মাওয়ায় পারাপারের অপেক্ষায় ট্রাকের দীর্ঘ লাইন

সময় কাটছে তাস খেলেঃ টার্মিনাল না থাকলেও টোল আদায় হচ্ছে ইজারাদারের মাধ্যমে
ট্রাক ড্রাইভার ইদ্রিস আলী তার ট্রাক যশোর ট-০২-০৪৪৮ নিয়ে গত ৩ দিন আগে কাচপুর থেকে ভোজ্য তেল নিয়ে মাওয়ায় এসে গতকালও ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় ছিল। যাবেন খুলনা। কিন্তু কবে কখন ফেরি পার হতে পারবেন তা তিনি জানেন না। একই অবস্থা ট্রাক ড্রাইভার আলাউদ্দিনের । তিনিও গত বুধবার তার ট্রাক খুলনা মেট্রো ট- ১১-০৮৭০ ট্রাকে কাচপুরের মেঘনা ঘাট হতে সিমেন্ট নিয়ে মাওয়ায় এসে সিরিয়াল দিয়েছেন ফেরি পার হতে কিন্ত ফেরি ঘাটতো দূরের কথা গত তিন দিনে তিনি মাওয়া চৌরাস্তায় পৌছাতে পারেননি। এদের মত কয়েক শ’ ট্রাক ড্রাইবার এখন মাওয়ায় ফেরি পারের অপেক্ষায় আছে। কিন্তু কখন ফেরি পার হতে পারবেন তা তারা জানেন না। তাই অলস সময় কাটাতে ট্রাকের নীচে বা সিরিয়ালে থাকা দু ট্রাকের মাছে মাদুর বিছিয়ে তাস (কার্ড) খেলে ।


বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের এজিএম আশিকুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে ঘন কুয়াশা পরায় ফেরি চলাচল মারাত্মক ব্যাহত হয়। তাছাড়া ৩ দিনের ছুটি থাকায় পরিবহনের গাড়ি পারাপারের চাপ ছিল বেশি। একই সঙ্গে বিজয় দিবস উপলক্ষে টুঙ্গী পাড়া বঙ্গবন্ধুর মাজারের উদ্দেশ্যে অতিরিক্ত লোকজন যাতায়াত বেশি থাকায় প্রাইভেট গাড়ীর পারাপারও ছিল লক্ষনীয়। তাই স্বাভাবিকভাবেই ট্রাক পারাপারে কিছুটা ধীরগতি ছিল। তাই এখানে ট্রাকের দীর্ঘ লাইন লেগে গেছে। তবে খুব শিঘ্রই তা কমে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এদিকে গতকাল মাওয়া চৌরাস্তা হতে খান বাড়ি ছাড়িয়ে প্রায় ৩ কি.মি. দূরে ট্রাকের লাইন ছড়িয়ে পড়ে। ৩ দিন ধরে ট্রাক ড্রাইভারার এখানে থাকলেও তাদের নিরাপত্তার জন্য তেমন কোন ব্যবস্থা নেই বলে অভিযোগ করেছেন চালকরা। রাতের বেলায় একটু ঘুমানো যায় না। ঘুমিয়ে পড়লেই ট্রাক থেকে মালামাল উধাও হয়ে যায়। টার্মিনালের নামে ইজারাদার ৫৫ টাকা করে নিলেও এখানে কোন টার্মিনাল নেই। নেই পায়খানা প্রসাব করারর কোন ব্যবস্থা। গোসল করতে হলে যেতে হয় পদ্মায়। অথচ টার্মিনালে এসকল ব্যবস্থা থাকার কথা থাকলে এগুলো তো দূরের কথা আসলে এখানে কোন টার্মিনালই নেই। টার্মিনাল না থাকা সত্ত্বেও সরকার টার্মিনাল ইজারা দিয়ে ট্রাক ড্রাইভারদের নিকট থেকে ইজারাদারের মাধ্যমে ৫৫ টাকা করে টোল আদায় করায় এ রুটে চলাচলকারী ট্রাক চালকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।৩ দিন ধরে ঘাটে বসে থেকে অনেকের খরচের পয়সা ফুরিয়ে যাওয়ায় মালিককে ফোন করে হাত খরচের টাকা আনিয়েছেন। তাতে তেমন কোন কাজ না থাকায় এখন নিজেদেও মধ্যে তাস খেলে সময় পার করছেন চালকরা।

[ad#bottom]

Leave a Reply