আইনমন্ত্রীর পদত্যাগ এবং…

রাহমান মনি
কিছুতেই যেন কাটতে চাচ্ছে না জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান-এর শনির দশা। জাপানের আইনমন্ত্রী মিনোরু ইয়ানাগিদা (Yanagida Minoru)-এর একটি মাত্র মন্তব্যকে কেন্দ্র করে জাপান পার্লামেন্ট এবং বাইরের রাজনৈতিক অঙ্গনে তুলকালাম কা- ঘটে অবশেষে পদত্যাগে বাধ্য হয়েছেন। যদিও তার বক্তব্যের পর ক্ষমতাসীন দল ডিপিজের চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি ইয়োশিতো সেনগোকু তাকে তার কার্যালয়ে ডেকে স্বীয় পদের মর্যাদা, দায়িত্ব এবং বাক্য ব্যয়ে সংযম হওয়ার জন্য সতর্ক করে দেন। তারপরই ১৭ নবেম্বর পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে নিজ বক্তব্যে দুঃখ প্রকাশ করে মিনোরু ইয়ানাগিদা বলেন, ‘আমার বক্তব্যটিতে বিচক্ষণতার অভাব ছিল, এই ধরনের বক্তব্য দেয়া থেকে আমি বিরত থাকব। আমি আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী। আমি ডায়েটে আমার স্বীয় পদের দায়িত্বশীল আচরণের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।’ কিন্তু বিরোধী দলের সংসদ সদস্যগণ এতে খুব একটা সন্তুষ্ট না হয়ে বরং ইয়ানাগিদাকে আক্রমণ অব্যাহত রাখেন। প্রধান বিরোধী দল এলডিপির সঙ্গে যোগ দেন অন্যান্য ছোটখাটো দলগুলোর সদস্যরা। কোমেইতো দলের নেতারা বলেন, একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রীর মুখ থেকে এমন বেফাঁস মন্তব্য খুবই উদ্বেগজনক এবং তার বক্তব্যে প্রমাণ করে যে, নাওতো কান-এর প্রশাসনের গাম্ভীর্য বলতে কিছুই নেই। এলডিপির ডায়েট এ্যাফেয়ার্স প্রধান ইচিরো আইজাওয়া মন্তব্য করে বলেন, এই রকম বাক্য ব্যয়ের পর ক্যাবিনেট পদে থাকার যোগ্যতা তিনি হারিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৪ নবেম্বর রবিবার জাপানের আইনমন্ত্রী কিনোরু ইয়ানাগিদা তার নিজ নির্বাচনী এলাকা হিরোশিমায় দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে এক রাজনৈতিক বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমি যদি শুধুমাত্র দুইটি প্রবাদ মনে রাখি তাহলে আইনমন্ত্রী হিসেবে আমার দায়িত্ব পালনটা খুবই সহজ হয়ে যায়। পার্লামেন্টের যে কোনো কঠিন প্রশ্নের উত্তরে আটকে গেলে সহজেই আমি তার জবাব দিতে পারি।’ প্রবাদ দুটি হলো ‘আমি এ বিষয়ে এখন কোন ধরনের মন্তব্য থেকে বিরত থাকব এবং অপরটি হলো আমরা প্রমাণ সাপেক্ষে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।’

ব্যস, আর যায় কোথায়। এই বক্তব্যেই প্রধান বিরোধী দল লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এলডিপি) রাজনৈতিক ময়দান এবং উচ্চকক্ষ। তারা আইনমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে সংসদের সঙ্গে তামাশা করার তুলনা করেছেন। তাতেই নড়েচড়ে বসেছে কান প্রশাসন। চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি তার অফিসে মন্ত্রীকে তলব করে ভর্ৎসনা করেন।

