মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচলে বিপর্যয়: নাব্যতা সঙ্কট

কাজী দিপু, মুন্সীগঞ্জ: নাব্যতা সঙ্কট ও চ্যানেল সরু হয়ে পড়ায় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচলে বিপর্যয় নেমে এসেছে। এমতাবস্থায় দেশের দক্ষিণবঙ্গের এ নৌরুটে ফেরি চলাচল নির্ভর করছে পদ্মার জোয়ার-ভাটার ওপর। জোয়ারের পানিতে ফেরি চলাচল সম্ভব হলেও ভাটায় পদ্মায় পানি কমে গেলে চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ছে।

গত দুই দিনে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে পদ্মায় ভাটা দেখা দিলে দুই দফা ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। এ সময় যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে ভাটার মুখে চ্যানেলের সরু মুখে ফেরি আটকে থাকার ঘটনা ঘটে। এতে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে এখন ফেরি চলাচলের ভরসা হয়ে উঠেছে জোয়ার-ভাটা।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা গেছে, পদ্মায় ভাটা দেখা দিলে নৌরুটের চ্যানেলের নাওডোবা টার্নিংয়ে একটি ফেরি ও আশাপাশে রো রো ফেরিসহ অপর পাঁচটি ফেরি চলাচলে বিপর্যয় দেখা দেয়। ভাটায় পদ্মার পানি কমে গেলে নাওডোবা টার্নিংয়ে সরু চ্যানেলের মুখে আটকা পড়ে ফেরি লেন্টিং। এর আশাপাশে রো রো ফেরি ভাষাশহীদ বরকতসহ বিভিন্ন স্থানে আরো পাঁচটি ফেরি ভাটার মুখে সরু চ্যানেল হয়ে গন্তব্যের দিকে এগোতে পারেনি। এতে ওইসব ফেরি যার যার অবস্থানে নোঙরে থাকে। এ সময় বাধ্য হয়েই বাকি ফেরিগুলো মাওয়া ও কাওড়াকান্দি ফেরিঘাটে নোঙরে রাখা হয়।

এতে নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। ভাটার মুখে পদ্মার নৌ-চ্যানেলের নাওডোবা টার্নিং মুখে ছয়টি মালবোঝাই ট্রাক, ছয়টি যাত্রীবাহী বাস ও ১০টি ছোট আকারের যান নিয়ে রামশ্রী ফেরিটি আটকা পড়ে। এতে জোয়ারের পানির অপেক্ষায় চার ঘণ্টা বসে থাকতে হয়েছে ফেরির যাত্রী সাধারণের।

পরে দুপুর আড়ইটার দিকে জোয়ারের পানি এলে উদ্ধারকারী জাহাজের মাধ্যমে রামশ্রী ফেরিটি উদ্ধার করা হয়। এতে উদ্ধারকৃত ফেরিতে থাকা যাত্রীদের গন্তব্যে যেতে কয়েক ঘণ্টা বিলম্ব হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিআইডব্লিউটিসির ড্রেজিং বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসকুল আলম বলেন, মাওয়া-কাওরাকান্দি রুটে হাজরা পয়েন্টের ড্রেজিং শেষ হয়েছে। নাওডোবা টার্নিংয়ের সরু চ্যানেলেও ড্রেজিংয়ের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply