আমাদের ঢাকা ফেরা

ফয়েজ আহ্‌মদ
পাকিস্তানিদের সারেন্ডারের সময় উপস্থিত থাকার জন্য ভারতের পূর্বাঞ্চলে—কলকাতায়, জয়েন্ট কমান্ডের হেডকোয়ার্টারে প্রায় এক হাজার সাংবাদিক আটকা পড়েছিল। তারা ঢাকায় আসার জন্য কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদনও করেছিল। সে আবেদনে বাংলাদেশ সরকারেরও দুইজন সাংবাদিক প্রতিণিধি ছিলো—একজন আমি—ফয়েজ আহ্‌মদ, আর একজন এম আর আক্তার মুকুল। এই সাংবাদিকরা সবাই ভোর রাত্র থেকে ঐখানে জড়ো হয়। ঢাকায় আসার জন্য। ঢাকায় নিশ্চিতভাবে সে দিনই চারটায় সারেন্ডার হবে এটা আমাদের তখন জানা হয়ে গিয়েছিল। আমি আর এম আর আক্তার মুকুল—এই দুই বন্ধু বাংলাদেশ সরকারের অনুমোদিত ছিলাম এবং বাংলাদেশ সরকার থেকে অনুমোদন অনুযায়ী আমাদের কাছে সার্টিফিকেট ছিল। সেই সার্টিফিকেট অনুযায়ী আমাদের বলা হয়েছিল ভিন্ন পোশাক (ক্যামোফ্লাজ) তৈরী করতে এবং আমাদের নাম ধাম সমস্ত কিছু কর্তৃপক্ষের কাছে রেজিষ্ট্রি করতে।


স্টল বিমান থেকে ঢাকায় নামলেন ফয়েজ আহ্‌মদ, এম আর আক্তার মুকুল, কামাল লোহানী এবং অন্যান্য

কয়েক দিন পরে সরকার হঠাৎ করে রাতের বেলায় টেলিফোন করে আমাদের জানায়, ‘ভোর রাতে রেডি থাকবেন, ৪টার সময় এবং ভোর ৭টার সময় প্লেন ঢাকায় যাবে।’ সেই অনুযায়ী আমরা—বাংলাদেশের সাংবাদিকরা রেডি হলাম। ভোর চারটায় আমাদের উঠিয়ে নিয়ে এয়ারপোর্টে নিয়ে আসে এবং ভোর সাতটার পরে কুয়াশা চলে গেলে ৮/৯টার দিকে প্লেন রওনা দেয়। একটি স্টল প্লেনে করে আমাদের নিয়ে আসা হয়। স্টল প্লেনে পিছন দিক দিয়ে ওঠানামা করতে হয়। সাধারণত এই প্লেন দিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে মালামাল আনা নেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আমরা পেছন দিক দিয়ে প্লেনে উঠে, মালের উপরে বসে আমরা ঢাকায় আসি।