তারপরও সব বিরোধী দল এক হয়ে ইয়ানাগিদার বিরুদ্ধে উচ্চকক্ষে তিরস্কার এবং নিম্নকক্ষে অনাস্থা প্রস্তাব আনার প্রস্তুতি নেন। প্রস্তাব পাস হওয়ার পরও যদি ইয়ানাগিদা পদত্যাগ না করেন তাহলে চলতি বছরের অতিরিক্ত বাজেট আলোচনার আগামী অধিবেশন বয়কট করার হুমকিও দেন। ফলে সরকারি দলেরও একাধিক সদস্যের তোপের মুখে পড়েন ইয়ানাগিদা। তারা বলেন, সরকারি দলের এমন নাজুক পরিস্থিতিতে ইয়ানাগিদার এমন মন্তব্য করা সরকারের জন্য বিব্রতকর। তারা মনে করেন, বিরোধী দল যদি উচ্চকক্ষে তিরস্কার প্রস্তাব আনে তাহলে তা সহজেই পাস হয়ে যাবে। কারণ উচ্চকক্ষে বিরোধী দল সংখ্যাগরিষ্ঠ এবং তার প্রভাব নিম্নকক্ষের অনাস্থা প্রস্তাবেও পড়বে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

তবে কেউ কেউ আবার বিষয়টিকে ভাবছেন অন্যভাবে। ক্ষমতাসীন ডিপিজের কোনো কোনো নেতা মনে করেন মিনোরু ইয়ানাগিদার পদত্যাগ বিরোধী দলের বিজয় হবে এবং ভবিষ্যতে অন্য মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনতে বিরোধী দলকে উৎসাহিত করবে যেটা সরকার পরিচালনায় বাধাগ্রস্ত করবে।

যদিও ইয়ানাগিদা আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেছেন, আমি কখনোই ডায়েটকে হালকা করে দেখিনি। আমি আইনমন্ত্রী হিসেবেই আমার দায়িত্ব আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করে যেতে চাই। আন্তরিকভাবেই ডায়েটের তর্ক-বিতর্কে অংশ নেব। তিনি আরো বলেন, আমি কখনোই ডায়েটে কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকৃতি জানাইনি। আমার দায়িত্বের প্রতি আমি বরাবরই নিষ্ঠাবান।

ক্ষমা প্রার্থনা করে কাজ চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ, চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারির ভর্ৎসনা কোনো কিছুই শেষপর্যন্ত ধোপে টিকেনি বিরোধী দলের অনড়তার কাছে। অবশেষে ২২ নবেম্বর দায়িত্ব পাওয়ার মাত্র ২ মাসের মাথায় ইয়ানাগিদাকে পদত্যাগ করতে হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান-এর পরামর্শে। যদিও এ ছাড়া অন্য কোনো রাস্তা খোলা ছিল না প্রধানমন্ত্রী কান-এর কাছে। কারণ ক্ষমতাসীন দলটির জনপ্রিয়তা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে বিভিন্ন কারণে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা অবশ্য বিষয়টিকে দেখছেন অভিজ্ঞতার অভাব হিসেবে। সুধীজন বা সমালোচকগণ যে যাই বলুক না কেন, ইয়ানাগিদা যে বিরোধী দলের চাপের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন তাতে কারোর কোনো সন্দেহ নেই। কারণ বিরোধী দলের প্রস্তাব পাস হলেই কান বিব্রতকর অবস্থায় পড়তেন। এখন কিছুটা হলে স্বস্তিতে রয়েছেন নাওতো কান।

৫৬ বছরের মধ্যবয়স্ক রাজনীতিবিদ ইয়ানাগিদা পদত্যাগপত্রে বলেছেন, জনস্বার্থে বিষয়টি উপলব্ধি করে এবং ডায়েটে অতিরিক্ত বাজেট পাস করার প্রতিবন্ধকতা যেন সৃষ্টি না হয় সেই কারণে বিরোধী দলের চাহিদার প্রতি সম্মান দেখিয়ে এই পদত্যাগ। প্রধানমন্ত্রী কান পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন।

নতুন নিয়োগ না দেয়া পর্যন্ত চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি ইয়োশিতো সেনগোকু তার দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসেবে আপাতত এ দায়িত্ব পালন করবেন বলে সরকারি সূত্রে জানা যায়।

