মৃতেরা জেগে উঠবে

নূহ-উল-আলম লেনিন
বিজয়ের মান। গৌরবের মাস। আনন্দ-বেদনার মাস। পরাধীনতা থেকে উত্তরণের মাস। মুক্তির মাস। আবেগাশ্রিত এ কথাগুলো বহুল উচ্চারিত, গতানুগতিক এবং কখনো কখনো আলঙ্কারিক মনে হতে পারে। সত্য বটে এতে কোনো অভিনবত্ব নেই; কিন্তু এ যেন সূর্যস্নাত ভোরের শিশির বিন্দুর মতো প্রতিদিন আমাদের মুগ্ধ করে। আমরা বিস্ময় এবং রোমাঞ্চবোধ করি। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি এবং একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে বিজয়ের আনন্দ-বেদনা ও গৌরববোধ আমার কাছে কখনোই পুরনো বা মস্নান হয় না। তবে পুরনো হয় না বলেই সম্ভবত কতগুলো প্রশ্ন বার বার ঘুরেফিরে আসে। আমাকে বিদ্ধ করে, রক্তাক্ত করে। আমার এবং আমার মতো অগণিত মুক্তিযোদ্ধার বিজয়ের আনন্দ এবং গৌরবকে মস্নান করে দেয়।

আটপৌরে পুরনো প্রশ্ন। এ প্রশ্নেও নেই কোনো অভিনবত্ব। তবে অমীমাংসিত প্রশ্ন। আর যদ্দিন তা অমীমাংসিত থাকবে, তদ্দিন তা ঘুরেফিরে আসবেই।

প্রশ্ন-১. আমরা কী মুক্তি পেয়েছি? ওই যে একটা জনপ্রিয় গণসঙ্গীতে বলা হয়ছে, স্বাধীন হইলাম মুক্তি পাইলাম না। আমাদের স্বাধীনতার লক্ষ্য কী ছিল, তা বঙ্গবন্ধুইতো নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন। তিনিই তো ১৯৭১-এর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বলেছিলেন, “এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।” এর অর্থ কী এই নয় যে, ‘স্বাধীনতা ও মুক্তি’ প্রত্যয় দু’টির মধ্যে পার্থক্য আছে। মুক্তি কথাটাই বঙ্গবন্ধু প্রথম উচ্চারণ করেছিলেন। তবে তিনি জানতেন, মাতৃভূমির স্বাধীনতা ছাড়া জনগণের আর্থ-সামাজিক মুক্তি সম্ভব নয়।

বঙ্গবন্ধুর ২৬ মার্চের স্বাধীনতার ঘোষণা এবং মুক্তিযুদ্ধ সর্বোপরি ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মদানের বিনিময়ে মাত্র নয় মাসে স্বাধীনতা অর্জন সম্ভব হলেও গত ৩৯ বছরেও আমরা প্রকৃত মুক্তি অর্জন করতে পারিনি। অভিজ্ঞতায় প্রমাণিত হয়েছে, সামাজিক মুক্তি কোনো ঘোষণা দিয়ে, যুদ্ধ করে অথবা জনগণকে অসংগঠিত দর্শকের ভূমিকায় রেখে অর্জন করা সম্ভব নয়।

প্রশ্ন-২. মুক্তি শব্দটির সহজ-সরল ব্যাখ্যা কী। তাত্তি্বক প্রচ্ছন্নতা নয়, সরাসরি বলা দরকার কী হলে, কেমন করে মুক্তি অর্জিত হতে পারে। একটা সহজ-সরল উত্তর স্বয়ং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু দিয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, আমার গরীব-দুখী মানুষ যেন দু’বেলা দু’মুঠো খেয়েপরে বাঁচতে পারে, মাথা গুঁজবার ঠাঁই পায়, অসুখ-বিসুখে ওষুধ পায়, তাদের ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়ার সুযোগ পায়, মানুষের মর্যাদা নিয়ে বাঁচতে পারে। আরো সহজ করে বলেছেন, আমার দুখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে না পারলে স্বাধীনতা ব্যর্থ বয়ে যাবে।” এর চেয়ে সহজবোধ্য ব্যাখ্যা আর কী হতে পারে?

