ্মার উত্তর-দক্ষিণ লড়াই

জাকির হোসেন
নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কোথায় নির্মাণ করা হবে এ নিয়ে চলছে পদ্মা নদীর পাড়ে লড়াই। এ লড়াইয়ে রাজনীতিবিদসহ ওই অঞ্চলের সাধারণ জনগণ জড়িয়ে পড়েছেন। বিশ্বের আধুনিক সুবিধাসম্পন্ন ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’ নামের বিমানবন্দরটি পদ্মার উত্তর পাড়ের মানুষ চান মুন্সীগঞ্জ জেলায় হোক। অন্যদিকে পদ্মার দক্ষিণ পাড়ের মানুষ চান বৃহত্তর ফরিদপুরের মাদারীপুর অথবা শরীয়তপুর জেলায় হোক।

এই বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য এ প্রকল্পের প্রাক-সম্ভাবত্যা সমীক্ষা কমিটি প্রাথমিকভাবে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার আমিরাবাড়ীকে সুপারিশ করেছিল; কিন্ত ত্রিশালের জনগণের বিরোধিতা ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের আপত্তির কারণে নতুন স্থানের সন্ধানে নামে বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর বাস্তবায়ন সেল। প্রধানমন্ত্রীও নতুন স্থান খোঁজার জন্য নির্দেশ দেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে ময়মনসিংহের ত্রিশালের গুরুত্ব কমে যায়। নতুন স্থান হিসেবে মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর ও শরীয়তপুরকে বেছে নেয়া হয়। ইতিমধ্যে সমীক্ষা কমিটি নতুন স্থান পরিদর্শন করেছেন। এ নিয়ে পদ্মার দুপাড়ের মানুষের মধ্যে আগ্রহ যেমন বেড়েছে, তেমনি নিজ নিজ অঞ্চলে যাতে বিমানবন্দরটি হয় তা নিয়ে রীতিমতো লড়াই শুরু হয়েছে। এ লাড়াইয়ে শামিল হয়েছেন রাজনীতিবিদসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।
এ সম্পর্কে নৌপরিবহনমন্ত্রী ও মাদারীপুর-২ আসনের এমপি শাজাহান খান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দেশের দক্ষিণাঞ্চলে চাই। এটি শুধু তার একার দাবি নয়, পুরো দক্ষিণাঞ্চলের জনগণের দাবি।

তিনি বলেন, এটি টাঙ্গাইলের চেয়ে দক্ষিণাঞ্চলে হওয়াই শ্রেয়। আর মুন্সীগঞ্জ ঢাকার খুব কাছে। অদূর ভবিষ্যতে এ জেলা ঢাকার সঙ্গে এক হয়ে যাবে। তাই বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বৃহত্তর ও আধুনিক এ বিমানবন্দরটি পদ্মার দক্ষিণ পাড়েই হওয়া দরকার। এতে অবহেলিত দক্ষিলাঞ্চলে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগবে। মংলা বন্দরের মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্য আরো ত্বরান্বিত হবে। যদিও বিমানবন্দরের কারনে প্রস্তাবিত পদ্মা সেতুতে খরচ একটু বেশি লাগবে।

এদিকে জাতীয় সংসদের হুইপ মুন্সীগঞ্জের স্থানীয় এমপি বেগম সাগুফতা ইয়াসমিন বলেন, তিনি ব্যক্তিগতভাবে এবং ওই এলাকার মানুষ চান বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর মুন্সীগঞ্জে হোক। এতে আউটপুট অনেক হবে। কারণ ঢাকা-মুন্সীগঞ্জের দূরত্ব যতটুকু আছে একটা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এতটুকু দূরত্বে হওয়াই উচিৎ। পদ্মার ওপার হলে দূরত্ব অনেক হবে। খুব সুবিধাজনক হবে না।

তিনি বলেন, মুন্সীগঞ্জ ঢাকার কাছে হওয়ায় বিদেশি রাষ্ট্রীয় মেহমানসহ অন্যরা খুব সহজে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যদের সঙ্গে বিভিন্ন কার্য সম্পাদন করতে সুবিধা হবে। ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে। তবে বঙ্গবন্ধুর নামে এ বিমানবন্দর বিভিন্ন দিক চিন্তাভাবনা করেই কোন জায়গায় হবে তা ঠিক করা দরকার।
বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নিয়ে পদ্মার দুই পাড়ের মানুষের আগ্রহ অনেক বেশি। মুন্সীগঞ্জের সাধারণ মানুষ যে কোনো মূল্যে পদ্মার উত্তরপাড়ে বিমানবন্দরটি চান। এ নিয়ে তারা যে কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তত। অন্যদিক ফরিদপুর, মাদরীপুর, শরীয়তপুরের মানুষ পদ্মার দক্ষিণ পাড়ে চান। তারা বলেন, দীর্ঘদিনের অবহেলিত দক্ষিণাঞ্চলের মানুষকে উন্নয়নের সুষম সুযোগ দিতে হবে। এ বিমানবন্দর পদ্মার দক্ষিণ পাড়ে না হলে তারা আন্দোলনে নামবেন বলে জানান।

এ সম্পর্কে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের স্থান নির্বাচন নিয়ে তার নেতৃত্বে একটি টিম ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও ফরিদপুরে সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেছেন। কমিটি সবদিক বিবেচনা করে কোথায় বিমানবন্দরটি নির্মাণ করা যায় সে লক্ষ্যে সরকারের কাছে সুপারিশ করবে। এরপর সরকার যেখানে সিদ্ধান্ত নেয় সেখানেই হবে।