অপরদিকে এলডিপি প্রেসিডেন্ট সাদাকাজু তানিগাকি তার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ইয়ানাগিদার পদত্যাগ তাদের দাবিকৃত শর্তগুলোর একটি মাত্র। তাদের জন্য দাবিগুলোর অন্যতম হলো ফান্ড কেলেঙ্কারির জন্য ডিপিজের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইচিরো ওজাওয়াকে জবাবদিহিতার জন্য ডায়েটে তলব করা।

বিচারমন্ত্রী মিনোরু ইয়ানাগিদার পদত্যাগ নাওতো কান সরকার আরো একবার নাজুক অবস্থার মধ্যে যে পড়েছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তিনি এমন এক সময়ে পদত্যাগ করলেন যখন নাওতো কানের নেতৃত্বাধীন জাপানের কোয়ালিশন সরকার মন্দা অর্থনীতি, বেকার সমস্যা, চীন-রাশিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ইত্যাদি বিষয় নিয়ে দারুণ চাপের মধ্যে রয়েছেন।

অবশ্য বেফাঁস কথা বলার দায়ে এই প্রথম পদত্যাগ কিংবা হৈচৈ নয়। এর আগেও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্যক্তি বেফাঁস কথা বলার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন এবং সমস্যায়ও পড়েছিলেন। ক্ষমা প্রার্থনা করে অনেকেই কাটিয়ে উঠেছেন। অবশ্য বেফাঁস কথা বলার পরিবেশ এবং পরিস্থিতির ওপর অনেকটা নির্ভর করে। একজন সাধারণ মানুষ যে কথা বললে মুখে শোভা পায় সেই একই কথা একজন দায়িত্বশীল লোকের মুখে শোভা পায় না। আবার একজন দায়িত্বশীল লোকের মিটিং-মিছিলে যে সব কথা মার্জনীয় সেই একই কথা কোনো আন্তর্জাতিক সভা কিংবা নিজ দেশের সংসদে বলা অমার্জনীয়। গুরুতর অপরাধ।

বেফাঁস কথা বলায় ইতোমধ্যে বিখ্যাত হয়েছেন জাপানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তারোউ আসোউ (২০০৮-৯-২৬ থেকে ২০০৯-৯-১৬)। তিনি বিভিন্নভাবেই জাপানে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে মাঙ্গা পড়তেন নিয়মিত। তিনি জাপানি লেখার মাধ্যম ‘কাঞ্জি’ জানতেন কম কিংবা পারদর্শী নন। ১৯৭৯ সালে এক নির্বাচনী সভায় প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে দলীয় সমর্থকদের সাধারণ জনগণ সম্বোধন করে প্রথম সমালোচিত হন। ১৯৮৩ সালে সাংবাদিকরা তাকে ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী অভিহিত করণে তার জবাবে তিনি ‘দলীয় কিছু সংখ্যক নেতা মারা গেলে আমি প্রধানমন্ত্রী হতে পারি’ বলে সমালোচনার মধ্যে পড়েন।

১৯৮৩ সালে প্রধানমন্ত্রী ওয়াতানাবে মিচিও জাপানি দেউলিয়াদের আমেরিকায় দেউলিয়াদের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, কোনো জাপানি যদি দেউলিয়া হয়ে যান তাহলে তিনি মানসিকভাবেও ভেঙ্গে পড়েন। তার আচরণে অসহায়ত্বের প্রকাশ পায়। কিন্তু একজন আমেরিকান বিশেষ করে কানোরা যখন দেউলিয়া হন তখন তারা আরো বেশি বেশি বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। তার বিরুদ্ধে বর্ণ বৈষমের সমালোচনার ঝড় ওঠে।

১৯৮৬-১২-২২ সালে প্রধানমন্ত্রী নাকাসোনে ইয়াসুহিরো তৎকালীন ক্ষমতাসীন দলের সিজুওকা এক হোটেলে বর্ধিত সভায় জাপানকে আমেরিকার সঙ্গে তুলনা করে বলেন, ‘আমেরিকায় বিভিন্ন দেশের লোক সমাগমে বিশেষ করে মেক্সিকো, আফ্রিকান কানোরা বাস অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। সেই হিসেবে জাপান অনেক শান্তিতে আছে। এখানে কানোদের কোনো উপদ্রব নেই।’ আমেরিকার স্থান জাপানের অনেক নিচে মন্তব্য করলে সমালোচিত হন।

