সিএনজি সিলিন্ডারটি যথাযথ স্থাপন না হওয়ায় বিস্ফোরণ

গজারিয়ায় নিহতদের পরিবারে এখনও কান্নার রোল
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল ॥ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মাইক্রোর সিএনজি সিলিন্ডারে আগুন লেগে চার আরোহী জীবনত্ম দগ্ধ হওয়ার কারণ নির্ণয়ে প্রশাসন এখনও নীরব। দেশের বিভিন্ন স্থানে সিএনজিচালিত যান দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে। কিন্তু এমনভাবে আগুনে পুড়ে যাত্রীদের মারা যাওয়ার ঘটনা বিরল। তবে এই দুর্ঘটনায় কেন আগুনের ঘটনা? এই প্রশ্নের উত্তর জানার আগ্রহ অনেকেরই।

জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পেট্রোবাংলার কোম্পানি আরপিজিসিএল-এর (রূপানত্মরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি লিমিটিড) সিএনজি ডিভিশনের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল মুকিত ঘটনাস্থল ঘুরে এসে রবিবার রাতে জানান, মাইক্রোটিতে সিএনজি সিলিন্ডারটি যথাযথভাবে স্থাপন না করার কারণেই মর্মানত্মিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি জানান, নিয়ম অনুযায়ী ফিল্ম ভাল্ব থেকে সিলিন্ডারে গ্যাস যাবে। পরে সিলিন্ডারের শাট অব ভাল্ব থেকে গ্যাস যাওয়ার কথা ইঞ্জিনে। কিন্তু খরচ কমানো বা অজ্ঞতার কারণে ফিল্ম ভাল্ব থেকে একটি পয়েন্ট গ্যাসলাইন টেনে নিয়েছে সরাসরি ইঞ্জিনে। এতে চাকার ঘর্ষণে স্ফুলিঙ্গ থেকে গ্যাস লিকের স্থানে আগুন লেগে যায়। গ্যাস সিলিন্ডারের নিচে একটি কাঠের মেঝে থাকার কারণে আগুন ছড়াতে সহজ হয়। এই মেঝেটি কাঠের হওয়ার কথা নয়, লোহার মেঝে ব্যবহারের নিয়ম রয়েছে। এই দুর্ঘটনায় শাট আপ ভাল্ব এবং সিলিন্ডার অক্ষত রয়েছে।
বিশেষজ্ঞরা জানান, গাড়িতে সিএনজি স্থাপনের এমন সব ত্রম্নটির কারণে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা থেকে যায়। তাই দ্রম্নত এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ জরম্নরী। নিহতদের পরিবারে এখনও চলছে কান্নার রোল।

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেছেন, সিলিন্ডারের পাইপে লিক ছিল। যে পাইপে করে ইঞ্জিনে গ্যাস যায়, সে পাইপ লিক করার কারণেই আগুন ধরে যায়। তবে সিলিন্ডারটিতে বিস্ফোরণ ঘটেনি। তিনি জানান, ঘটনাটি ব্যতিক্রম। তবে এখনও এ ব্যাপারে কোন তদনত্ম কমিটি হয়নি। প্রশাসনের গুরম্নত্বপূর্ণ ব্যক্তিরাও সেখানে যাননি। কিন্তু এই অস্বাভাবিক দুর্ঘটনাটি নিয়ে কৌতূহলী তিনিও।

ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, এই আগুনের ঘটনায় এখানে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। প্রত্যক্ষদশর্ীদেরও এই আগুন নিয়ে নানা প্রশ্ন। একটি সিএনজি স্টেশনের কাছেই এই দুর্ঘটনাটি ঘটায় সেখানে রক্ষিত আগুন নির্বাপক যন্ত্র ব্যবহার করেও শেষরক্ষা হয়নি।

উলেস্নখ্য, শনিবার দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গজারিয়া উপজেলার বলুয়াকান্দি শেরআলী পেট্রোল পাম্পের কাছে মাইক্রোবাসের সিএনজি সিলিন্ডারে আগুন লেগে পিতা ও কন্যাসহ একই পরিবারের চার আরোহী জীবনত্ম দগ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। ৯ সিটের এই মাইক্রোটিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর থেকে পরিবারের লোকজন সৌদি থেকে দেশে ফেরা স্বজনকে আনতে যাচ্ছিল।

[ad#bottom]

Leave a Reply