গজারিয়ায় হত্যাযজ্ঞ

শাখাওয়াত সরকার, গজারিয়া থেকে: ১৯৭১ সালের ৯ই মে পাকসেনারা পরিকল্পিতভাবে গজারিয়ায় চালায় নির্মম হত্যাযজ্ঞ। প্রায় ৩৬০ জন মানুষকে গুলি করে হত্যা করার ঘটনা গজারিয়াবাসী আজও ভুলতে পারেনি সেদিনের কথা। বুলেটের আঘাতে সৃষ্ট খত নিয়ে আজও বেঁচে আছেন গ্রামের বহু নারী-পুরুষ। গজারিয়ার মুক্তিযোদ্ধারা ২নং সেক্টর কমান্ডার মেজর খালেদ মোশাররফ এবং মেজর হায়দারের নেতৃত্বে যুদ্ধ করে।

ওই সময় মুক্তিযোদ্ধারা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ভাটেরচর ব্রিজ ভাঙতে যান। সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকসেনাদের মুখোমুখি যুদ্ধ হয়। শক্তিশালী মর্টার ও আর্টিলারি আক্রমণ পাকসেনারা টিকতে না পেরে পালিয়ে মেঘনার পূর্ব পাড়ে সোনারগাঁয়ে আশ্রয় নেয়। সেখানে গোলাগুলিতে ৭ জন পাকসেনা নিহত হয়। ৫ জন পাকসেনা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে ধরা পড়ে। সেদিনই ২টি শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভাটেরচর ব্রিজটি ভেঙে নদীতে ফেলে দেয়া হয়। বিচ্ছিন্ন হয় পড়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যোগাযোগ ব্যবস্থা। ১লা সেপ্টেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের আনারপুর, আলীপুর ব্রিজ বোমার আঘাতে ভেঙে ফেলা হয়। ১১ই সেপ্টেম্বর বাউশিয়া ঘাটে পাকসেনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে প্রচণ্ড যুদ্ধে ৯ জন পাকসেনা মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে আত্মসমর্পণ করে।

২ দিন পর মেঘনা নদীতে আরও ১০ জন পাকসেনা মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে ধরা পড়ে। পুনরায় ডিসেম্বরের ৩ তারিখে ভাটেরচর বেইলি ব্রিজটি ভাঙার জন্য মুক্তিযোদ্ধারা এগিয়ে গেলে পাকসেনাদের সঙ্গে যুদ্ধ হয়। দুর্ভাগ্যক্রমে মুক্তিযোদ্ধাদের গোলাবারুদ ফুরিয়ে গেলে বাধ্য হয় পিছু হটতে। ওইদিনই পাকবাহিনীর শক্তিশালী ১টি ব্রাশফায়ারে ১৩ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ৭ই ডিসেম্বর ভবেরচর কাঠের ব্রিজ ভাঙার সময় ১০ কিশোরকে হত্যা করে পাকসেনা। ৮ই ডিসেম্বর বাউশিয়া ঘাটে পাকসেনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের অবিরাম গুলিবর্ষণে ১২ জন পাকসেনা, ১ জন মুক্তিযোদ্ধা মারা যান। এক পর্যায় পাকসেনারা পিছু হটে যায়। ৯ই ডিসেম্বর কুয়াশাচ্ছন্ন ভোরে পাকসেনাদের গুলিতে শহীদ হন কমান্ডার নজরুল। ১৪ই ডিসেম্বর, সেদিন পাকবাহিনীর ২টি গানবোট গোলাবারুদ অস্ত্র নিয়ে দাউদকান্দি যাবার পথে গজারিয়া থানার গর্জন সরকার কান্দি (কালীপুর) গ্রামের সামনে সকাল ১০.৩০টায় মিত্রবাহিনীর বিমান হামলায় গানবোট ২টি মেঘনা নদীতে নিমজ্জিত হয়। এ খবর বাংলাদেশ বেতার থেকে প্রচারিত হবার সঙ্গে সঙ্গে গজারিয়া মুক্তিযোদ্ধারা মেঘনা নদীতে গিয়ে বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ অস্ত্র উদ্ধার করে।

গানবোটের প্রায় ৫শ’ পাকসেনা সাঁতার কেটে নদীর পাড়ে উঠতে সক্ষম হয়। তারা মেরুমোল্লাবান্দি গ্রামে আশ্রয় নেয়। এ সময় পার্শ্ববর্তী বাঘাইয়াকান্দি থেকে মুক্তিযোদ্ধা এরিয়া কমান্ডার মনির হোসেন ও সৈয়দ আহমেদ মাস্টার ৩০-৪০ জন মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে পাকসেনাদের মোকাবেলা করে। এ সময় পাকসেনাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে ছুড়তে মুক্তিযোদ্ধারা এগিয়ে যায়। কোন উপায় না পেয়ে পাক সেনারা বিপুল অস্ত্রসহ আত্মসমর্পণ করে।

গুলিবিদ্ধদের দিনলিপি

একাত্তরের ৯ই মে গুলিবিদ্ধ হয়ে অনেকে এখনো অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে জীবনযাপন করছেন। কেউবা মৃত্যুর প্রহর গুণছেন। আবার চিকিৎসার জন্য সর্বস্ব বিক্রি করেছেন অনেকে। গোসাইরচর গ্রামের ষাটোর্ধ্ব আরাফাত আলী সিকদারের পিঠে এখনো গুলিবিদ্ধের ক্ষত চিহ্ন। দেশ স্বাধীন হয়েছে কিন্তু এখনো পিঠে গুলির ছাপ মুছেনি। অসুস্থ আরাফাত আলী চিকিৎসা চালাতে জমিজমা বিক্রি করে এখন ভাঙা কুঠিরে বসবাস করছেন। মনোয়ারা বেগম (৬০) গুলিবিদ্ধ হয়ে পঙ্গু জীবনযাপন করেছেন। হানাদার বাহিনীর গুলির আঘাতে তার বাম পা অচল হয়ে যায়। ঘাতকরা তার স্বামীকেও হত্যা করে। গুলিবিদ্ধ জামিরুন নেসা এখন মৃত্যুর প্রহর গুণছেন। পঙ্গু অবস্থায় জীবনযাপন করছেন বিগত ৩৯ বছর যাবৎ। জামিরুন এখন বয়সের ভারে ভারাক্রান্ত। চা ও রুটি কলার দোকান দিয়ে কোন রকম জীবনযাপন করছেন সেদিনের যুবক আবুল হোসেন (৬০)। সোনালী মার্কেটে রয়েছে তার চায়ের দোকান। পাকবাহিনী ১৫ জন যুবককে ধরে নিয়ে পল্টন সড়কের খালে পাশে সারিবদ্ধভাবে গুলি চালালে তার পিঠে গুলিবিদ্ধ হয়। আবুল হোসেন পার্শ্ববর্তী খালে ঝাঁপ দিয়ে প্রাণ বাঁচান।

[ad#bottom]

Leave a Reply