মাদরাসা শিক্ষকের কাণ্ড!

শিক্ষক হাফেজ মো. ফোরকান হাওলাদার এক নারীর সর্বনাশ করে গাঢাকা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা হয়েছে। দায়ের করা মামলায় প্রতারক এই শিক্ষক গ্রেপ্তার হয়ে ৮ দিন জেলে থাকার পর জামিনে মুক্তি পায়। পরে অসহায় এই নারীর আইনজীবী আসামির সঙ্গে আঁতাত করে সাক্ষী অনুপস্থিত রাখায় মামলাটি খারিজ হয়ে যায় বলে সূত্র জানায়।

পরে অন্য আইনজীবীর মাধ্যমে মুন্সীগঞ্জ দায়রা জজ আদালতে ফৌজদারি রিভিশন মামলা দায়ের করেন। ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর থানার পুটিয়াখালী গ্রামের মো. ছোহরাব হাওলাদারের পুত্র এই মাদ্রাসা শিক্ষক এখন নিজ গ্রামে গিয়ে নতুন করে বিয়ে করেছেন। এদিকে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার পোড়াচক বাউশিয়া গ্রামের বিধবা শাহিনুর বেগমের পাওনা ৫০ হাজার টাকা এখনও ফেরত দিচ্ছেন না। পাশাপাশি তাকে স্ত্রীর মর্যাদাও দেননি। প্রতারণার মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই বিয়ের পর ঘরসংসার করে তিনি এখন লাপাত্তা। বিয়ের কাবিন না থাকায় স্ত্রীর মর্যাদার জন্য আইনি লড়াইও করতে পারছেন না এই অসহায় নারী। এক সন্তানের জননী অসহায় শাহিনুর বেগম (২৯) রোববার মুন্সীগঞ্জ প্রেস ক্লাবে এসে তার দুঃখের কথা সাংবাদিকদের জানিয়ে বলেন, ‘আমি এই লম্পটের বিচার চাই।’

তিনি জানান, তের বছর আগে ছেলেকে গর্ভে রেখে স্বামী নুরু মিয়া মারা যান। এরপর অনেক দুঃখকষ্টের গ্লানি পার করে নিজেকে রক্ষা এবং ছেলেকে লালন পালন করি। সেই একমাত্র পুত্র নুরু আলমকে (১৩) দ্বীনের শিক্ষার জন্য ওই মাদ্রাসায় ভর্তি করি। এই সূত্র ধরে লম্পট এই শিক্ষক বাড়িতে এসে নানা কৌশল গ্রহণ করে। নানা রকমের তাবিজ কবজের ভয়ভীতি দেখিয়ে অসহায়ত্ব আর সরলতার সুযোগ নেয়। একপর্যায়ে বিয়ে করে। কিন্তু কাবিননামার ব্যাপারে শুরু করে গড়িমসি। ৯ মাস ঘর-সংসারের পর ব্যবসার কথা বলে শেষ সম্বল ৫০ হাজার টাকা নিয়ে সে পালিয়ে যায়।

কুমিল্লা জেলার মেঘনা থানার লুটেরচর মফিজুল ইসলাম দুদু মিয়া কওমি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাকালেই এসব অপকর্ম চালায় সে। এ ব্যাপারে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ জানায়, অভিযোগ পাওয়ার পরই হাফেজ মো. ফোরকান হাওলাদারকে বরখাস্ত করা হয়েছে। মাদ্রাসার সঙ্গে এখন তার কোন সম্পর্ক নেই।

[ad#bottom]

Leave a Reply