তারপরও আমি ‘মুক্তি’র একটা সংজ্ঞা দিতে চাই। আমার কাছে, সকল দেশকর্মী মুক্তিসাধকের কাছে মুক্তি মানে সমাজ ও ব্যক্তি-মানুষের জীবন থেকে ক্ষুধা-দারিদ্র্যের অবসান

নিরক্ষরতা-অজ্ঞানতার অবসান
বেকারত্বের অবসান
বাসু্তহীনতার অবসান
চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তির নিশ্চয়তা

পশ্চাৎপদতা, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কারের হাত থেকে নিষ্কৃতি, দুনর্ীতি, দুবর্ৃত্তায়ন, হিংসা ও হানাহানির অবসান এবং মানুষে মানুষে ভেদ-বৈষম্যের অবসান। এক কথায় যার অর্থ মানবসত্তার মর্যাদা প্রতিষ্ঠা। এই সবগুলো কথাই আমাদের সংবিধানে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় মৌলিক অধিকার শিরোনামে একটি অনুচ্ছেদে স্পষ্টভাবে লেখা আছে।

কিন্তু মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ৩৯টি বছর পেরিয়ে গেলেও এ দেশ থেকে ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নিরক্ষরতা, শিক্ষাহীনতা, পশ্চাৎপদতার অবসান হয়নি। প্রত্যাশিত এবং সম্ভবপর উন্নয়ন না হলেও বাংলাদেশ এক জায়গায় দাঁড়িয়ে নেই। নানা ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে। ধীরে ধীরে হলেও বাংলাদেশ অগ্রসর হচ্ছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও, যে মৌলিক পরিবর্তনের জন্য ত্রিশ লক্ষ মানুষ আত্মাহুতি দিয়েছেন, সেই কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আজও অর্জিত হয়নি। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি। বর্তমানে জনসংখ্যা ১৪ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। এই ১৪ বা ১৫ কোটি মানুষের গ্রাসাচ্ছাদনের ব্যবস্থা মূলত এ দেশের মাটি থেকেই যেমন হচ্ছে, তেমনি করুণতম সত্য হলো মুক্তিযুদ্ধকালীন সমপরিমাণ মানুষ অর্থাৎ ৭ কোটি মানুষ এখনো দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করছে। প্রায় সমপরিমাণ (৭ কোটি) মানুষ নিরক্ষর। কোটি কোটি মানুষের নিজস্ব থাকার ঘর নেই। ৩-৪ কোটি মানুষ বেকার- অর্ধবেকার।

সমাজে ধর্ম-বৈষম্য আকাশচুম্বী। অর্থাৎ ধনী-দরিদ্রের পার্থক্য বেড়েই চলেছে। ধন-সম্পদ আহরণের প্রধান উপায় হয়ে দাঁড়িয়েছে দুর্নীতি, দুবর্ৃত্তায়ন।

প্রশ্ন-৩. এ অবস্থা কী অনিবার্য ছিল? কারা এর জন্য দায়ী? না অবস্থা অনিবার্য ছিল না। ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতি এবং মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার ও চেতনা থেকে দূরে সরে আসার জন্যই এ ঘটনা ঘটেছে। আর এর জন্য দায়ী সামরিক শাসক জিয়া, এরশাদ ও খালেদা-নিজামীদের দুঃশাসন।

প্রশ্ন-৪. শেষ প্রশ্ন, এ অবস্থার কী পরিবর্তন হবে না? কে করবে এই পরিবর্তন? আদৌ কী এই পরিবর্তন সম্ভব? আমরা আশাবাদী। পরিবর্তন সম্ভব। ইতিমধ্যেই সে প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষ সেই পরিবর্তনের পক্ষেই তাদের রায় দিয়েছে। শেখ হাসিনা তার নির্বাচনী ইশতেহারে ২০২১ সালকে সামনে রেখে একটা দীর্ঘমেয়াদি রূপকল্প ঘোষণা করেছেন। এই রূপকল্প ও নির্বাচনী ইশতেহারকে তিনি দিনবদলের সনদ হিসাবে দেশবাসীর সামনে উপস্থাপন করেছেন। ইশতেহারটি তরুণদের প্রতি উৎসর্গ করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন।