আমরা সবই করে রেডি হয়ে ছিলাম এবং ডালহৌসি স্কয়ারে জয়েন্ট কমান্ডের হেডকোয়ার্টারে একটা পাবলিক অফিস ছিল। সেখান থেকে তাঁরা যুদ্ধক্ষেত্রের সাথে যোগাযোগ করতেন। সেই যোগাযোগের জায়গাটা হয়ে দাঁড়ালো আমাদের—সাংবাদিকদের অপেক্ষার এলাকা। আমরা ঐখানে গিয়ে জড়ো হলাম শত শত সাংবাদিক। ভোর প্রায় ছয়টা থেকেই এই সাংবাদিকরা একত্র হই এবং আমরা ডিমান্ড করি যে আমাদের যুদ্ধক্ষেত্রে নেওয়া হউক। আমাদের প্রত্যেকেরই পারমিশন ছিল যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়ার। কিন্তু যাবো কি করে—সেই ব্যবস্থা সরকারও করতে পারেনি এবং আমরা ব্যক্তিগতভাবেও করতে পারিনি। খুলনা থেকে আরম্ভ করে যশোর হয়ে যে সমস্ত রাজপথ ছিল ঢাকায় আসার, সমস্ত পথেরই যেকোন যায়গায় বিপদ ছিল। রাস্তাঘাটের বিভিন্ন জায়গায় সশস্ত্র লোকজন ছিল। সেই জন্য আর্মি বা সরকার কাউকে কোন পারশিমন কখনও দেয় নাই। এই রাস্তাঘাট ক্লিয়ার না হইলে তারা কোন পারমিশন দিতে রাজি নয় এবং তাদের দিক থেকেও কোন গাড়ীর ব্যবস্থা করা যায়নি। তো এই অবস্থার মধ্যেই আমরা ডালহৌসি স্কয়ারে যারা জড়ো তারা সারাটা দিনই প্রায় ঐখানে ছিলাম, সারেন্ডার হওয়া পর্যন্ত। আমরা জানতাম ঢাকায় কি হচ্ছে এবং কখন সারেন্ডার হবে। এবং কারা সারেন্ডার করছে, কিভাবে—সেই সংবাদ আমরা ওখান থেকে পেতাম। কিন্তু আমরা আসতে পারি নি। আমাদের আসতে দেওয়া হয়নি। যারা আগরতলায় ছিলেন, যারা আসাম অঞ্চলে ছিলেন এবং দেশে বিভিন্ন অঞ্চলে ছিলেন—যুদ্ধক্ষেত্রে, সেই সমস্ত সাংবাদিকের পক্ষে ডায়রেক্টলি ঢাকা চলে যাওয়া সম্ভব ছিল। কিন্তু আমরা কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ছাড়া এক পাও অগ্রসর হতে পারি নি। এবং সারেন্ডার যখন হয় সেই সময়টা আমরা কোলকাতাতে ডালহৌসি স্কয়ারের আর্মি অফিসে বসে ছিলাম।


মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ভারত ও বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের কাছে থেকে পাওয়া ফয়েজ আহ্‌মদের বিভিন্ন সার্টিফিকেট

সারেন্ডার হয়ে যাওয়ার পরে আমরা চেষ্টা করেছিলাম আসতে। কিন্তু তখন অলরেডি সন্ধ্যা হয়ে গেছে। কয়েকজন বিদেশী সাংবাদিক অবশ্য চেষ্টা করেছিল। তারা ট্যাক্সি ভাড়া করেছিল আসার জন্য, কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছিল। আমরা এইভাবে সারাটা দিন ডালহৌসি স্কয়ারের আর্মি অফিসে কাটাই।কয়েকশত লোক, যারা সাংবাদিকতার সাথে জড়িত, সবার উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন অতিবাহিত হয়।

কয়েক দিন পরে সরকার হঠাৎ করে রাতের বেলায় টেলিফোন করে আমাদের জানায়, ‘ভোর রাতে রেডি থাকবেন, ৪টার সময় এবং ভোর ৭টার সময় প্লেন ঢাকায় যাবে।’ সেই অনুযায়ী আমরা—বাংলাদেশের সাংবাদিকরা রেডি হলাম। ভোর চারটায় আমাদের উঠিয়ে নিয়ে এয়ারপোর্টে নিয়ে আসে এবং ভোর সাতটার পরে কুয়াশা চলে গেলে ৮/৯টার দিকে প্লেন রওনা দেয়। একটি স্টল প্লেনে করে আমাদের নিয়ে আসা হয়। স্টল প্লেনে পিছন দিক দিয়ে ওঠানামা করতে হয়। সাধারণত এই প্লেন দিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে মালামাল আনা নেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আমরা পেছন দিক দিয়ে প্লেনে উঠে, মালের উপরে বসে আমরা ঢাকায় আসি।

