যথাযথ ক্ষতিপূরণের দাবিতে মাওয়ায় মানব বন্ধন করেছে পদ্মা সেতুর ক্ষতিগ্রস্তরা

মোহাম্মদ সেলিম
যথাযথ ক্ষতি পূরণের দাবিতে পদ্মা সেতুর ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা মঙ্গলবার মাওয়ায় মানব বন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। মানববন্ধন শেষে এক সমাবেশও করে তারা। শিঘ্রই যথাযথ ক্ষতি পূরণের ব্যবস্থা করা না হলে মাওয়ায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধের মতো কর্মসূচি দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১ টা পর্যন্ত এক ঘন্টা ব্যাপি মানব বন্ধন কর্মসূচি ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া চৌরাস্তায় মহাসড়কে পাশে অনুষ্ঠিত হয়। এসময় লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ ও মেদিনী মন্ডল ইউনিয়নসহ শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি ও দক্ষিন পাইকশা মৌজার সহস্রাধিক লোক এ মানব বন্ধন কর্মসূচিতে অংশ গ্রহন করে। দীর্ঘ দিন ধরে চেষ্টা করেও যথাযথ ক্ষতিপূরণ না পাওয়ায় গতকাল এ মানব বন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা।

পদ্মা বহুমুখী সেতু কতৃপক্ষ ইতিমধ্যে কুমারভোগ মৌজায় ৩৫ ভাগ অতিরিক্ত যোগ করে ৪০ একর জমির টাকা ক্ষতি পূরণ হিসেবে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে টাকা প্রদান করে। এতে কুমারভোগ মৌজায় নাল/কৃষি জমির দাম ধরা হয় এক লাক ৯৬ হাজার ৩ শ’ ৭৪ টাকা অথচ বর্তমানে ৭ ভাগ অতিরিক্তযোগ করে এ দাম ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪২ হাজার ৬শ’ ৩০ টাকা। একই ভাবে চালা/ভিটা বাড়ি পূর্বে ২ লাখ ৯ হাজার ২শ, ৫০ টাকা ধরা হলেও বর্তমানে তা ভিটা/বাড়ি ১ লাখ ৭৩ হাজার ৪৮৭ টাক করে ধরা হয়েছে। এভাবে সকল ধরনের জমির দামই এ মৌজায় কমিয়ে আনা হয়েছে।

একই মৌজায় দ্বৈত্বনীতি প্রয়োগ করায় ক্ষুব্ধ হয়েছে কুমারভোগ মৌজার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। তারা মানব বন্ধন কর্মসূচির মাধ্যমে দাবি করেছে পূর্ব নির্ধারিত ৪০ একর জমির মূল্য যেভাবে দেয়া হয়েছে বর্তমানেও যেনো সেভাবেই দেয়া হয়। অপর দিকে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি ও দক্ষিন পাইকসা মৌজার ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ না দেওয়ায় তারাও যোগ্য ক্ষতিপূরণের আশায় মানববন্ধন কর্মসূটিতে যোগ দেন । এমনিভাবে লৌহজংয়ের মেদিনী মন্ডল ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্তরাও মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করে। মানব বন্ধন শেষে মাওয়া চৌরাস্তার পাশে কুমারভোগ মসজিদ মাঠে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পদ্মা বহুমুখী সেতু কল্যাণ সমিতির আহবায়ক মোঃ গিয়াস উদ্দিন খান, সাদারণ সম্পাদক মোঃ মাহাবুব উল হোসেন বাহন, মোঃ খোরশেদ আলম, সামসুদ্দিন পাঠান প্রমূখ। অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুমারভোগ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নূরমোহাম্মদ খান, চুন্নু মিয়া, রতন হোসেন। অনুষ্ঠনটির সমন্বয়ক ছিলেন খাজা মোঃ নাছির উদ্দিন।

বক্তাগন বলেন , উত্তর কুমারভোগ মৌজার ক্ষতিগ্রস্তদের র‌্যাপ (RAP)-২ ও র‌্যাপ-৩ এর আওতায় পূর্বের নির্ধারিত বা কোন কোন ক্ষেত্রে পরিশোধিত মূল্য বহাল রাখতে হবে। নীতিমালা অনুসারে প্রতি অর্থবৎসরের জন্য ৩৫ ভাগ বর্ধিত হারে মূল্য পরিশোধ করতে হবে। অনন্তসার ও অন্যন্য মৌজার জমির মূল্য পার্শ্ববর্তী মৌজার অনুপাতিক হারে প্রদানের দাবি করেন তারা। নতুবা পরবর্তীতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া চৌরাস্তায় অবরোধের মতো কর্মসূচি আসতে পারে। তবে ক্ষতিগ্রস্তরা সরকারের সাথে পদ্মা সেতু নির্মাণে সহযোগিতা করে সমঝোতার মাধ্যমে জমির যথাযথ ক্ষতিপূরণ পেতেই বেশী আগ্রহী।

[ad#bottom]

Leave a Reply