কাজ না করেই টাকা উত্তোলন

পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নে ব্যয় নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সেতুর বিভিন্ন অংশের নকশা এখনো চূড়ান্ত হয়নি, অথচ চুক্তির পুরো ১১৬ কোটি টাকাই উঠিয়ে নিয়ে গেছে নকশা প্রণয়নে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান মনসেল-এইকম। এখন বাকি কাজের জন্য আরও প্রায় ৭০ কোটি টাকা দাবি করছে তারা।

পরামর্শকদের এই চাহিদা অনুযায়ী, বাড়তি অর্থ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হলেও এ নিয়ে প্রকল্প পরিচালক ও সেতু বিভাগের মধ্যে টানাপোড়েন শুরু হয়েছে। সেতু বিভাগের পক্ষে বিভাগের নির্বাহী পরিচালক ও সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া জানিয়ে দিয়েছেন, মনসেল-এইকম চুক্তি অনুযায়ী সময়মতো কাজ না করেই সম্পূর্ণ অর্থ উঠিয়ে নিয়েছে। সুতরাং বাকি কাজ তাদের বিনা পারিশ্রমিকে করতে হবে। যদি প্রকল্প থেকে বাড়তি অর্থ দিতেই হয়, সে ক্ষেত্রে যথাযথ কারণ উল্লেখ করে তা সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি থেকে অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে।
পদ্মা সেতু নির্মাণ সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প। অভিযোগ উঠেছে, এই সুযোগে প্রকল্প-সংশ্লিষ্টরা নানা ছুতোয় ব্যয় বাড়িয়ে নিচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় নকশা খাতেও ব্যয় বাড়ছে।

পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, চুক্তির বাইরে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান বাড়তি ২৭টি সমীক্ষা করেছে। এ জন্য বাড়তি টাকা দিতে হচ্ছে। সময়মতো সব কাজ শেষ না হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ছোট ছোট কিছু কাজ রয়েছে। সেগুলোও হয়ে যাবে।

পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নের জন্য ২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসে মনসেল-এইকমের সঙ্গে চুক্তি করেছিল সরকার। প্রথমে ২২ মাসের মধ্যে যাবতীয় নকশা প্রণয়নের শর্ত দেয় সেতু বিভাগ। কিন্তু প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পরবর্তীকালে পরামর্শকদের সঙ্গে যাবতীয় নকশা ১৬ মাসে করার সমঝোতা হয়। আর তাই ২২ মাসে তাদের যে অর্থ দেওয়ার কথা ছিল, তা ১৬ মাসে দেওয়া হবে। অথচ গত নভেম্বরেই ২২ মাস পেরিয়ে গেছে। কিন্তু এখনো সব কাজ শেষ হয়নি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটি নদী শাসনের নকশার প্রত্যয়নপত্র এখনো দেয়নি। সাধারণত নকশা প্রণয়নের পর সেতু বিভাগের নিয়োগ দেওয়া অন্য আরেকটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান থেকে ‘নকশা ঠিক আছে’ এই মর্মে প্রত্যয়নপত্র নিয়ে তা জমা দিতে হয়। সূত্র জানায়, নদী শাসনের নকশায় কিছু অসংগতি থাকায় সেই সনদ জমা দিতে পারেনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া সেতু নির্মাণের সময় যেখানে যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম রাখা হবে, সেই স্থানের ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন পরিকল্পনা (রেপ-৪) এখনো চূড়ান্ত হয়নি। আবার সেতু নির্মাণে ঠিকাদার নিয়োগ-প্রক্রিয়ার যাবতীয় দলিল তৈরি, দরপত্র মূল্যায়ন এবং নির্মাণকাজ তদারকের জন্য পরামর্শক নিয়োগ-প্রক্রিয়া মনসেল-এইকমের করার কথা, তবে সেগুলোও চূড়ান্ত হয়নি।

