হারিয়ে গেছে ধলেশ্বরীর বহু প্রজাতির মাছ

মুন্সীগঞ্জের কোল ঘেঁষে বয়ে যাওয়া প্রমত্তা ধলেশ্বরী নদীতে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন জাতের মাছের প্রজনন ও জীবন বৈচিত্র্য। ইতিমধ্যে বিলুপ্তি হয়ে গেছে বহু প্রজাতির মাছ। এক সময় এই নদীতে প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন জাতের মাছ পাওয়া যেতো। যেমন ঘইন্যা, ভাগনা, নান্দিনা, বাটা, গুলসা, বাতাসি, কাশ খাইরা, সরপুঁটি, মহাশোল, লোহা সুরা, কাঁচকি, এঠুটা, দারকিনা, অঞ্জু, কই বান্দি, নেকতানী, রানী, কান পোলা, পটকা, মোরামি, ভোল খকসা, ঘাউরা, বাচা, কাজুলি, শিলং, রিটা, পাংগাস, চিতল, বোয়াল, বাঘাইল ও চেকা। কালের আবর্তে ইতিমধ্যে হারিয়ে গেছে এর বেশির ভাগ মাছ। এসকল মাছ তো পাওয়া দূরের কথা এ নদীতে কোন মাছই বাঁচতে পারছে না।

পরিষ্কার সাদা পানি বিভিন্ন ময়লা আবর্জনায় দূষিত হয়ে পানি নর্দমায় পরিণত হয়ে ধলেশ্বরীর পানি নীল হয়ে যাচ্ছে। নদীর আশপাশে গড়ে ওঠা বিভিন্ন সিমেন্ট ফেক্টরির ক্লিংকারের ধোঁয়া ও কেমিক্যাল যুক্ত বর্জ্য সরাসরি নদীতে ফেলা হচ্ছে। এছাড়াও বুড়িগঙ্গা ও শীতলক্ষ্যার দূষিত পানি ধলেশ্বরী নদীতে এসে মিশার কারণে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ময়লা আর্বজনায় ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে, পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। কিছুদিন আগেও এখানে চিংড়ি, বাতাসি, পোয়া, ও লাল চেউয়া পাওয়া যেত। কিন্ত এখন আর সেই মাছ জেলেদের জালে আটকা পড়ছে না। নদীর পানি দূষিত হয়ে যাওয়ায় নদীর তলদেশেও পানিতে এক ধরনের গ্যাসের সৃষ্টি হচ্ছে তাই কিছুদিন পর পর নদীর এসব মাছ মরে ভেসে উঠছে। আগে এখানকার মাছ ধরার দৃশ্য ছিল উৎসবমুখর। জেলেরা প্রচুর পরিমাণে মাছ পেতো। নদীর দু’পাশ জুড়ে শ’ শ’ ছোপ ফেলা হতো।

শীত আসার সঙ্গে সঙ্গেই এসব ছোপ থেকে ধরা হতো প্রচুর পরিমাণে মাছ। কিন্ত এখন আর সেই মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে অনেক জেলে বেকার হয়ে পড়েছেন। ধলেশ্বরীর লঞ্চ ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায় জেলেরা মাছ ধরার চাই ও নৌকা লঞ্চ ঘাটের পন্টুনের জেটির নিচে জমায়েত করে রেখে দিয়েছে। নদীতে চাই ফেললেও মাছ ওঠে না। কখনও কিছু মাছ পাওয়া গেলেও তা বাজারে বিক্রি করে খরচ পরিমাণ টাকা উঠছে না। তাই মাছ ধরার এসব সরঞ্জাম উপরে তুলে রাখা হয়েছে। কেউ কেউ মাছ ধরার জন্য চাঁদপুরের মেঘনা নদীর দিকে চলে যাচ্ছে। ধলেশ্বরী নদীর পাশেই নদীর তাজা মাছ বিক্রির জন্য গড়ে উঠেছে বউ বাজার কিন্তু জেলেদের কাছে নদীর মাছ না থাকায় এ বাজারটিও দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে।

হাট লক্ষীগঞ্জ এলাকার জেলে শহিদুল্লাহ বলেন, পানি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় নদীতে কোন মাছ পাওয়া যায় না তাই এখন বেকার জীবনযাপন করছি। পরিবার পরিজন নিয়ে থাকতে হচ্ছে অর্ধাহারে অনাহারে। লঞ্চ ঘাটের চা দোকানদার আহসানউল্লাহ বলেন, আগে ধলেশ্বরী নদীতে ছোপ ফেলে মাছ ধরতাম, পেতামও অনেক। বর্তমানে ২০০ গজের মধ্যে একটি ছোপ ফেলতে কমপক্ষে ১ লাখ টাকা লাগে কিন্ত নদীতে মাছ না থাকায় অমাদের লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে। তাই এখন মাছ না ধরে নদীর পারেই চা’র দোকান দিয়ে বসেছি। মাছ ব্যবসায়ী মইজদ্দিন বলেন, এ নদীতে এখন মাছ না পেয়ে লোকসানের হাত থেকে বাঁচতে চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে ছোপ ফেলছি, তবে এতে খরচ বেড়ে গেছে অনেক। জেলে জালাল উদ্দিন জানান, এ নদীতে মাছ না থাকায় বর্তমানে ষাটনল এলাকায় মেঘনা নদীতে মাছ ধরছি। মনির হোসেন জানান, মাছ পাই না বলে চাই ও নৌকা ডিঙ্গায় তুলে রেখেছি, বেকার জীবনযাপন করছি।

[ad#bottom]

Leave a Reply