১৯১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী মুরাইয়ামা তোমিইচি হানসিন আওয়াজি দাই সিনসাই (কোবে ভূমিকম্প) মোকাবিলায় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে অপ্রস্তুতভাবে বলে বসেন ‘এই রকম দুর্ঘটনা আমার জীবনে প্রথম। তাই বুঝে উঠতে পারছি না কিভাবে, কোথা থেকে শুরু করতে হবে।’ আর যায় কোথায়। প্রধানমন্ত্রীর যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে তার বিরুদ্ধে।’

২০০৩-৬-২০ কাগোসিমা কেন-এ অনুষ্ঠিত ‘জনসংখ্যা বৃদ্ধি’ এক সেমিনারে ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা সংঘটিত এক গ্রুপ গণধর্ষণের প্রশ্নের জবাবে স্থানীয় সংসদ সদস্য বলেন তাদের পাওয়ার আছে বলতে হবে। এইভাবে হতে থাকলে জাপানকে আর জনসংখ্যার সমস্যায় পড়তে হবে না।

জনসংখ্যা ক্রমবর্ধমান হ্রাসের ফলে একই সুরে কথা বলতে গিয়ে কঠিন সমালোচনায় মুখে পড়েন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আরে’র ক্যাবিনেট সেক্রেটারি ইয়ানগিজাওয়া হাবুও। কম কথা বলা এবং মিষ্টভাষী আরেক ক্যাবিনেট সেক্রেটারি ইয়ানগিজওয়া ছিলেন বেশি কথা বলার লোক। নারী জাতিকে তিনি বাচ্চা উৎপাদন কারী মেশিন উল্লেখ করে বলেন, ‘নারীরা হচ্ছে বাচ্চা উৎপাদনের মেশিন। আর এই মেশিনের কার্যকারিতার সঠিক সময় হচ্ছে ২০ থেকে ৩৫ বছর পর্যন্ত। এ সময়টাতে মেয়েরা বেশি বেশি বাচ্চা জন্ম দিতে পারে। কিন্তু বর্তমানে জাপানে ২০ থেকে ৩৫ বছর বয়সের মেয়েরা বিবাহ বন্ধনে আগ্রহী নয়। তাই বাচ্চাও উৎপন্ন হচ্ছে না। জনসংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। এটা খুবই উদ্বেগের। সঙ্গে সঙ্গেই প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। নারী সংগঠনগুলো প্রতিবাদে ফেটে পড়ে।

জাপানের জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রীদের একজন হলেন কোইজুমি জুনইচিরো। তাৎক্ষণিক উত্তর দেয়ার জন্য তিনি প্রসিদ্ধ ছিলেন। ২০০৪ সালের ৩ জুন ডায়েটে মিনসিতো দলের প্রেসিডেন্ট ওকাদা কাৎসুইয়ায় অবসরকালীন ভাতা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তাৎক্ষণিক উত্তরে তিনি ওকাদার কাছে জানতে চান তোমার কোম্পানিতে তো অনেক লোক চাকরি করে। তারা সবাই ভিন্ন ভিন্ন কাজ করে। কিন্তু অবসর ভাতা গ্রহণের সময় তো সবাই সমান ভোগ করে। জীবন ধারণে যেমন ভিন্নতা আছে, কর্মে ভিন্নতা আছে, কোম্পানি তৈরিতে ও ভিন্নতা আছে কিন্তু অবসরকালীন ভাতা সবাই ভোগ করতে চায়। ডায়েটে যেন কথার বদৌলতে তিনি সমালোচিত হন।

প্রধানমন্ত্রী ফুকুদা সব সময় বলতেন আমি সবার চেয়ে আলাদা। তাই সমালোচকরা সব সময় তার সমালোচনায় পঞ্চমুখ ছিলেন।