গত ২৮ নভেম্বর সেতু বিভাগের সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া প্রকল্প পরিচালক রফিকুল ইসলামকে পুরো টাকা উঠিয়ে নেওয়ার পরও কেন সব কাজ সম্পন্ন হয়নি, পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের জন্য বরাদ্দ সময় ও ব্যয় বাড়ানো হবে কি না এবং হলে কেন করা হবে, সেসব বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দিয়েছেন। চিঠিতে বলা হয়, ‘মনসেলের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ ২২ মাস, যা নভেম্বর মাসে শেষ হয়ে গেছে। তবে বিস্তারিত নকশা প্রণয়ন ত্বরান্বিত করার জন্য পরামর্শক ২২ মাসের সময় কমিয়ে ১৬ মাসের ‘এক্সিলারেটেড প্রোগ্রাম’ করে। কিন্তু এক্সিলারেটেড সময় তো দূরে থাক, ২২ মাসেও সব কাজ চূড়ান্ত করা হয়নি।’

মনসেল-এইকমের বাংলাদেশের প্রতিনিধি এসিই কনসালট্যান্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, কাজের পরিমাণ বাড়ার কারণে ব্যয় বেড়েছে। অনেক কাজ তাঁরা অন্যকে দিয়ে (সাব-কন্ট্যাক্ট) করিয়েছেন। এ জন্য ব্যয় বেড়েছে। নকশাসংক্রান্ত যেসব কাজ বাকি আছে, সেগুলোর জন্য প্রকল্প দেরি হচ্ছে না বলেও তিনি দাবি করেন।

সূত্র জানায়, মনসেল-এইকম চুক্তির পুরো অর্থ গত জুলাই মাসেই উঠিয়ে নিয়েছে। তারা এখন দাবি করছে, চুক্তির বাইরে বেশ কিছু সমীক্ষা-পরীক্ষা করা হয়েছে, সেগুলোর অর্থ পরিশোধ করতে হবে। এ ছাড়া নকশাসংক্রান্ত যেসব কাজ বাকি আছে, সেগুলোর জন্যও বাড়তি টাকা দাবি করছে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটি। সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের টাকা উঠিয়ে নেওয়ার বিষয়টি সচিব জানতেন না। নতুন করে বাড়তি টাকার প্রস্তাব এলে তবেই সচিব জানতে পারেন।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশ পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নে আরও ১০ মিলিয়ন ডলার বা ৭০ কোটি টাকা বাড়তি দেওয়ার জন্য এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) কাছে প্রস্তাব পাঠায়। এডিবি এতে রাজিও হয়। এই বাড়তি অর্থ থেকেই প্রকল্প পরিচালক পরামর্শকদের চুক্তির অতিরিক্ত অর্থ দেওয়ার চেষ্টা করছেন। বাড়তি অর্থ চাওয়ার সময় বলা হয়েছিল, প্রাথমিক নকশা প্রণয়নের পর বাড়তি সমীক্ষা-পরীক্ষা করতে হয়েছে। নকশা প্রণয়নের সময়সীমা কমিয়ে আনার কারণেও বাড়তি অর্থের প্রয়োজন হচ্ছে। উল্লেখ্য, মনসেল-এইকমকে দেওয়া ১১৬ কোটি টাকাও এডিবি ঋণ হিসেবে দেয়।

অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, মনসেলকে ২০০৯ সালে নিয়োগের সময়ও বাড়তি ব্যয় করতে হয়েছিল। সেতুর নকশা প্রণয়নে ২০০৭ সালে এডিবি সর্বোচ্চ ১০০ কোটি ৭৪ লাখ টাকার মধ্যে পরামর্শক নিয়োগের নির্দেশনা দিয়েছিল। কিন্তু কারিগরি প্রস্তাবে মূল্যায়নের দরপত্রে অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রথম হয়ে মনসেল দাবি করে, ১০০ কোটি টাকায় নকশা প্রণয়ন সম্ভব নয়। অনেক দর-কষাকষির পর সেবার নকশা প্রণয়ন বাবদ প্রায় ১১৬ কোটি টাকায় চুক্তি হয় মনসেলের সঙ্গে।

সরকার ঘোষণা দিয়েছে, আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হবে। ২০১৩ সালে সেতুর নির্মাণকাজ শেষ করতে চায় সরকার। ঠিকাদার নিয়োগের লক্ষ্যে দরপত্র মূল্যায়ন চলছে। পদ্মা সেতু হবে চার লেনবিশিষ্ট। দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে প্রায় সাড়ে ১৮ হাজার কোটি টাকা জোগান দেওয়া হবে বৈদেশিক ঋণ থেকে। বাকি টাকা সরকারের।

আনোয়ার হোসেন

[ad#bottom]

Leave a Reply