পদ্মা সেতু প্রকল্প

লৌহজংয়ে ঘরবাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করে অধিক ক্ষতিপূরণ আদায়ের চেষ্টা :
পদ্মা সেতুর অধিগ্রহণকৃত ভূমির অবকাঠামোর ক্ষতিপূরণের টাকা পেতে লৌহজং উপজেলার মেদিনীমণ্ডল ও কুমারভোগ ইউনিয়নে হালকা ও পাকা ঘরবাড়ি নির্মাণের ধুম পড়েছে। ভূমি মালিক ও আর্থিকভাবে সচ্ছল ব্যক্তিরা এখানে সিন্ডিকেট করে নিচু কৃষিজমিতে বসতঘর, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসহ নানা ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ করছে। সেতুর জন্য যেসব জমি এখনও অধিগ্রহণ করা হয়নি অথচ করা হতে পারে বা খুব শিগগিরই রেলের জন্য যেসব জমি অধিগ্রহণ করা হবে—এমনসব জমিতে সিন্ডিকেট চক্র এসব অবকাঠামো নির্মাণ করে ক্ষতিপূরণ বাবদ অধিক টাকা উপার্জনের জন্য তড়িঘড়ি করে নিচু কৃষিজমিতে অবকাঠামো নির্মাণ করছে। আর এসব অবকাঠামো নির্মাণে সিসিডিবি নামে একটি এনজিওর কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রশাসনের কিছু অসত্ কর্মকর্তা ভূমি মালিকের জোগসাজশে অবকাঠামো নির্মাণে সহযোগিতা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া চৌরাস্তা হতে প্রায় ১ কি.মি. উত্তরে মহাসড়কের পূর্বপ্রান্তের নিচু কৃষিজমিতে বেশ কিছুদিন যাবত্ তৈরি করা হচ্ছে ছোট-বড় নিম্নমানের বিভিন্ন ধরনের টিনের ঘর। ছোট ছোট ঘর তৈরি করা হয়েছে বেশিরভাগ কৃষিজমিতে। আবার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের জন্য টিন, কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পোলট্রি খামার। এমনকি দোতলা পাকা এল আকৃতির স্কুলঘরের মতো করে তৈরি করা হচ্ছে পাকা দালান। পদ্মা সেতুর জন্য এরই মধ্যে অধিগ্রহণ করা হয়েছে অনেক জমি। কিন্তু যেসব জমিতে এসব অবকাঠামো নির্মাণ করা হচ্ছে, সেসব জমি এখনও অধিগ্রহণ করা হয়নি। তবে কোনো কোনো জমি মালিককে ৩ ধারার নোটিশ দেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। পদ্মা সেতুর সঙ্গে রেলসেতু যোগ করায় ওইসব জমি রেলের জন্য প্রয়োজন হবে বলে জানা গেছে। আর এ কথা সিসিডিবি এনজিও এবং স্থানীয় প্রশাসনের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ভূমি মালিকদের সঙ্গে যোগসাজশ করে তাদের আগাম তথ্য দিয়ে এখানে অবকাঠামো নির্মাণের পরামর্শ দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যাতে সব অবকাঠামোর কয়েকগুণ মূল্য হাতিয়ে নেয়া যায়। নিচু কৃষিজমি যেখানে বর্ষাকালে ৪/৫ ফুট পানি থাকে, সেখানে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল বিশাল পোলট্রি খামার।

সরেজমিনে দেখা যায়, একটি খামারেও মুরগি নেই। কিছুদিন আগে এখানে আসে সরকারি একটি জরিপ দল। সেসময় ফার্মে মুরগি দেখানোর জন্য পার্শ্ববর্তী শ্রীনগর উপজেলার একটি পোলট্রি খামার হতে মুরগি ভাড়া করে এনে এখানে রাখা হয়েছিল।

সিসিডিবি মাওয়া অফিসের এরিয়া ম্যানেজার পিটার এস রত্ন জানান, সিসিডিবি ৬ ধারা নোটিশপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা পেতে কাগজপত্র তৈরির ব্যাপারে সহযোগিতা করে থাকে। কোনোপ্রকার জরিপ কাজে সিসিডিবি কাজ করে না; তাই ভূমি মালিকদের সঙ্গে যোগসাজশ করে আর্থিক সুযোগ-সুবিধা নেয়ার অভিযোগ মোটেও সত্য নয়। লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী মো. আসাদুজ্জামান কবীরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার জানামতে এসব এলাকার চিত্র অনেক আগেই ভিডিওতে ধারণ করা হয়েছে, তাই নতুন করে যারা ঘরবাড়ি তুলেছেন, তাদের ক্ষতিপূরণ পাওয়ার তেমন কোনো সুযোগ নেই।

জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম জানিয়েছেন, এরকম দুর্নীতির সঙ্গে জেলা প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তা জড়িত থাকলে তা তদন্তের মাধ্যমে খুঁজে বের করা হবে। তবে ওইসব এলাকার ভিডিও ফুটেজ অনেক আগেই ধারণ করা আছে, প্রয়োজনে তা খতিয়ে দেখা হবে। দরকার হলে তিনি নিজে ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিনে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

[ad#bottom]

Leave a Reply