২০০১ সালের ১৯ জুলাই। জাপানের প্রধানমন্ত্রী মোরি ইয়োসিরোউ ওয়াশিংটন সফরকালে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের সঙ্গে প্রথম শুভেচ্ছা বিনিময়ে স্মরণকালের সবচেয়ে বেফাঁস কথাটি বলে বসেন অজ্ঞতার জন্য। সফরসঙ্গী এবং সাংবাদিকগণ মোরিকে প্লেন থেকে নামার পর ক্লিনটনের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় হাত বাড়িয়ে ‘হাউ আর ইউ’ অর্থাৎ তুমি কেমন আছো এই প্রশ্নটি জানতে চাওয়া, ক্লিনটনের উত্তর হবে আমি ভালো আছি তুমি কেমন আছো এমন সম্ভাব্য প্রশ্নের উত্তরে মি টু অর্থাৎ আমিও বলতে হবে। মোরি মুখস্থ করে নেয় সবকিছু। মনে মনে এবং বাস্তবেও কয়েকবার আউরিয়ে নেন।

কিন্তু বিপদ ঘটে মোরি যখন ক্লিনটনের দিকে হাত বাড়িয়ে হাউ আর ইউর বদলে হু আর ইউ বলে বসেন। বিচক্ষণ ক্লিনটন মোরিয় প্রশ্নের উত্তরে বলেন আমি হিলারির হাজবেন্ড। তুমি কে? মোরি তখন আমিও অর্থাৎ মি টু বলে ইংরেজি পাবার তৃপ্তির ঢেঁকুর তোলেন। কিন্তু সফরসঙ্গী এবং সাংবাদিকদের দৃষ্টি এড়াতে না পারায় বিভিন্ন সমালোচনার মুখে পড়েন মোরি। টিভিতে এ নিয়ে অনেক টকশো হয়।

সন্ত্রাসীদের সন্ত্রাসের শিকার হয়ে ঢাকার বাড্ডাতে যখন শিশু মারা যায় তখন আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন বলেন, আল্লাহর মাল আল্লাহ নিয়া গেছে। কিংবা ভোলায় লঞ্চডুবিতে প্রচুর প্রাণহানি ঘটলে নৌপরিবহনমন্ত্রী কর্নেল আকবর বলেন, মরেছে তো কি হয়েছে, প্রত্যেক পরিবারকে একটি করে ছাগল দিয়ে দিলেই পুষিয়ে যাবে। এমন কথার জন্য তার পদত্যাগ দাবি করলে কর্নেল আকবর বলেছিলেন রাজ্যের সকল কাজ আমাকে করতে হয়। আমি যদি পদত্যাগ করি তাহলে এই কাজগুলো কে করবে?

আর বর্তমান সরকারের মন্ত্রীদের বেফাঁস কথার যত কম সমালোচনা করা যায় ততই মঙ্গলজনক। নিজের জন্য তো বটে-ই। দেশের জন্যও। নিজের জন্য হলো মামলা, জেল-জুলুমের হাত থেকে বাঁচা, মামলা-হামলা না হলেও নিদেনপক্ষে রাজাকারের বাচ্চা গালিটি শুনতে হবে। কারণ বর্তমান সরকারের স্তুতি না গাওয়া মানেই রাজাকার গালি শোনা।

আর দেশের জন্য মঙ্গল এই জন্য যে, কোনো কিছু ঘটে গেলেই তদন্ত না করেই আমাদের দায়িত্বশীল মন্ত্রীরা অন্যের ওপর দোষ চাপিয়ে দিয়ে তদন্ত করার নামে সরকারি কোষাগার থেকে টাকা ব্যয়ের হাত থেকে জনগণকে রক্ষা করেন। এতে এক ঢিলে দুই পাখি মারা হয়। কাউকে দোষারোপ করে বিচারকদের কাজও সহজ করে দেন। কষ্ট করে বিচারকদের খুঁজে বের করতে হয় না দোষীদের। কষ্ট করতে হয় না পুলিশেরও। বরং বাণিজ্যটা বৃদ্ধি পায়।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#bottom]

Leave a Reply