আমাদের প্লেনটি তেজগাঁও বিমান বন্দরে নামে, এখনকার বিমান বন্দরে নয়। ভারতীয় বোম্বিং-এ রানওয়ে ক্ষত বিক্ষত হয়ে গিয়েছিল। যাতে নাকি পাকিস্তানি বিমান উঠা নামা করতে না পারে, সেই জন্য ওই রানওয়ে গুলোকে নষ্ট করা হয়েছিল। ১৬ ডিসেম্বরের পরের ৩/৪ দিন রানওয়েটাকে মেরামত করতে ব্যয় হয়। এই কয়দিনে কনক্রিট ফেলে রানওয়েটাকে মোটামুটিভাবে শক্ত করা হয়, যাতে বিমান ওঠানামা করতে পারে। সেই রানওয়েতে আমরা নেমে ছিলাম। ২২ তারিখে কলকাতা থেকে ঢাকায় আসা প্রথম দল ছিল এইটা, আমাদের নামিয়ে দিয়ে প্লেনটি কলকাতায় ফিরে যায় এবং পরবর্তি কয়েক ট্রিপে বাংলাদেশ সরকারের অফিসার ও প্রবাসী সরকারের কেবিনেট সদস্যদের বাংলাদেশে নিয়ে আসে।

ঢাকায় নামার পরে আমাদের রিসিভ করার কেউ ছিল না। তিন জন ফটোগ্রাফার কোথা থেকে এসেছিল, কেন এসেছিল, কী উৎসাহে এসেছিল তা জানা গেল পরে। জানলাম যে তারা তাদের ব্যক্তিগত উৎসাহ-উদ্দীপনায় পরিচিত কেউ আসতে পারে—সেই আশায় বিমানবন্দরে গিয়েছিল। যারা গিয়েছিল তাদের মধ্যে আমার একজন বন্ধুও ছিল। সে ছিল বিজ্ঞাপন কোম্পানির মালিক এবং সেই বন্ধুসহ তিনজনে আমাদের ছবি তোলে।

আমাদের ইন্সট্রাকশন দেওয়া ছিল—সরকারি অফিসের সাথে যোগাযোগ করতে। এটা কোলকাতা থেকে আমাদের বলে দেওয়া হয়েছিল। আমরা সেই অনুযায়ী সরকারি অফিসের সাথে যোগাযোগ করার জন্য সেক্রেটারিয়েটের দিকে যাই, সেক্রেটারিয়েটে তখন পর্যন্ত সব লোকজন আসে নাই। আর কে কোথায় বসে, তাও আমরা জানতাম না। তবুও আমরা চেষ্টা করেছি যতদূর সম্ভব যোগাযোগ করার জন্য। হোম মিনিস্ট্রি থেকে আমাদের সেই সময় বলা হলো, ‘আপনারা তাড়াতাড়ি করে একটা নিরাপদ আশ্রয় গ্রহণ করুন। যার যার আত্মীয়র বাড়ীতে যান, আত্মীয় না থাকলে যে কোন একটা আশ্রয় গ্রহণ করুন।’ যাতে নাকি রাজাকার, আলবদর আমাদের না পায়। কারণ রাজাকার আলবদর তখনও ঢাকার রাস্তায় আছে। তো আমরা সেইভাবে সাবধানে রইলাম এবং দোকানে কয়েক জনে মিলে খাওয়া দাওয়া করলাম। আর কারো কারো বাসা ছিল বা আত্মীয়ের বাসা ছিল। তাদের বাসা বা আত্মিয়র বাসায় চলে গেল তারা।

শেষ পর্যন্ত আমি, মুকুল আর কামাল লোহানী—এই তিন জনার কোন আশ্রয় ছিল না। তাদের কার ফ্যামিলি কোথায় আছে—কেউ জানে না। তো আমরা কোন উপায় না দেখে মতিঝিলে পূর্বাণী হোটেলে আশ্রয় নিয়েছিলাম। পূর্বাণী হোটেলে গিয়ে দেখা গেল রান্না করার লোকও নাই এবং পাহারাদারও কেহ নাই। মালিক পক্ষের দুজন লোক বসে আছে। তারা বললো আমরা আপনাদের কোন দায়িত্ব নিব না, তবে আমরা দেখি আপনাদের খাওয়া দাওযার কি করা যায়। এবং তারা একবেলা খাওয়ার বন্দোবস্ত করেছিল। এবং তারা ৩ ও ৫ তলায় বেনামে আমাদের কতগুলো রুম দিয়েছিল । আমরা সেইসব রুমে আশ্রয় নিয়েছিলাম।

ধানমণ্ডি, ১৪ ডিসেম্বর ২০১০

[ad#bottom]

Leave a Reply