যে দলটি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছে এবং একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ হিসাবে প্রিয় মাতৃভূকিকে বিশ্বের মানচিত্রে প্রতিষ্ঠিত করেছে, সেই দলের পক্ষেই সম্ভব সংবিধানে বর্ণিত জনগণের মৌলিক অধিকারগুলো বাস্তবায়িত করা। দিনবদলের অঙ্গীকার পূরণ করা। নানা সীমাবদ্ধতা, দুর্বলতা সত্ত্বেও গত দুই বছরে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহাজোট সরকার দেশের সার্বিক উন্নয়নে বেশকিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকারের সামনে আরো ৩টি বছর রয়েছে। এই তিন বছরে অবশিষ্ট নির্বাচনী অঙ্গীকারগুলো বাস্তবায়ন সম্ভব হলেও প্রকৃতপক্ষে সামাজিক-অর্থনৈতিক মুক্তির বিঘোষিত লক্ষ্যগুলো সর্বাংশে পূরণ সম্ভব হবে না। ধরে নেয়া যাক ২০২১ সাল পর্যন্ত যদি আওয়ামী লীগ নিরচ্ছিন্নভাবে ক্ষমতায় থাকে তাহলেই কী একটি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে উঠবে এবং মানুষে মানুষে ভেদ-বৈষম্য ঘুচে যাবে?

সরকারটি যদি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের হয় তাহলে নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশ একটি মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবার সুযোগ কাজে লাগাতে সক্ষম হবে। তবে তারপরও প্রশ্ন থেকে যাবে, আয় বা সম্পদ বাড়লেই কী দারিদ্র্য জাদুঘরে পালাবে? বেকারত্বের অবসান ঘটবে? সকল মানুষের গৃহসংস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসার ব্যবস্থা হবে? সর্বোপরি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক এবং মানুষে মানুষে ভেদ-বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে উঠবে?

পৃথিবীর অনেক দেশেই বিপুল উন্নয়ন হয়েছে, সম্পদও সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু উন্নয়নের সুফল হত-দরিদ্র মানুষ না পাওয়ায় এবং সম্পদের সুষম বন্টন নিশ্চিত না হওয়ায় সে দেশটির বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ দরিদ্র রয়ে গেছে। সমাজে শ্রেণী ও ধনবৈষম্য উৎকট আকারে বিদ্যমান আছে।

আমাদের বিবেচনায় এখানেই হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগের আসল পরীক্ষা। উন্নয়নের জন্য একটি প্রজন্মকে কিছুটা মূল্য দিতে হয়, ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ‘৭১-এর মতো যদি সে মূল্যটুকু দিতে প্রস্তুত না থাকে, তাহলে দিনবদলের-পরিবর্তনের সকল আয়োজন ব্যর্থ হয়ে যাবে। এ জন্য সর্বাগ্রে যুগের চাহিদার কথা মনে রেখে নিজেদের বদলাতে হবে। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বদলালে আওয়ামী লীগ বদলাবে। আওয়ামী লীগ বদলালে দেশ বদলাবে। আর এবার যে সুযোগ আওয়ামী লীগ তথা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিগুলো পেয়েছে, তাকে যদি তারা কাজে লাগাতে না পারে তাহলে বাঙালি জাতি তাদের ক্ষমা করবে না। ক্ষমা করবে না ‘৭১-এর ত্রিশ লক্ষ শহীদ। আমরা ব্যর্থ হলে সেই মৃতেরা জেগে উঠবে। তারা আমাদেরকে জিজ্ঞেস করবে, আমরাতো দেশের স্বাধীনতার জন্য আমাদের শ্রেষ্ঠ সম্পদ জীবন বিলিয়ে দিয়েছি। তোমরা দেশের দারিদ্র্য ঘুচাতে, মানুষের মুক্তির জন্য কতটা ত্যাগ স্বীকার করেছ? যদি ব্যর্থ হও আমরা ক্ষমা করবো না।’

[ad#bottom]

Leave a Reply