আধুনিক প্রযুক্তি ও সুবিধাসম্পন্ন বিশ্বমানের নতুন একটি বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে। ৫০ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) মাধ্যমে নির্মিতব্য এ বিমানবন্দরটির নাম রাখা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’। ২০১০ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রকল্পটির বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে।
বাংলাদেশে বিমান চলাচল উল্লেখযোগ্যভাবে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। মোট বিমানযাত্রীর প্রায় ৮০ ভাগই হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে যাতায়াত করে থাকে। এখানে মাত্র একটি রানওয়ে। বছরে এর যাত্রী পরিচালনা ক্ষমতা ৮০ লাখ। ক্রমবর্ধমান বিমানযাত্রীর তুলনায় এটা অপ্রতুল। আবার টার্মিনাল ভবনে স্থান সংকীর্ণতার কারণে পাঁচ স্তরবিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করা অসম্ভব, যা আইসিএও-এর সুপারিশ অনুযায়ী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে আবশ্যক। এছাড়া এ বিমানবন্দরের চারদিকে আবাসিক এলাকা এবং সেনানিবাস থাকায় ভবিষ্যতে ব্যাপক পর্যায়ে বিমানবন্দর সম্প্রসারণ করা সম্ভব নয়।

পাকিস্তান আমলে যখন এ বিমানবন্দরটির পরিকল্পনা করা হয় তখন ঢাকা শহরের লোকসংখ্যা ছিল ৩০ লাখ। বর্তমানে এ শহরের লোকসংখ্যা ২ কোটি। ওই সময় বিমানবন্দরে দ্বিতীয় কোনো রানওয়ে সৃষ্টির কোনো জায়গাও রাখা হয়নি। বন্দরটিতে সংকট রয়েছে বিদ্যুৎ, পানি, পয়ঃনিষ্কাশন, পরিবেশগত সুবিধা, পার্কিং সুবিধাসহ নানা কিছুতে। সত্যিকার অর্থে পুরো বিমানবন্দরটি বিমানের জন্য সাময়িক বাসস্থান; কারণ এখানে মাস্টারপ্লান অনুসরণ করা হয়নি। তাই বিমান চলাচল খাতে ভবিষ্যতের বর্ধিত চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার রাজধানী ঢাকার অদূরে একটি নতুন বিশ্বমানের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর স্থাপনের বিষয়ে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিমানবন্দরটির নাম ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’ রাখার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মতি দিয়েছেন। বিমানবন্দরটি সরকারের একটি অগ্রগণ্য প্রকল্প হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। এ অবস্থায় দ্রুত বাস্তবায়নে প্রশাসনিক মন্ত্রণালয় হিসেবে বিমান মন্ত্রণালয় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জন্য সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। স্থানগুলো হলো ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ত্রিশাল, আমিরাবাড়ী, মোক্ষাপুর এবং মঠবাড়ী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার ২৬০০ হেক্টর জমি। দ্বিতীয়টি ত্রিশাল উপজেলার রামপাল, কানিহারী, কাঁঠাল ও বৈলা ইউনিয়নের ২৬০০ হেক্টর জমি। তৃতীয়টি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর এলাকায় নদী তীরবর্তী (৩০ কিমি লম্বা এবং ১০ কিমি চওড়া) চর এলাকা। চতুর্থ মুন্সীগঞ্জের আড়িয়াল বিল, শরীয়তপুরের জাজিরা, মাদারীপুরের রাজৈর, ফরিদপুরের ভাঙ্গা উল্লেখযোগ্য।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রয়োজনীয় যেসব আধুনিক সুযোগ-সুবিধা থাকবে তা হলো আধুনিক জাম্বো বিমান তথা এয়ারবাস ৩৮০ চলাচলে সক্ষম রানওয়ে ২টি এবং অবতরণের জন্য তৃতীয় অপর একটি রানওয়ে। সমান্তরাল ট্যাক্সিওয়ে ও অ্যাপ্রোন। ৩ লাখ যাত্রী পরিবহনের সুবিধাসম্পন্ন প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল কমপ্লেক্স। পর্যাপ্ত সংখ্যক গেট। পর্যাপ্ত স্থানবিশিষ্ট ডিউটি ফ্রি শপ। এনার্জি সাশ্রয়ী উপাদান। পাঁচ তারকা হোটেল এবং তিন তারকা ট্রানজিট হোটেল। পর্যাপ্ত উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল টাওয়ার। আধুনিক এবং সমন্বিত নিরাপত্তা সিস্টেম ও টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক।

আরো থাকবে রাজধানীর সেঙ্গ যোগাযোগ স্থাপনের জন্য রেল ও বাস স্টেশন। এয়ারপোর্ট কমার্শিয়াল সিটি। বহুতলবিশিষ্ট কার পার্কিং। কার্গো ভিলেজ। এয়ারক্রাফট ব্যবস্থাপনা হ্যাংগারস। বিজনেস সেন্টার ও টুরিস্ট স্পট। বিদ্যুৎকেন্দ্র, পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ও অন্যান্য সিস্টেম। গৃহায়ন, শপিংমল, খেলার মাঠ ইত্যাদি সুবিধা সংবলিত আধুনিক পরিকল্পিত নগর।

[ad#bottom]

Leave a Reply