ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদকারীকেই জীবন দিতে হবে?

প্রতিবাদী শিক্ষক মিজানুর রশিদ এবং ফরিদপুরের এক মা চাঁপা রাণীকে জীবন দিতে হয়েছে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদের কারণে। এর আগে ইভটিজিংয়ের বলি হয়ে শুধু নারীদেরই আত্মহননের পথ বেছে নিতে হয়েছে। এবার জীবন দিলেন একজন জনপ্রিয় আদর্শ শিক্ষক এবং একজন আদর্শবাদী মা। বর্তমানে রাজধানীসহ সারা দেশে নারীদের উত্ত্যক্ত করার বিষয়টি কোন ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে তা ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদকারীদের অকাতরে প্রাণ দেয়া থেকেই অনুমেয়। মানবাধিকার সংগঠনগুলোর তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে, চলতি বছরের প্রথম পাঁচ মাসে ইভটিজিংয়ের কারণে আত্মহত্যা করেছে ১৬ জন কিশোরী। পরিসংখ্যানটি ভয়াবহ সন্দেহ নেই। এভাবে ইভটিজিংয়ের শিকার হয়ে আর কতো শিক্ষক-কিশোরীদের প্রাণ দিতে হবে? এ ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সমাজ সচেতন ব্যক্তিবর্গ কারো কি কিছু করার নেই? সমাজের এই দুষ্টক্ষত সারাতে সংশ্লিষ্টরা কি কোনো ভূমিকা রাখবেন না? আমি সংবাদ মাধ্যমে জেনেছি নাটোরের লোকমানপুর মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রীদের প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতো এলাকার বখাটে যুবক আসিফ ও তার বন্ধু রাজন। তাদের এ ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করেন শিক্ষক মিজানুর রশিদ এবং বিষয়টি তিনি কলেজ পরিচালনা পরিষদকেও অবহিত করেন। আর এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১২ অক্টোবর ঐ দুই বখাটে বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল উঠিয়ে দেয় মিজানুর রশিদের ওপর। এ ঘটনায় মারাত্মক আহত মিজানুরকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পর অবস্থার অবনতি হলে তাকে বিএসএমএমইউতে আনা হয়। এখানেই টানা ১২ দিন মিজানুর জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থেকে গত রোববার মারা যান। আর এর কয়েকদিন পরেই একই কারণে মারা যান চাঁপা রাণী। ইভটিজিং যে আমাদের সমাজে কতোটা ভয়ঙ্কররূপে আবির্ভূত হয়েছে তা শুধু শিক্ষক মিজানুর এবং চাঁপা রাণীর মৃত্যুই নয় এটা বুঝা যাবে সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত চোখ রাখলে। আমি উল্লেখ করতে চাই, সংবাদ মাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবর খুব কমই আসে। লোকলজ্জা কিংবা বখাটেদের হামলার আশঙ্কা থাকায় ইভটিজিংয়ের শিকার নারী এবং তার অভিভাবকরা সহজে এর প্রতিবাদ করতে চান না। আর এ বিষয়ে আমাদের সমাজে সচেতনতাও যথেষ্ট নেই। শিক্ষকসহ অভিভাবকরা যারা এর প্রতিবাদে সোচ্চার হন তাদেরও যদি প্রতিবাদ করতে গিয়ে প্রাণ দিতে হয় তাহলে এর প্রতিকার কী?

প্রশাসনের নির্লিপ্ততার দরুনই দেশজুড়ে বখাটেদের উৎপাত দিনকে দিন বেড়ে চলেছে এমন অভিযোগ ভুক্তভোগীদের পরিবার থেকে হরহামেশা শোনা গেলেও কোনো প্রতিকার না মেলাটা দুঃখজনক। কিন্তু এভাবে বখাটেদের উৎপাতের জন্য একদিকে নারীদের আত্মহনন অন্যদিকে এর প্রতিবাদকারীদের ওপর হামলা কি চলতেই থাকবে?

প্রশাসনেরই কি উচিত নয় এ ধরনের অপরাধের ক্ষেত্রে নিজ থেকেই উদ্যোগী হয়ে ব্যবস্থা নিয়ে অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করা? এভাবে সমাজের এই ঘৃণ্য অপরাধটিকে তো আর জিইয়ে রাখা যায় না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তৎপর হতে হবে সর্বাগ্রে। এগিয়ে আসতে হবে সমাজের সচেতন সকল মানুষকে। সামাজিক প্রতিরোধ গঠনের পাশাপাশি সচেতনতামূলক বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে হবে। তবে জোরালোভাবে এগিয়ে আসতে হবে প্রশাসনকেই। এই ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডলোর সঙ্গে বখাটেদের অবিলম্বে গেপ্তার করা হোক।

শফিক মেহেদী, সিরাজদীখান, মুন্সীগঞ্জ।

[ad#bottom]

Leave a Reply